locket chatterjee
লকেট চট্টোপাধ্যায়, ছবি ফেসবুক থেকে

কলকাতা: বছরের শুরুতে, জানুয়ারি মাসের শেষ সপ্তাহে বিজেপির মহিলা মোর্চার অবস্থান বিক্ষোভ চলে কলকাতার হেয়ার স্ট্রিট থানায়। একাধিক ইস্যুকে সামনে রেখে আয়োজিত ওই কর্মসূচি ঘিরেই বিতর্কের সৃষ্টি হয়। জানা যায়, কলকাতা পুলিশের হেয়ার স্ট্রিট থানার বিরুদ্ধে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ জানানো হয় ওই ডিভিশনের ডেপুটি কমিশনারের কাছে। অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ তদন্ত শুরু করে। ওই তদন্তেই স্পষ্ট হয়ে যায়, হেয়ার স্ট্রিট থানার পুলিশের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ নিয়ে আসা হয়েছে, তা ভিত্তিহীন। কী ঘটেছিল সে দিন?

রাজ্যে শান্তিশৃঙ্খলার অবনতির বিরুদ্ধে গত ২৯ জানুয়ারি প্রতিবাদ মিছিলের আয়োজন করে বিজেপির মহিলা মোর্চা। ওই মিছিলের নেতৃত্ব দেন লকেট। ডোরিনা ক্রসিংয়ে মিছিল পৌঁছালে পুলিশের সঙ্গে বচসা বাঁধে। সে দিন লকেট সংবাদ মাধ্যমের সামনে অভিযোগ করেন, ‘‘মাত্র দু’জন মহিলা পুলিশ ছাড়া সকলেই ছিল পুরুষ পুলিশ। বার বার বলেছি, আমি অসুস্থ, আমি শান্তিপূর্ণ মিছিল করতে চাই তবু ওঁরা কথা শোনেননি। গায়ের জোর দেখাতে শুরু করেন কয়েকজন। আমার শাড়ি ছিঁড়ে যায়। সুযোগ বুঝে কয়েকজন পুলিশকর্মী ইচ্ছাকৃত ভাবে আমার গোপনাঙ্গ স্পর্শ করে।’’ বিজেপিনেত্রীর এমন গুরুতর অভিযোগের পরই ঘটনার তদন্তে নামে পুলিশ।

মঙ্গলবার ব্যাঙ্কশাল কোর্টের ২০ নং মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ওই মামলার শুনানিতে লকেট-সহ তিন বিজেপি মহিলা নেত্রীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানার নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, কলকাতা পুলিসের সংশ্লিষ্ট থানা আগামী ৪ অক্টোবরের মধ্যে ওই আইনি পরোয়ানা যেন কার্যকর করে।

Locket Chaterjee
ঘটনার দিন লকেট। ছবি: বিজেপি

শুনানির পর লকেটের আইনজীবী কোনো মন্তব্য করেননি। তবে সরকার পক্ষের আইনজীবী বলেন, ঘটনার পর পুলিশ লকেটের বিরুদ্ধে স্বতপ্রণোদিত ভাবে ফৌজদারি মামলা দায়ের করে আদালতে। যথারীতি সেখানে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারীদের কাছে মিথ্যা তথ্য পেশের অভিযোগ নিয়ে আসা হয়। ওই মামলার প্রাথমিক শুনানির পর মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটে মামলাটি বিচারযোগ্য হিসাবে মান্যতা দিয়ে সেটিকে ২০ নম্বর মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে পাঠিয়ে দেন।

সেখানে মামলাটি পৌঁছানোর পর আদালতে অভিযুক্তদের শমন পাঠায়। কিন্তু একাধিক বার সমন পাঠানোর পরও তাঁরা আদালতে হাজিরা দেননি। অগত্যা, আদালত তাঁদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে। সূত্রের খবর, মহিলা মোর্চার এক নেত্রী আত্মসমর্পণ করায় আদালত তাঁকে জামিনে মুক্তি দিয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন