Dhakuria

কলকাতা: ছ’বছরের শিশুকে স্কুলে যৌননির্যাতনের অভিযোগে অভিভাবক-পুলিশ তুলকালাম বেঁধে গেল ঢাকুরিয়ার বিনোদিনী গার্লস হাইস্কুলের প্রাইমারি সেকশনে। অভিযোগ উঠছে, ওই সেকশনের এক খুদে পড়ুয়ার উপর যৌন নির্যাতন চালান স্কুলেরই শিক্ষক দীপক কর্মকার। সম্প্রতি একটি বাংলা বন্‌ধের দিন ওই ঘটনাটি ঘটে বলে অভিযোগ।

ছাত্রীর অভিভাবকের অভিযোগ, সে সময় পড়ুয়ার মা ডেঙ্গিতে আক্রান্ত হন। ফলে সঙ্গে সঙ্গে অভিযোগ জানাতে পারেননি। তবে সুস্থ হয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ জানানো হলেও অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কোনো রকমের ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। উল্টে স্কুলেরই কোনো এক শিক্ষিকা সেই অভিযোগকে ব্যঙ্গ করে উড়িয়েও দেন। সব মিলিয়ে এ দিন সকাল থেকে অভিভাবকদের মধ্যে ক্ষোভ দানা বাঁধতে শুরু করে। অভিযুক্ত শিক্ষককে তাঁদের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য দাবি জানাতে থাকেন। দাবি ক্রমশ জোরাল হতে থাকে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় ভাঙচুর ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পুলিশ। এর পরই পুলিশের সঙ্গে খণ্ডযুদ্ধ বেঁধে যায় অভিভাবকদের।

অভিযোগ, পুলিশ উত্তেজিত অভিভাবকদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে নির্বিচারে লাঠি চালায়। পুলিশের লাঠির মারে জখম হল বেশ কয়েকজন অভিভাবক। এক মহিলার মাথা ফেটে যায়। অন্য দিকে পুলিশের দাবি, তাঁদের উপর অভিভাবকরা হামলা চালান। ইট ছোড়া হয়। এমনকী আশেপাশের বাড়ির দোতলা থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট ছোড়ারও অভিযোগ উঠেছে। জানা গিয়েছে, ইটের ঘায়ে জখম হয়েছেন গড়িয়াহাট থানার ওসি সুমিত দাশগুপ্ত।

বাঁকুড়ার ভূলুইয়ে প্রকাশিত হল অষ্টকাণ্ড জগদ্রামী রামায়ণ

ঘটনার জেরে স্কুল চত্ত্বরে মোতায়েন রয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী। এমনটাও দাবি করা হচ্ছে, পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট ছোড়ার ঘটনায় বহিরাগতদের ভূমিকা থাকতে পারে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন