kolkata high court
প্রতীকী ছবি

কলকাতা: ২০১৫-এর টেট পরীক্ষায় ভুল প্রশ্নের উত্তর লিখলে দিতে হবে পুরো নম্বরই। বুধবার এমনই নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট। মেধাতালিকাও নতুন করে প্রকাশ করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। হাইকোর্টের এই রায়ে অস্বস্তিতে পশ্চিমবঙ্গ মধ্যশিক্ষা পর্ষদ।

২০১৪ সালের টেট পরীক্ষা হয়েছিল ২০১৫-তে। পরীক্ষায় বসেছিলেন ২৩ লক্ষ চাকরি প্রার্থী। ১১টি প্রশ্নকে ঘিরে বিতর্ক তৈরি হয়। কয়েকশো চাকরিপ্রার্থী হাইকোর্টে মামলা করে। অভিযোগ জানায়, যে প্রশ্নপত্র তৈরি করা হয়েছিল তাঁর মধ্যে ১১টি প্রশ্নের ভুল উত্তর দেওয়া ছিল।

আরও পড়ুন নিয়ন্ত্রণে মেডিক্যালের আগুন, নষ্ট প্রচুর জীবনদায়ী ওষুধ

হাইকোর্ট এ দিন জানিয়েছে, সেই ১১টি প্রশ্নের মধ্যে অন্তত ৭টি প্রশ্ন আংশিক বা সম্পূর্ণরূপে ভুল। এই সাতটি প্রশ্নের সঠিক উত্তর কী হবে তা-ও ঠিক করে দিয়েছে আদালতের গঠন করা শিক্ষকদের কমিটি। আদালত জানিয়ে দিয়েছে, ওই সাতটি প্রশ্ন যাঁরা যাঁরা উত্তর দিয়েছেন তাঁদের সবাইকে পূর্ণ নম্বর দিতে হবে। ফলে নতুন করে মেধাতালিকা তৈরি করাও যে প্রয়োজন সেটাও জানিয়ে দিয়েছে আদালত। শুধু তা-ই নয়, এই সাতটি প্রশ্নের নম্বর পাওয়ার পর যদি পরীক্ষার্থীরা টেটে উত্তীর্ণ হয় তা হলে তাদের নিয়োগপত্রও দিতে হবে।

উল্লেখ্য, সংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলিত উত্তর সঠিক কিনা, তা জানার জন্য এর আগের শুনানিতেই বিশিষ্ট অধ্যাপকদের নিয়ে কমিটি তৈরি করেছিল আদালত।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন