শৈবাল বিশ্বাস:

বিভিন্ন পুরসভার বেআইনি নির্মাণ নিয়ে ভূরি ভূরি অভিযোগ জমা পড়েছে মুখ্য‌মন্ত্রীর সচিবালয়ে। সরাসরি মুখ্য‌মন্ত্রীকে অনেকেই চিঠি লিখে এ ব্য‌াপারে প্রতিকার চেয়েছেন। সব চেয়ে বেশি অভিযোগ জমা পড়েছে বিধাননগর ও হাওড়া পুরসভা নিয়ে। এই অভিযোগের ভিত্তিতে সম্প্রতি প্রতিটি পুরসভাকে চিঠি লিখে জানতে চাওয়া হয়েছে কতগুলি বেআইনি নির্মাণের বিরুদ্ধে ব্য‌বস্থা নেওয়া হয়েছে এবং মোট কতগুলি অভিযোগ পুরসভাগুলির কাছে জমা পড়েছে।

বিধাননগর পুরসভার মেয়র সব্য‌সাচী দত্ত ইতিমধ্য‌েই এ ব্য‌াপারে বিস্তৃত রিপোর্ট তৈরি করে মুখ্য‌মন্ত্রীর সচিবালয়ে পাঠিয়ে দিয়েছেন। তাঁর বক্তব্য‌, অভিযোগ উঠেছে ঠিকই, কিন্তু পুরসভা এ ব্য‌াপারে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে ব্য‌বস্থাও নিয়েছে। তদন্ত এখনও অব্য‌াহত রয়েছে। এক জন প্রোমোটারও বেআইনি নির্মাণ করে পার পাবেন না। অন্য‌ দিকে মেয়রেরর কথাকে খুব একটা গুরুত্ব দিতে রাজি নন বিরোধীরা। তাঁদের বক্তব্য‌, পুরোনো রাজারহাট-গোপালপুর পুর এলাকায় যে সব ওয়ার্ডে মেয়রের অপছন্দের কাউন্সিলার রয়েছেন সেখানেই পুরসভা কিছু কাজ দেখাচ্ছে, অন্য‌ এলাকার বেআইনি  নির্মাণ নিয়ে তাদের কোনো মাথাব্য‌থা নেই।

উল্লেখ্য‌, বিধাননগর করপোরেশনে পরিণত হওয়ার পরও কেষ্টপুর, চিনার পার্ক, জ্য‌াংড়া, হাতিয়াড়া প্রভৃতি এলাকা থেকে একের পর এক বেআইনি নির্মাণের অভিযোগ জমা পড়েছে। পুরসভা সূত্রে খবর, গত কয়েক মাসে ৬৫০টি অভিযোগ জমা পড়েছে। এর বেশির ভাগটাই রাজারহাট-গোপালপুর এলাকায়, যেখানে আগে একচ্ছত্র আধিপত্য‌ ছিল কিছু দিন আগে সিপিএম ছেড়ে তৃণমূলে আসা তাপস চট্টোপাধ্য‌ায়ের, এখন যিনি বিধাননগর পুরসভার ডেপুটি মেয়র। পুর অফিসাররা জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত পুরোনো বিধাননগর এলাকায় ৩৩টি ও রাজারহাট-গোপালপুর এলাকায় ৩৩টি বেআইনি নির্মাণের বিরুদ্ধে ব্য‌বস্থা নেওয়া হয়েছে। নোটিশ দিয়েছে প্রোমোটারদের বলা হয়েছে ওই নির্মাণ ভেঙে ফেলার জন্য‌ অন্য‌থায় পুরসভাই তা ভেঙে দেবে।

পুরসভার নিজস্ব সমীক্ষায় জানা গিয়েছে, বিধাননগর পুর এলাকায় প্রায় ২০০টি বেআইনি নির্মাণ রয়েছে। তার মধ্য‌ে ১০০টি ক্ষেত্রে মালিক বা প্রোমোটারকে শুনানির জন্য‌ ডেকে পাঠানো হয়েছে। তাদের কাগজপত্র পরীক্ষা করে দেখে ৬০টি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। মেয়রের বক্তব্য‌, বিধাননগরে্ বেআইনি নির্মাণের বিরুদ্ধে যত দ্রুত ব্য‌বস্থা নেওয়া হয়েছে অন্য‌ কোথাও হয়েছে কিনা সন্দেহ।

মুখ্য‌মন্ত্রীর সচিবালয় সূত্রের খবর, এ পর্যন্ত বেআইনি নির্মাণ নিয়ে সব চেয়ে বেশি অভিযোগ উঠেছে বিধাননগর পুরসভার বিরুদ্ধে। পুরসভা এ ব্য‌াপারে যাই জবাবদিহি করুক মুখ্য‌মন্ত্রী স্বয়ং অন্য‌ ভাবে তা খতিয়ে দেখবেন। তিনি নিজে সন্তুষ্ট না হলে পুরপ্রশাসনের ক্ষেত্রে দ্রুত রদবদল হতে পারে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here