Ilsha Fish
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: ৭টি ট্রাকে করে প্রায় ১২০০ টন খোকা ইলিশ মাটিতে পুঁতে দেওয়ার জন্য নিয়ে আসেন মৎস্যজীবীরা। কিন্তু কাকদ্বীপ মৎস্যবন্দরের কাছে হারউড পয়েন্ট থানার সেই ঘটনা চাউর হয়ে যেতেই পুলিশের বাধা না মেনে স্থানীয় মানুষ লুটপাট চালায় সেই ট্রাকে। আট নাম্বার লটের কাছে মঙ্গলবারের এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায় গোটা এলাকা জুড়ে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী ৫০০ গ্রামের কম ওজনের ইলিশ ধরা বেআইনি। কিন্তু আটক ট্রাকগুলিতে থাকা ইলিশের ওজন ১৫০-২৫০ গ্রাম। তবে এমন নির্দেশকে তোয়াক্কা না করেই ছোটো বা খোকা ইলিশ ধরার কাজ সমানে চলছে। মূলত রাজ্যে ইলিশের ফলন বাড়াতেই প্ৰশাসনিক ভাবে কড়া নির্দেশ জারি করা হয়েছিল। পাশাপাশি চলে নজরদারিও। তারই ফাঁকফোঁকর গলে চলছে এই বেআইনি কাজ। গত সোমবার রাতে পুলিশ খবর পায় এমনই খোকা ইলিশ বোঝাই সাতটি ট্রাক ফ্রেজারগঞ্জের দিক থেকে কাকদ্বীপ বাজারে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তৎক্ষণাৎ পুলিশি উদ্যোগে ট্রাকগুলিকে আটক করা হয়।


পড়তে পারেন: কোটিপতি হওয়ার পাঁচটি চিহ্ন, দেখুন আপনার জীবনে আছে কি না

জানা গিয়েছে, এ দিন সকালে সেই ট্রাক বোঝাই খোকা ইলিশগুলিকে মাটিতে পুঁতে দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়। আট নাম্বার লটের কাছে একটি ফাঁকা জমিতে সারি দিয়ে দাঁড় করানো হয় খোকা ইলিশ বোঝাই ট্রাকগুলিকে। কিন্তু সেই খবর ছড়িয়ে পড়তেই বিনে পয়সার ইলিশের স্বাদ নেওয়ার চেষ্টায় স্থানীয় মানুষ কার্যত লুঠপাট চালান ওই ট্রাকগুলিতে। যার জেরে ইলিশগুলিকে মাটিতে পুঁতে দেওয়ার পরিকল্পনাও ভেস্তে যায় বলে জানা গিয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন