extreme heat in bengal
ফাইল ছবি।

ওয়েবডেস্ক: একেই বলে পচা ভাদ্রের গরম। ভোরের দিকটা কিছুটা মনোরম আবহাওয়া। তার পর বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই বাড়ছে পারদ। সেই সঙ্গে পাল্লা দিচ্ছে দুঃসহ আর্দ্রতা। বৃষ্টি একদমই নামমাত্র। সব মিলিয়ে মে মাসের ছোঁয়া এই মধ্য সেপ্টেম্বরে।

দিন পনেরো হয়ে গেল টানা বৃষ্টি উধাও হয়ে গিয়েছে দক্ষিণবঙ্গ থেকে। এর ফলে পাল্লা দিয়ে দক্ষিণবঙ্গে বাড়ছে বৃষ্টির ঘাটতি। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় এই পরিস্থিতি থেকে রেহাই পাওয়ার বিশেষ সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর। তবে বুধবারের পরে বড়োসড়ো রেহাই পেতে পারেন দক্ষিণবঙ্গের মানুষ।

নিম্নচাপ এবং মৌসুমি অক্ষরেখার অভাবে দক্ষিণবঙ্গে বর্ষা ক্রমে দুর্বল হয়ে গিয়েছে। এর ফলেই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে তাপমাত্রা। কলকাতা এবং তার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে পারদ উঠে গিয়েছে ৩৫ ডিগ্রিতে। পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলিতে পারদ ছাড়িয়েছে ৩৬। এই তাপটাকে কাজে লাগিয়ে টুকটাক বৃষ্টি হচ্ছে বটে, কিন্তু তা থেকে স্বস্তি বিশেষ মিলছে না।

সোমবার থেকে পরিস্থিতি আরও কিছুটা খারাপ হতে পারে বলে জানিয়েছে বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমা। তবে এর নেপথ্যে রয়েছে আসন্ন একটি নিম্নচাপ। বুধবার নাগাদ অন্ধ্র-ওড়িশা উপকূল ঘেঁষে বঙ্গোপসাগরে তৈরি হতে পারে ওই নিম্নচাপ। এই মুহূর্তে সেইখানে একটি ঘূর্ণাবর্ত রয়েছে। সেই ঘূর্ণাবর্তের প্রভাবে দক্ষিণবঙ্গের বায়ুমণ্ডলে থাকা সব জলীয় বাস্প চলে যাচ্ছে। ফলে সোমবার সকাল থেকে দক্ষিণবঙ্গে বইতে শুরু করেছে শুকনো উত্তুরে হাওয়া। সোমবার এবং মঙ্গলবার উত্তুরে হাওয়ার প্রভাব থাকবে দক্ষিণবঙ্গে। তবে এই নিম্নচাপটি তৈরি হয়ে গেলেই উত্তুরে হাওয়ার জায়গা করে নেবে পুবালি শীতল বাতাস। কমতে শুরু করবে পারদ।

আরও পড়ুন ইসরোর রকেটে মহাকাশে গেল দুটি ব্রিটিশ উপগ্রহ

বেশ কিছু বিদেশি আবহাওয়া সংস্থা জানাচ্ছে, বৃহস্পতিবার এবং শুক্রবার দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জায়গার সর্বোচ্চ পারদ নেমে আসতে পারে ২৯-৩০ ডিগ্রির আশেপাশে।

কিন্তু কেমন বৃষ্টি হবে এই নিম্নচাপের প্রভাবে?

বৃষ্টি নিয়ে এখনই কিছু পাকা পূর্বাভাস দিতে চাইছেন না ওয়েদার আল্টিমার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কা। কারণ এ বছর তৈরি হওয়া সব নিম্নচাপই আবহাওয়া বিশেষজ্ঞদের ঘোল খাইয়েছে। তবে প্রাথমিক ভাবে তিনি মনে করছেন বৃহস্পতি এবং শুক্রবার রাজ্যের উপকূলবর্তী এবং পশ্চিমাঞ্চলে ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে ভারী বৃষ্টি হতে পারে। কলকাতা এবং দক্ষিণবঙ্গের বাকি অঞ্চলের জন্য দফায় দফায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়ে রেখেছেন তিনি।

আপাতত এই নিম্নচাপেই ভরসা দক্ষিণবঙ্গের।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন