howrah south eastern rail
সোমবার রাতের হাওড়া স্টেশন। ছবি: ফেসবুক

কলকাতা: সোমবার গভীর রাতে আদিবাসী সংগঠনের ডাকা অবরোধ তুলে নেওয়া হলেও এখনও স্বাভাবিক হয়নি দক্ষিণপূর্ব  রেলের পরিষেবা। মঙ্গলবারও কিছু ট্রেন বাতিল করার ঘোষণা করেছে রেল।

সোমবার সকাল থেকে শুরু হয়েছিল রেল অবরোধ। এই অবরোধের ফলে দক্ষিণপূর্ব রেল অধিকাংশ ট্রেন বাতিল করতে বাধ্য হয়। এর ফলে চরম হয়রানির শিকার হন যাত্রীরা। তবে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে সোমবার গভীর রাতে অবরোধ উঠে যায়। কিন্তু অবরোধ উঠলেও এখনও স্বাভাবিক হয়নি ট্রেন পরিষেবা।

দক্ষিণপূর্ব রেলের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, ডাউনের গাড়ি না এসে পৌঁছোনোয় মঙ্গলবার সকালের সেকন্দেরাবাদগামী ফালুকনামা এক্সপ্রেস বাতিল করা হয়েছে। ঠিক একই কারণে বাতিল হয়েছে হাওড়া-যশবন্তপুর দুরন্ত এক্সপ্রেসও। কিছু কিছু ট্রেন মঙ্গলবার খড়গপুর থেকে ছেড়েছে। এদের মধ্যে রয়েছে ধৌলি এক্সপ্রেস, রূপসী বাংলা এক্সপ্রেস, লালমাটি এক্সপ্রেস, বারবিল জনশতাব্দী এক্সপ্রেস।

আরও পড়ুন দেওয়া হল না রেলের পরীক্ষা, আদিবাসী সংগঠনের অবরোধের জেরে পুরুলিয়া জেলা জুড়ে দুর্ভোগ

এই রেল অবরোধের জেরে সোমবার রাতে যাত্রী বিক্ষোভ হয় হাওড়ায়। খড়গপুর-মেদিনীপুর-বাঁকুড়া-পুরুলিয়ায় নিজেদের বাড়িতে পৌছোতে চূড়ান্ত হয়রানির শিকার হয়েছেন মানুষজন। তেমনই একজন মেদিনীপুরের রূপম চট্টোপাধ্যায়। উত্তরবঙ্গ থেকে সোমবার সকালে কলকাতায় পৌঁছোন তিনি। ভেবেছিলেন, দুপুরের মধ্যেই বাড়ি পৌঁছে যাবেন। কিন্তু সেটা হয়নি। রূপমবাবুর কথায়, “পাঁচ ঘণ্টা হাওড়ায় অপেক্ষা করার পরেও মেদিনীপুরের ট্রেন পাইনি। কোনো উপায় না দেখে পাঁশকুড়া লোকালে পাঁশকুড়া পৌঁছোই। সেখানেই ঘণ্টা চারেক অপেক্ষা করে একটা টোটো নিয়ে অবরোধের জায়গায় পৌঁছোই। তার পর প্রায় এক কিলোমিটার রাস্তা হেঁটে অবরোধের জায়গাটি পার হই। তার পর গাড়ি করে মেদিনীপুর এসে বাড়িতে ঢুকি। সব মিলিয়ে কলকাতা থেকে মেদিনীপুর যেতে লাগল ১৪ ঘণ্টা।”

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন