thiefs offer puja in tarakeshwar
ধৃত দীনজন। নিজস্ব চিত্র

কলকাতা: চুরি করে যাতে ধরা না পড়ে, তার জন্য চুরির পরেই তারকেশ্বর পাড়ি দিয়েছিল তিনজন। বেশ খরচা করে পুজোও দেয় তারা। কিন্তু শেষ রক্ষা হল না। ওই তিন জন ঘুণাক্ষরেও ভাবতে পারেনি, পুলিশ ওঁত পেতে বসে রয়েছে। বাড়ি ফিরতেই পুলিশের জালে ধরা পড়ে গেল তারা।

সার্ভে পার্ক থানা এলাকার সন্তোষপুর বটতলা এলাকায় সোনার গয়নার দোকান শিল্পশ্রী। ৩১ জুলাই রাত সওয়া দশটা নাগাদ দোকানের মালিক রাজেশ পাল দোকানের শাটার নামিয়ে প্রথামাফিক কাগজে আগুন জ্বালিয়ে দোকান বন্ধ করছিলেন। তাঁর পাশেই ছিল একটা ব্যাগ যার মধ্যে ছিল প্রায় ১৩৫ গ্রাম সোনা এবং নগদ ১ লক্ষ টাকা

আরও পড়ুন বিজেপি বিধায়কদের হাত থেকে বাঁচাতে হবে দেশের মেয়েদের: রাহুল গান্ধী

দোকান বন্ধ করার সময় হঠাৎ এক যুবক তাঁর পাশ থেকে ব্যাগটি তুলে নিয়ে দৌড় দেয়। পেছন থেকে আসছিল একটি বাইক। যুবকটি তখন সেই বাইকে চড়ে অজয়নগরের দিকে চম্পট দেয়।

রাজেশবাবুর অভিযোগ পেয়ে তদন্ত শুরু করে সার্ভে পার্ক থানার পুলিশ। এক তদন্তকারী অফিসার বলেন, “প্রথমেই আমরা প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করি।” সেখানে দেখা যায়, প্রথমে দু’জন যুবক সেই দোকানের উলটো দিকের ফুটপাথে এসে দাঁড়ায়। তার পর রাজেশবাবু, দোকানের শাটার নামাতেই এক যুবক রাস্তা পেরিয়ে রাজেশের কাছে চলে আসে। ততক্ষণে সুকান্ত সেতুর দিক থেকে এসে দাঁড়ায় একটি বাইক। ব্যাগ নিয়ে যুবকটি সেই বাইকে উঠে পড়ে। সিসি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায়, যে বাইকে ওরা পালায়, সেই বাইকের সামনের একটা অংশ ভাঙা।

অন্য এক তদন্তকারী বলেন, “তার পরেই আমরা জানতে পারি, রাজেশেবাবুর মোবাইলও ওই ব্যাগে ছিল। সেই মোবাইলের শেষ টাওয়ার সার্ভে পার্ক থানা এলাকার নিতাইনগরের। সেই সূত্র ধরে খোঁজ চালাতে গিয়ে প্রথম বাইকের মালিকের হদিশ পাওয়া যায়। কিন্তু সে সেই সময়ে বাড়ি ছিল না। জানা যায়, সে তারকেশ্বরে গিয়েছে পুজো দিতে।”

আরও পড়ুন দুর্যোগের স্মৃতি কাটিয়ে ক্রমশ স্বাভাবিকের পথে বাঁকুড়া

সেখান থেকেই তার ওপর নজরদারি শুরু হয়। সোমবার রাতে ট্রেনে হাওড়া নেমে বাড়ি ফিরতেই পুলিশ তাকে পাকড়াও করে। তার সঙ্গেই ছিল বাকি দু’জন। তিন জনকে পাকড়াও করে জানা যায়, নগদ টাকা দিয়ে প্রথমেই তারা দুটো মোটরবাইক কেনে। তার পর তারা তারকেশ্বরে পাড়ি দেয়। রীতিমতো মানত করে আসে, যদি তারা ধরা না পড়ে তা হলে ফের পুজো দিতে যাবে।

আরও পড়ুন প্রতিদ্বন্দ্বীর থেকে ২৫ লক্ষ টাকা মূল্যের পরচুলা হাতিয়ে পুলিশের জালে দুই ব্যক্তি

ধৃত বিষ্ণু সর্দার, সুমন দে এবং রঞ্জন দাস সার্ভে পার্ক এলাকারই বাসিন্দা। তাদের কাছ থেকে চোরাই সোনা পুরোটাই উদ্ধার হয়েছে। ওই এলাকাতে গত ন’মাসে একই রকম চুরির আরও তিনটি ঘটনা ঘটেছে। পুলিশের ধারণা এই গ্যাং সব ক’টি ঘটনার পেছনে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন