সবিতা চৌধুরীকে শেষ শ্রদ্ধা কলকাতার মেয়রের। ছবি:রাজীব বসু

কলকাতা: প্রয়াত সংগীতশিল্পী সবিতা চৌধুরী। বয়স হয়েছিল ৭২ বছর। বুধবার রাত দু’টো নাগাদ বাড়িতেই মারা যান তিনি।

জানুয়ারি মাসে ফুসফুস ও থাইরয়েডের ক্যানসার ধরা পড়ে তাঁর। চিকিৎসার জন্য তাঁকে প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় মুম্বই। মে মাসে শিল্পীকে কলকাতায় তাঁর বাড়িতে আনা হয়। তার পর সবিতাদেবীর ইচ্ছাতেই বাড়িতে চলছিল তাঁর চিকিৎসা।

সলিল চৌধুরীর স্ত্রী হিসাবে নয়, সংগীতজগতে নিজের আলাদা পরিচয় তৈরি করেছিলেন সবিতা। বাংলার বাইরে বড়ো হয়ে ওঠা তাঁর, তাই বাংলায় কথাবার্তা বলে পারলেও ভাষাটা তেমন ভাবে জানতেন না।

আলাপচারিতায় সবিতা চৌধুরী জানিয়েছিলেন, আগে তিনি বাংলা গান হিন্দিতে লিখে গাইতেন। কিন্তু যখনই রেকর্ডিং থাকত তখনই ফাঁপরে পড়তেন তিনি। কারণ, তাঁর গান ঠিক হত সবার শেষে। যখন স্টুডিয়োয় যেতেন, দেখতেন সলিল চৌধুরী হারমোনিয়াম নিয়ে বসে গান ঠিক করছেন। স্টুডিয়োয় বসে গানের সুর পেতেন, কথা পেতেন। তাই বাধ্য হয়ে তাঁকে বাংলাটা শিখতে হল। বাংলা শিখিয়েছিলেন সলিল চৌধুরী।

রান্না ভালো জানতেন না সবিতাদেবী। সেটাও শিখেছিলেন সলিল চৌধুরী কাছে। তিনি জানিয়েছিলেন, সলিল চৌধুরী বলতেন, ভালো শিল্পী হতে গেলে ভালো রান্না জানতে হবে।

সবিতা চৌধুরীর গাওয়া কয়েকটি আধুনিক গান কয়েক দশক ধরে জনপ্রিয় ছিল। বাংলা এবং হিন্দি ছবিতে তিনি প্লে-ব্যাক গায়িকার কাজ করেছন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন