প্রতীকী ছবি

কলকাতা: গোটা রাজ্য, বিশেষত কলকাতায় ভূগর্ভস্থ জলের অপচয় আটকাতে আইন আনার চিন্তাভাবনা শুরু করে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। ইতিমধ্যেই রাজ্যের ৩৪১টি ব্লকে ভূগর্ভস্থ জলের পরিস্থিতি নিয়ে রিপোর্ট তৈরি করার অনুরোধ করা হয়েছে জলসম্পদ উন্নয়ন দফতরকে।

কৃষি এবং শিল্পের কাজে ব্যবহার করা ছাড়াও পানীয় জলের কাজেও ব্যবহার করা হয় এই জলকে। কিন্তু সমস্যা তৈরি হয়েছে নলকূপ খোঁড়ার কাজে বিশেষ নজরদারি না হওয়ায়। জলসম্পদ দফতরের এক আধিকারিক বলেন, “মূলত পানীয়ের কাজেই ব্যবহার করা উচিত এই জল। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গে কৃষি এবং শিল্পের কাজেও তা ব্যবহার করা হয়। পাশাপাশি কলকাতায় বেআইনি ভাবে নলকূপ খোঁড়া হচ্ছে। এর ফলে কমছে জলস্তর। এটা বন্ধ করার জন্যই পদক্ষেপ করছে রাজ্য সরকার।”

কেন্দ্রীয় ভূগর্ভস্থ জল বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী গত কুড়ি বছরে মধ্য কলকাতায় জলস্তর ৫ মিটার থেকে কমে হয়েছে ১৬ মিটার। অর্থাৎ, কুড়ি বছর আগে যখন পাঁচ মিটার খুঁড়লেই জল পাওয়া যেত, এখন সেটা খুঁড়তে হচ্ছে অন্তত ১৬ মিটার। আলিপুর, বালিগঞ্জ, কালীঘাট, পার্কসার্কাস এলাকায় জলস্তর রয়েছে ১৪ থেকে ১৬ মিটার। তুলনায় গড়িয়া অঞ্চলে অবস্থা কিছুটা ভালো। সেখানে ৮ থেকে ১০ মিটারের মধ্যে জল পাওয়া যাচ্ছে।

আরও পড়ুন ভবিষ্যতে ভয়াবহ তাপপ্রবাহের কবলে পড়তে পারে কলকাতা, জানাল রিপোর্ট

২০১৩-এর হিসেব অনুযায়ী রাজ্যের ৩৪১টা ব্লকের মধ্যে হুগলির গোঘাট ব্লকে ভূগর্ভস্থ জলের অবস্থা সব থেকে ভয়াবহ। ৫৩টা ব্লকে জলস্তর অবস্থা তুলনায় কিছুটা ভালো। বাকি ব্লকগুলিতে জলস্তর ভালো। কিন্তু আধিকারিকদের মতে গত পাঁচ বছরে জলস্তর আরও কমেছে এবং নতুন করে সমীক্ষা করা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

নতুন যে আইন আনা হবে, তার মধ্যে দিয়ে শুধু ভূগর্ভস্থ জল তোলার ওপরে নিয়ন্ত্রণই করা হবে না, তেমন বুঝলে তা বন্ধও করে দেওয়া হতে পারে। এক আধিকারিক বলেন, “আমরা যদি মনে করি যে কথাও ভূগর্ভস্থ জল তোলা বন্ধ করা দরকার। আমরা সেটাই করব।”

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন