বয়ে যাচ্ছে টর্নাডো। ছবি: ভিডিও থেকে

খড়গপুর: ঘূর্ণিঝড় তিতলি দুর্বল হয়ে অতি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হলেও, তার রোষ থেকে বাঁচতে পারল না খড়গপুর, ঝাড়গ্রাম এলাকা। ঝাড়গ্রাম তো সকালেই বিপর্যস্ত হয়েছিল, দুপুরের দিকে টর্নাডো বয়ে গেল খড়গপুরে। এর জেরে কার্যত লণ্ডভণ্ড হয়ে গেল খড়গপুরের একাংশ। মৃত্যু হল এক জনের। আহত হলেন তিন জন।

শুক্রবার সকাল থেকেই ঝড়বৃষ্টি শুরু হয়েছিল। কিন্তু বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই বয়ে যায় এই টর্নাডো। টর্নাডোটি ধরা পড়েছে একটি ভিডিও-এ।

তিতলির প্রভাবে হঠাৎ করে এই টর্নাডো বয়ে যাওয়ার কারণ কী?

এর পেছনে গরম এবং ঠান্ডা হাওয়ার সংমিশ্রণকে দায়ী করেছেন বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কা। তিনি বলেন, “খড়গপুরে পশ্চিমাঞ্চলের প্রভাব থাকে বলে সকালের দিকে ঠান্ডা ব্যাপার থাকে। এর সঙ্গে যোগ হয়েছে তিতলির প্রভাবে জলীয় বাস্পে ভরা গরম বাতাস। এর প্রভাবেই এই টর্নাডো তৈরি হয়।”

এই টর্নাডো একদমই স্থানীয় ভাবে হয় বলে জানিয়েছেন তিনি। ফলে যেখান দিয়ে এই ঝড় বয়ে যাবে সেই জায়গাকে এক্কেবারে লণ্ডভণ্ড করে দেবে বলে জানান তিনি। দেখুন ভিডিওটি।

(ঘূর্ণিঝড় তিতলির ব্যাপারে সর্বশেষ পরিস্থিতি জানার জন্য ক্লিক করুন এখানে)

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন