খড়্গপুর: এখানকার খেমাশুলি অর্জুনি পল্লিউন্নয়নি জ্ঞান মন্দির উচ্চ বিদ্যালয়ে মঙ্গলবার যা ঘটল, তা দেশে হতবাক সমস্ত মহল। কচি-কাঁচাদের স্কুলমুখো করতে যেখানে সরকারকে নিতে হয় হরেক উদ্যোগ, সেখানে অবিশ্বাস্য ভাবে ক্লাসে ঢুকে পড়ল এক পবনপুত্র। শুধু ঢুকে পড়েই ক্ষান্ত দিল না, রীতি মতো পড়ুয়াদের খাতা-পেনসিল নিয়ে পড়াশোনাতেও মনোযোগ দিল।

স্থানীয় বাসিন্দাদের কথায়, এই এলাকায় প্রায়শই হনুমানের আনাগোনা লেগে রয়েছে। তবে হনুমানের এই আকস্মিক আগমনে সাম্প্রতিক কালে কাউকে যখম হতে দেখা যায়নি। মানুষের কাছাকাছি এসে তারা বেশ অধুনিক আদবকায়দা রপ্ত করে ফেলেছে। এই যেমনটা ঘটল গত মঙ্গলবার জ্ঞান মন্দির স্কুলে। যে কাণ্ড দেখে অবাক হয়ে যায় সকলে। একেবারে ব্যতিক্রমী ঘটনা।

এতটা দীর্ঘক্ষণ ধরে হনুমানটি ক্লাসে রুমে রইল অথচ সে ঘটাল না কোনো অপ্রিয় ঘটনা। উল্টো দিকে বাধ্য ছাত্রের মতো আচরণ করে পড়ুয়া তো বটেই, শিক্ষকদের কাছেও হয়ে উঠল প্রিয়।

 

পড়ুয়াদের কথায়, হনুমানটি সোজা গিয়ে পিছনের একটি বেঞ্চে চুপটি করে বসে পড়ে। সেখানে রাখা একজনের পেন নিজের হাতে তুলে নেয়। বাধ্য ছাত্রের মতো সে কলমটি হাতে নিয়ে সামনে রাখা খাতা খুলে কিসব লিখতে শুরু করে। সবাই তখন ওর কান্ডকারখানা দেখতে বসে যায়। এই সময় কিন্তু হনুমানটি কাউকে আঘাত করেনি। স্কুলের শিক্ষকরা ক্লাস রুমে এসে হনুমানটিকে চলে যেতে বলে। দু’একবার মুখ তুলে তাদের দিকে তাকায়। কোনও অভিব্যক্তি প্রকাশ করে না। ফের খাতায় মন দেয়।

তবে হনুমানটির হাভভাবে ক্লাস রুম থেকে বেরোনোর কোনো লক্ষণ না দেখা দেওয়ায় স্কুলের তরফে খবর দেওয়া হয়  কলাইকুন্ডা বিট হাউসে। সেখান থেকে বন দফতরের কর্মীরা এসে বাধ্য ছাত্রটিকে স্কুল থেকে বের করে। (ছবি: বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম থেকে)

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন