work begins in bhangar for substation
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: গত দেড় বছরের অশান্তি এখন অতীত। মঙ্গলবার থেকে ভাঙড়ে কাজ শুরু হয়ে গেল বিদ্যুৎ সাবস্টেশনের।

পাওয়ার গ্রিড বিরোধী আন্দোলনকারী এবং সরকারের মধ্যে গত শনিবার আলোচনার পরে ভাঙড় নিয়ে জট কাটে।  আলিপুরে জেলা প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠকেই স্থির হয় কৃষকদের পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ দেওয়ার পরই ফের শুরু হবে প্রকল্পের কাজ। তবে পাওয়ার গ্রিড নয়, ভাঙড়ের নির্মীয়মান প্রকল্পটি ব্যবহার করা হবে আঞ্চলিক পাওয়ার স্টেশন হিসাবে। ক্ষতিপূরণ বাবদ গ্রামবাসীদের ১২ কোটি টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্তও হয়।

আরও পড়ুন সরকার নমনীয় হতেই জট কাটল ভাঙড়ে, তবে পাওয়ার গ্রিড নয়

মঙ্গলবার ভাঙড়ে দেখা যায়, পাওয়ার গ্রিডের কাছে পুলিশ, গ্রামবাসী এবং পাওয়ার গ্রিড কর্পোরেশনের লোকজন জড়ো হয়েছেন। সাবস্টেশনের ভূগর্ভস্থ তার নিয়ে যাওয়ার জন্য জমি জরিপের কাজ শুরু হয়েছে।

ভাঙড়ের জট কাটাতে রাজ্য সরকারের নমনীয় ভূমিকাও যে অনেকাংশে ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে তা অনস্বীকার্য। গত পঞ্চায়েত ভোটের আগে থেকেই ভাঙড় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। আন্দোলন ঠেকাতে পুলিশ-প্রশাসনের সঙ্গেই পথে নামতে হয় শাসক দল তৃণমূলকে। কিন্তু তৃণমূল নেতৃত্বের অংশগ্রহণে আরও জটিল হয়ে ওঠে ভাঙড়ের পরিস্থিতি। সৃষ্টি হয় মেরুকরণের। নির্দল প্রার্থী হিসাবে পঞ্চায়েতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জয়ী হন আন্দোলনকারী জমি জীবিকা কমিটির পাঁচ সদস্য।

আরও পড়ুন “মুখ বন্ধ করুন, না হলে…”, জেএনইউয়ের ছাত্রনেত্রীকে খুনের হুমকি

সব মিলিয়ে পরিস্থিতি আয়ত্তে আনতে বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি আন্দোলনকারী এবং স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বকে নিয়ে নবান্নে বৈঠকে বসেন। তার পরেই ধীরে ধীরে গলতে শুরু করে ভাঙড়ের বরফ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন