drowned in damodar
চলছে তল্লাশি। নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাঁকুড়া: পুণ্য অর্জন করতে গিয়ে প্রাণ গেল দুই ছাত্রের। দামোদরের জলে তলিয়ে গেল তারা। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার সকালে বাঁকুড়ার সোনামুখীর দামোদরের রাঙামাটি ঘাটে। এক জনের দেহ  উদ্ধার করা গেলেও এখনও অন্য জনের দেহ উদ্ধার হয়নি।

শিবের মাথায় জল ঢালার উদ্দেশ্যে স্থানীয়দের সঙ্গে সোনামুখীর শিরোমণিপুর গ্রামের, ধুলাই স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র মন কর্মকার ও সাহাপুরের একাদশ শ্রেণির ছাত্র বিদ্যুৎ ঘোষ দামোদরের ওই ঘাটে জল আনতে গিয়েছিল। অসাবধানতার ফলে দামোদরের জলে তলিয়ে যায় তারা। মন কর্মকারের নিথর দেহ উদ্ধার করেন স্থানীয় মৎস্যজীবীরা তবে বিদ্যুৎ ঘোষের দেহের খোঁজ এখনো মেলেনি।

স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রতি বছর এই সময়ে হাজার হাজার মানুষ  দামোদরের এই ঘাটে জল নিতে আসে কিন্ত পুলিশের পক্ষ থেকে কোনো  নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয় না। সেই সঙ্গে দিনের পর দিন অবৈধ ভাবে মেশিনের সাহায্যে রাঙামাটি ঘাট থেকে বালি তোলার জন্য  প্রায় ৮০ ফুট গভীর গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এই ব্যাপারে প্রসাশনের হস্তক্ষেপ দাবি করেছে তারা। ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে সোনামুখী থানার পুলিশ। নিখোঁজ বিদ্যুৎ ঘোষের দেহের খোঁজে তল্লাশি চলছে।বিষ্ণুপুরের মহকুমাশাসক মানস মণ্ডল বলেন, “খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাই, দুই ছাত্রের দেহ উদ্ধার করা হয়েছে।” বালি তোলার ফলে যে গভীর গর্তের সৃষ্টি হয়েছে, প্রশাসনের পক্ষ থেকে সেই জায়গা গুলো চিহ্নিত করা হবে বলেও জানান মানসবাবু।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন