সংঘর্ষের সময়ে

ওয়েবডেস্ক: শিক্ষক নিয়োগকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়াল উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরের দাঁড়িভিট স্কুলে। পুলিশের সঙ্গে পড়ুয়াদের প্রত্যক্ষ সংঘর্ষে মৃত্যু হয়েছে এক প্রাক্তন ছাত্রের। আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি তিন পুলিশ কর্মী-সহ আট জন।

জানা গিয়েছে, গত তিন দিন আগেই ওই স্কুলে তিন জন শিক্ষক নিয়োগ করা হয়েছিল। কিন্তু ওই স্কুলের পড়ুয়াদের দাবি, স্কুলে একাধিক বিষয়ের শিক্ষকের চাহিদা থাকলেও শুধু মাত্র উর্দু বিভাগে তিন জনকে নিয়োগ করা হয়েছে। এই অভিযোগকে সামনে রেখে স্কুলের পড়ুয়ারা আন্দোলনে নামে। তাদের সঙ্গে যোগ দেয় বেশ কয়েক জন প্রাক্তন ছাত্র।

বৃহস্পতিবার, তিন শিক্ষককে নিয়ে স্কুলে ঢুকতে যায় পুলিশ। সেখানে তাদের প্রবল বাধার সম্মুখীন হতে হয়। অভিযোগ, পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট ছোড়ে পড়ুয়ারা। ইটের আঘাতে এক মহিলা পুলিশের মাথা ফাটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে পুলিশ রবার বুলেট এবং কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে। রাজেশ সরকার নামে যে প্রাক্তনীর মৃত্যু হয়েছে, তিনি আইআইটি কলেজে পাঠরত ছিলেন।

পুরো ঘটনায় দায় পুলিশের উপর চাপিয়েছেন গ্রামবাসীরা। তাঁদের অভিযোগ, পুলিশ পড়ুয়াদের লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এমনকী পুলিশের বিরু্দ্ধে বোমা ছোড়ার মারাত্মক অভিযোগ করেছেন তাঁরা।

অন্য দিকে পুলিশের বক্তব্য, ছাত্র-ছাত্রীদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টির নিষ্পত্তি করতে চাইলেও কোনো কিছু না শুনেই তারা মারমুখি হয়ে ওঠে। বহিরাগত কিছু ব্যক্তিদের ইন্ধনেই এই ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটেছে বলে অনুমান।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন