BJP TMC clashes in panchayat board
গুলিতে মৃত বিজেপি কর্মী। ছবি: ২৪ ঘণ্টা

ওয়েবডেস্ক: পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠনকে কেন্দ্র করে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে হিংসা ছড়াল। কোথাও তৃণমূলের সঙ্গে সংঘর্ষ হল কংগ্রেসের, কোথাও বিজেপির। কোথাও বা তৃণমূলেরই গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল এলাকা। সব মিলিয়ে সোমবার রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে অন্তত তিন জনের। মালদহে দু’ জন ও পুরুলিয়ায় এক জনের। তবে বিজেপির দাবি, পুরুলিয়ায় তাদের দু’ জন সমর্থকের মৃত্যু হয়েছে।

এ দিন সকালে মালদার মানিকচকে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন তৃণমূল এবং কংগ্রেসের সমর্থকরা। এই সংঘর্ষে অন্তত দু’জনের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর। এ ছাড়াও দিনভর সংঘর্ষের খবর পাওয়া গিয়েছে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে। গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে দেগঙ্গা, ক্যানিং, উত্তর দিনাজপুরের চোপড়াও।

আরও পড়ুন ২০১৯-এর আগে মালদহে কংগ্রেস-তৃণমূল ‘প্রিজোট’

পুরুলিয়া থেকে শুভদীপ চৌধুরী জানাচ্ছেন, সোমবার সকালে ছিল পুরুলিয়া জেলার প্রায় সমস্ত ব্লকেই বোর্ড গঠনের কর্মসূচি। এ দিন বোর্ড গঠনকে ঘিরে পুরুলিয়ার রঘুনাথপুরের চোরপাহাড়ি ও জয়পুরের ঘাগরা গ্রামে চলে দুষ্কৃতীদের বোমাবাজি ও গুলি চালানো। জানা যায়, বোর্ড গঠনের মুহূর্তেই রঘুনাথপুরের চোরপাহাড়ি গ্রামে কিছু দুষ্কৃতী মুখে কালো কাপড় বেঁধে এসে অবাধে বোমা ফেলতে থাকে ও এর দরুন আহত হন বিরোধী দলের নেতা ও স্থানীয় বাসিন্দারা।

অন্য দিকে, বোর্ড গঠনকে কেন্দ্র করে পুরুলিয়ার জয়পুরের ঘাগরা গ্রামে বিরোধী দল ও শাসক দল একে অপরের ওপর হামলা চালায়। চলতে থাকে এলোপাথাড়ি গুলি, বোমাবাজি। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। এর পরেই গুলিবিদ্ধ হয়ে এক জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্বের অবশ্য দাবি, পুলিশের গুলিতেই মৃত্যু হয়েছে ওই কর্মীর। যদিও বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসুর দাবি, অন্তত দু’জন বিজেপির কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। এঁরা হলেন  দামোদর মণ্ডল (৫৯) ও নিরঞ্জন গোপ (২৫)।

 

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন