floating-solar-power-plant
প্রতীকী ছবি

কলকাতা: বিভিন্ন জেলাগুলিতে ভাসমান সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র গড়তে উদ্যোগী হল রাজ্য সরকার। গত শনিবার পশ্চিমবঙ্গ বিদ্যুৎ পর্ষদের আধিকারিকদের সংগঠন এবং বণিকসভা ‘মার্চেন্টস চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ’ আয়োজিত একটি সভায় জানানো হয়, আপাতত পরীক্ষামূলক ভাবে মাত্র ৫ মেগাওয়াটের একটি ভাসমান সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। এর পর রাজ্যের আরও বেশ কয়েকটি জায়গায় একই রকমের সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র গড়ে তোলা হবে।

এ দিন বিদ্যুৎ দফতরের কমিশনার অনিন্দ্যনারায়ণ বিশ্বাস বলেন, “সাগরদিঘিতে পরীক্ষামূলক ভাবে উৎপাদন শুরুর পর তা সফল হলে পরবর্তীতে মুকুটমণিপুরে ১০০ মেগাওয়াটের একটি প্রকল্প নির্মাণ করা হবে। পাশাপাশি এলইডি আলো, বায়ুশক্তি থেকে বিদ্যুৎ তৈরির উপরেও জোর দেওয়া হচ্ছে”।

বর্তমানে সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনে পশ্চিমবঙ্গ অনেকটাই এগিয়েছে। বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় জানান, “২০১১ সালে পশ্চিমবঙ্গে যেখানে সরকারি ভাবে মাত্র ২ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হতো এখন তা  পৌঁছেছে ৭০ মেগাওয়াটে”। স্বাভাবিক ভাবেই এই উৎপাদন মাত্রাকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিদ্যুৎ দফতর।

এমনিতে জলাশয়ে সৌরবিদ্যুৎ প্রকল্প গড়ে তুললে বিবিধ দিক থেকে সুবিধা পাওয়া যায়। এই ধরনের প্রকল্পে সূর্যের তাপ থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য ব্যবহৃত পাতগুলিকে জলাশয়ের উপর ভাসমান অবস্থাতেই রাখা হয়। ফলে এর জন্য আলাদা করে জমির প্রয়োজন হয় না।


আরও পড়ুন: জয়নগরে জালে আটকে পড়ল বিরল প্রজাতির পেঁচা

কেন্দ্রীয় সরকারের মতোই সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদনে পৃথক প্রকল্প রয়েছে রাজ্য সরকারেরও। যেটির নাম ‘আলোশ্রী’। এই প্রকল্পে রাজ্যের সমস্ত সরকারি ভবনের ছাদে সৌর প্যানেল বসানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সেখান থেকে উৎপাদিত বিদ্যুতের সম্পূর্ণ অংশই কিনে নেবে রাজ্য বিদ্যুৎ দফতর।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন