autum in kolkata
পুজোয় এরকম আকাশের দেখাই মিলবে।

ওয়েবডেস্ক: চড়া রোদ, প্রধানত পরিষ্কার আকাশ। এই দুইয়ের সুবাদে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে পারদ। তবে আর্দ্রতা কম থাকায় কিছুটা রক্ষে। প্রধানত শুকনো গরমই বজায় রয়েছে। এই পরিস্থিতির হাত ধরেই আগামী সপ্তাহের মধ্যে বিদায় নিতে পারে বর্ষা। কিন্তু মহালয়ার পরে ফের এক দফা বৃষ্টি শুরু হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে দক্ষিণবঙ্গে।

উত্তর ভারত থেকে বিদায় নিতে শুরু করেছে মৌসুমি বায়ু। ফলে সেখানে বাড়তে শুরু করেছে শুরু করে দিয়েছে তাপমাত্রা। সোমবার রাজস্থানের জয়সলমীরে পারদ উঠে গিয়েছিল ৪২ ডিগ্রি। এরই সরাসরি প্রভাব পড়েছে দক্ষিণবঙ্গে। মধ্য ভারত থেকে ধেয়ে আসা গরম হাওয়ার প্রভাবে সোমবার কলকাতার পারদ উঠেছিল ৩৬.৩ ডিগ্রিতে। দক্ষিণবঙ্গের বাকি অঞ্চলেও পারদ ঘোরাফেরা করেছে ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রির মধ্যে। মঙ্গলবারও এই পারদে বিশেষ হেরফের হবে না। কিন্তু এর মধ্যেও রোজই ভোরের দিকে ঠান্ডা ঠান্ডা অনুভূতি হচ্ছে। শুরু হয়েছে শিশির পড়াও।

বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমার মতে, মধ্য ভারতের ওপরে একটি ঘূর্ণাবর্তের প্রভাবে দক্ষিণবঙ্গে উত্তুরে হাওয়া বয়ে আসছে। এর জন্যই ভোরের দিকে কমছে তাপমাত্রা। আগামী দিন পাঁচেক এই আবহাওয়ার বিশেষ পরিবর্তনের সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছে এই আবহাওয়া সংস্থা। সংস্থার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কা বলেন, এ বার স্বাভাবিক দিন, অর্থাৎ ৮ অক্টোবরই দক্ষিণবঙ্গ থেকে বিদায় নিতে পারে বর্ষা।

আরও পড়ুন গান্ধীর জন্ম সার্ধশতবর্ষ পালনে বিশেষ পদক্ষেপ ভিক্টোরিয়া, জাদুঘরের

কিন্তু বর্ষা বিদায় নেওয়ার পরেই আবার এক দফা বৃষ্টি শুরু হয়ে যাওয়ার ইঙ্গিতও দিয়েছেন রবীন্দ্রবাবু। তাঁর কথায়, “উত্তর ভারতের দিকে ধেয়ে আসা একটি পশ্চিমী ঝঞ্ঝার প্রভাবে রাজ্যের ওপরে স্থানীয় ভাবে ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হতে পারে। এর প্রভাবে মহালয়ার পরের দিনগুলিতে বিক্ষিপ্ত ভাবে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে রাজ্যে।”

সুতরাং এখন শুকনো আবহাওয়া দেখে পুজোর আবহাওয়ার ব্যাপারে কিছু আন্দাজ করা একদমই উচিত নয়। আবহাওয়ার খামখেয়ালিপনা বলে কথা!

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন