লখনউ: তিনি নিজে হিন্দু সংগঠন, ‘হিন্দু যুব বাহিনী’র নেতা, কিন্তু বিরুদ্ধাচরণ করলেন দেশের শীর্ষ হিন্দু সংগঠনকে। তিনি উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। এক দিকে যখন ইংরেজি শিক্ষার বিরুদ্ধে নানা রকম মন্তব্য করছে আরএসএসের বিভিন্ন শাখা সংগঠন, ঠিক তখনই তাদের উলটো পথে হেঁটে ইংরেজি শিক্ষার পক্ষে সওয়াল করলেন উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী। শুধু তা-ই নয়, সেই সঙ্গে রাজ্যের সমস্ত সরকারি স্কুলেই নার্সারি থেকে ইংরেজি পড়ানো শুরু করার কথা বলেন তিনি।

যোগীর মতে, উত্তরপ্রদেশে এমন শিক্ষাব্যবস্থা দরকার, যেখানে জাতীয়তাবাদের পাশাপাশি থাকবে আধুনিকতার ছোঁয়াও। স্থানীয় একটি সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময়ে তিনি বলেন, “রাজ্যের সব সরকারি স্কুলে নার্সারি থেকেই ইংরেজি শিক্ষা চালু করার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ইংরেজি পড়া শুরু করার জন্য ছাত্রছাত্রীদের এখন আর ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত অপেক্ষা করানোর কোনো মানে হয় না।”

এর পাশাপাশি আদিত্যনাথ বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থাকে উন্নত করার জন্য রাজ্যের শিক্ষা দফতরকে একটি পরিকল্পনা তৈরি করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। সেই সঙ্গে বেশি সংখ্যক ছেলেমেয়ে যাতে স্কুলমুখী হয়, টুকলি যাতে কমানো যায় এবং দশম শ্রেণিতে বিভিন্ন বিদেশি ভাষা চালু করার জন্যও নির্দেশ দিয়েছে উত্তর প্রদেশ সরকার। আদিত্যনাথের মতে, “এমন একটি শিক্ষাব্যবস্থা প্রয়োজন যেখানে ঐতিহ্য এবং আধুনিকতার মেলবন্ধন হবে।”

প্রসঙ্গত ইংরেজি শিক্ষার বিরুদ্ধে বেশ কয়েক বার মুখ খুলতে দেখা গিয়েছে আরএসএসের বিভিন্ন শাখা সংগঠনকে। গত বছর কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রককে একটি চিঠি দিয়ে আরএসএস-পন্থী সংগঠন ‘শিক্ষা সংস্কৃতি উত্থান ন্যাস’ জানিয়েছিল, দেশের শিক্ষাব্যবস্থা থেকে যাতে ক্রমে ক্রমে ইংরেজি তুলে নেওয়া হয়। এর পাশাপাশি আইআইটি এবং আইআইএমেও যাতে ইংরেজি তুলে নেওয়া হয়, সেই দাবি ছিল তাদের। এ বছরের গোড়ায় গোয়ায় স্থিত আরএসএসের আরও একটি শাখা সংগঠন রাজ্যের সমস্ত ইংরেজি মাধ্যম স্কুল থেকে অনুদান তুলে নেওয়ার জন্য কেন্দ্রের কাছে দাবি জানিয়েছিল। 

এখন প্রশ্ন হল যে ভাবে আরএসএসের বিরুদ্ধাচরণ করে ইংরেজি শিক্ষা চালু করার ব্যাপারে উদ্যোগী হলেন উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী, গোরক্ষা বাহিনীদের ঠেকাতে এ রকম উদ্যোগ নেবেন তো যোগী!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here