Adhir Ranjan Chowdhury
ফাইল ছবি।

কলকাতা: “নাগরিকপঞ্জি নিয়ে রাজনীতির বাজার গরম করা হচ্ছে। সাধারণ মানুষের কাছে বিজেপির তুলে ধরা বক্তব্যের সঙ্গে সেই কারণেই কোনো মিল নেই কেন্দ্রের তরফে সুপ্রিম কোর্টকে সামনে রেখে পেশ করা বক্তব্যের”। শনিবার পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশ কংগ্রেসের সদর কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে এমনটাই দাবি করলেন প্রদেশ সভাপতি অধীররঞ্জন চৌধুরী।

এ দিনই কলকাতার মেয়ো রোডে সভা করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। তিনি ওই মঞ্চ থেকে জাতীয় কংগ্রেস এবং তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেন, “কেন্দ্রের নাগরিকপঞ্জি কর্মসূচি কোনো ভাবেই আটকাতে পারবেন না রাহুল গান্ধী, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়রা”।

যদিও অমিত শাহের এই হুমকিকে দূষিত রাজনীতির ফল হিসাবেই দেখছেন অধীরবাবু। তিনি বলেন, আগামী লোকসভা ভোটের আগে নাগিরকপঞ্জি নিয়ে রাজনীতির বাজার গরম করে ফায়দা লোটার চেষ্টা চলছে। নাগরিকপঞ্জি তৈরির ক্ষেত্রে সুপ্রিম কোর্টে কাছে কেন্দ্র এটা একটা খসড়া তালিকা। আবার বিজেপি নেতারা হুমকির সুরে বলছেন, সমস্ত অনুপ্রবেশকারীকে ভারত থেকে তাড়াব। কেন্দ্রের কংগ্রেসি সরকারের আমলেও নাগরিকপঞ্জি তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। যে কারণে অসমে এখন আর আগের মতো বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি নেই।

আরও পড়ুন: যৌন কেচ্ছায় জড়িয়ে এফআইআরে নাম উঠল তিন বিধায়কের

আগামী লোকসভা ভোট প্রসঙ্গে অধীরবাবু বলেন, “এক জন (মমতা) বলছেন, ৪২টা আসন পাবে তৃণমূল। আর অন্য জন (অমিত শাহ) বলছেন তাঁরা ২২টা আসন পাবেন। পশ্চিমবঙ্গের মোট ৪২টা থেকে কীভাবে ৬৪টা আসন ওঁরা দখল করবেন? আর আমরাই বা কোথায় যাব”?

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন