কলকাতা: মাধ্যমিক পরীক্ষা চলাকালীন ক্লাসে নজরদারি দেওয়ার সময় গল্পগুজব করতে পারবেন না শিক্ষকরা। এমনই নির্দেশিকা জারি করল মধ্যশিক্ষা পর্ষদ।

বুধবার জারি করা নির্দেশিকায় আরও জানানো হয়েছে, শুধুমাত্র গল্প করাই নয়, পরীক্ষার হলে খবরের কাগজও পড়া চলবে না শিক্ষকদের। ব্যবহার করতে পারবেন না মোবাইল ফোন। ২২ ফেব্রুয়ারি শুরু হবে এ বছরের মাধ্যমিক পরীক্ষা। চলবে ৩ মার্চ পর্যন্ত। পরীক্ষার এই কয়েক দিন শিক্ষকরা ছুটিও নিতে পারবেন না।

মাধ্যমিক পরীক্ষা চলাকালীন পরীক্ষার্থীদের মধ্যে টোকাটুকির প্রবণতা যে ক্রমশ বেড়ে চলেছে, সেটা কমানোর জন্যই এমন ব্যবস্থা নিয়েছে পর্ষদ। তাদের মতে, এর ফলে পরীক্ষকরা সব সময় পরীক্ষার্থীদের নজরে রাখবেন, তার ফলে কমতে পারে টোকাটুকির প্রবণতা। পর্ষদ সচিব নবনীতা চট্টোপাধ্যায় বলেন, “এ বছর নতুন ধাঁচে পরীক্ষা, তাই টোকাটুকির সম্ভাবনা বেশি থাকতে পারে। সেই জন্যই এ রকম কড়া পদক্ষেপ নিতে হয়েছে।” তিনি নিজে পরীক্ষার হলে গিয়ে পরিদর্শন করবেন বলে জানান নবনীতাদেবী। উল্লেখ্য, সর্বভারতীয় স্তরের পরীক্ষার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে এ বার পরীক্ষার ধাঁচ পালটে ফেলছে পর্ষদ। বেশির ভাগ প্রশ্নই থাকবে এমসিকিউ আকারে।

তবে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা খুব একটা আশাব্যঞ্জক নয়। গত বছরের তুলনায় এ বার পরীক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে প্রায় পঁচাত্তর হাজার। এ বার পরীক্ষা দেবেন ১০ লক্ষ ৭২ হাজার পরীক্ষার্থী। শিক্ষকমহলের একাংশের ধারণা, রাজ্য জুড়ে সিবিএসই এবং আইসিএসই বোর্ডে পড়াশোনার প্রবণতা বাড়ছে, তাই এ বার পরীক্ষার সংখ্যা এত কমে গিয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন