সংঘর্ষের সময়ে

ইসলামপুর: ইসলামপুরের দাঁড়িভিট হাইস্কুলে ছাত্র আন্দোলনের ঘটনায় মৃত্যু হল আরও এক প্রাক্তন ছাত্রের। মৃতের নাম তাপস বর্মণ। শুক্রবার সকালে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে মৃত্যু হয় তাঁর। গতকাল আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাপস বর্মনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

মৃতের বাবা দাবি করেছেন, পুলিশের গুলিতেই মৃত্যু হয়েছে তাঁর ছেলে তাপসের। যদিও গুলি চালানোর কথা অস্বীকার করে পুলিশ। শিক্ষক নিয়োগকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে ইসলামপুরের দাঁড়িভিট হাইস্কুল। ঘটনাস্থলেই গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হয় রাজেশ সরকার নামে এক প্রাক্তনীর।

এ দিকে বৃহস্পতিবারের ঘটনার প্রতিবাদে উত্তর দিনাজপুরে বারো ঘণ্টা বন্‌ধের ডাক দিয়েছে বিজেপি। সকাল ৬টা থেকে বন্‌ধ শুরু হয়েছে। রায়গঞ্জ-সহ বিভিন্ন এলাকায় বন্‌ধের মিশ্র প্রভাব পড়েছে। বন্‌ধ উপেক্ষা করে চলাচল করায় আজ সকালে রায়গঞ্জ শহরের কসবা এলাকায় একটি সরকারি বাসে ভাঙচুর করার অভিযোগ উঠেছে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের বিরুদ্ধে। রায়গঞ্জ থানার রূপাহার এলাকায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কেও একটি সরকারি বাসে ভাঙচুর করা হয়।

আরও পড়ুন আয়লা, ফাইলিন, হুডহুড, দায়ে… জানেন কি, কীভাবে নামকরণ হয় ঘূর্ণিঝড়গুলির?

ইসলামপুরের ঘটনাকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে দেখছে রাজ্য শিক্ষা দফতরও। এই ঘটনায় কড়া পদক্ষেপ করেছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবারই সাসপেন্ড করা হয়েছে ডিআই রবীন্দ্র মণ্ডলকে। পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, শিক্ষা দফতরকে সম্পূর্ণ অন্ধকারে রেখেই এই নিয়োগের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। তবে অশান্তির পেছনে বিজেপি-আরএসএসের হাত রয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন