নয়াদিল্লি: মঙ্গলবার। তখন ভারতীয় সময় রাত প্রায় ১২টা, আর ওয়াশিংটনে দুপুর প্রায় দেড়টা। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ফোন করলেন নতুন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মার্কিন মসনদে বসার পর দুই নেতার এই প্রথম কথা হল। এর আগে নভেম্বরে নির্বাচনে জেতার পর ট্রাম্পকে শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন মোদী।

দু’জনের মধ্যে কী কথা হল তা বিস্তারিত জানা না গেলেও, এক সরকারি পদাধিকারী এক ‘গ্রেট কনভারসেশন’ বলে বর্ণনা করেছেন। তবে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, ভারত-মার্কিন সম্পর্ক নিয়ে দুই রাষ্ট্রনায়কের কথাবার্তার মাঝে এইচ ১বি ভিসা-সহ দু’ দেশের বাণিজ্যিক সম্পর্কের বিষয়টি আলোচিত হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের এক অফিসার বলেন, “এইচ ১বি ভিসার সমস্যাটি ছাড়া ট্রাম্পের আমলে দু’ দেশের সম্পর্কে আর কোনো বিরোধের বিষয় নেই।       

প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেওয়ার পর নরেন্দ্র মোদীকে নিয়ে এখনও পর্যন্ত পাঁচ জন রাষ্ট্রনেতার সঙ্গে কথা হল ট্রাম্পের। গত শনিবার তিনি কথা বলেন কানাডার আর মেক্সিকোর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে। রবিবার তাঁর দূরভাষিক কথা হয় ইজরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে। মিশরের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সোমবার কথা হয় তাঁর। মঙ্গলবার কথা হল মোদীর সঙ্গে।

উল্লেখ্য ক্ষমতায় আসার আগে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক দৃঢ় করার অনেক কথা বলেছিলেন ট্রাম্প। একটি প্রচারসভায় মার্কিন নিবাসী ভারতীয়দের বলেছিলেন, “আমার জমানায় ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক আরও দৃঢ় হবে। আমাদের বন্ধুত্ব আরও গভীর হবে।” মোদীকে ‘এনার্জেটিক’ আখ্যা দিয়ে তিনি বলেছিলেন, “ প্রধানমন্ত্রী মোদীর সঙ্গে কাজ করতে আমি মুখিয়ে রয়েছি।”

এখন দেখার মোদী-ট্রাম্পের সরকারি স্তরে এই প্রথম কথাবার্তা হওয়ার পর কোন দিয়ে মোড় নেয় ভারত-মার্কিন সম্পর্ক।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here