Ration-Card

সমীর মাহাত, ঝাড়গ্রাম: জঙ্গল মহলের বিভিন্ন জেলায় ডিজিটাল রেশন কার্ড বিলির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বাঁকুড়াতে তার নির্ঘণ্ট ঘোষণা হয়েছে। ঝাড়গ্রাম তা এখনো হয়নি বলে প্রশাসন সুত্রে জানা গিয়েছে। এই নিয়ে সংশ্লিষ্ট মহলে নানা আশঙ্কা তৈরি হয়েছে, যে সবাই এই কার্ড পাবেন কি না! আবার বাড়তি ভুয়ো কার্ড এ বার বাছাই পড়বে কি না!

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের আগস্ট মাসে ঝাড়গ্রাম মহকুমার সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় আধিকারিকের তরফ থেকে এলাকার রেশন কার্ডের তালিকা প্রকাশ করা হয়। তালিকা মতে, জামবনি ব্লকে মোট রেশন কার্ড সংখ্যা ১,৩৭,৮৪৫ টি। ‘১১ সালের জন গণনায় ওই ব্লকের জন সংখ্যা ১,১২,৯২০ জন। একই ভাবে বিনপুর-২ ব্লকে ১,৮৬,৬২৪টি কার্ড, জন সংখ্যা ১,৬৪,২৩৪ জন। অন্যান্য ব্লকগুলিতেও একই অবস্থা। মোটের উপর সেই সময় গোটা ঝাড়গ্রাম মহকুমাতে (এখন জেলা) জন সংখ্যার তুলনায় রেশন কার্ডের বাড়তি গরমিল দাঁড়ায় ২,০২,৫১৪ টি। ‘১৪ সালেই রেশন কার্ডগুলিতে ডিজিটালের স্ট্যাম্প দেওয়া হয়। এ বার বিলি হবে কার্ড।

এ ব্যাপারে ঝাড়গ্রামের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব নিখিল মাইতি বলেন, “আগে ডিজিটাল রেশন কার্ডগুলি বণ্টন হোক। তা হলে বিষয়টি পরিষ্কার হবে। কী ভাবে ডিজিটাল কার্ড বণ্টন হতে চলেছে, সেটাও মাথায় রাখতে হবে। এ তো বহু পুরোনো আমলের গরমিল”।


আরও পড়ুন:ছাত্র আন্দোলনের জেরে অর্নির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়

এ ব্যাপারে ঝাড়গ্রাম ব্লকের সভাপতি রেখা সরেন বলেন, “সমস্যার কথা আগাম ভেবেই খাদ্যমন্ত্রীকে জানিয়ে ছিলাম ঝাড়গ্রামের জন্য ১ লক্ষ স্পেশাল বিপিএল ডিজিটাল কার্ডের যেন ব্যবস্থা করা হয়। কেন না সবাই হয়তো ডিজিটাল কার্ড পেলেন না। তাতে আগের মতো সামগ্রী পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবেন। তাড়াহুড়োর সময় কিছু প্রকৃত বিপিএল প্রাপক আওতা থেকে বাদ পড়েছেন। ডিজিটাল কার্ডের ব্যাপারে খবর এসেছে। জেলা শাসকের সঙ্গে বসে তাঁকে সমস্যার কথা জানাব”।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন