elephant

ওয়েবডেস্ক: হাতিরা স্বভাবের দিক থেকে আমুদে হয়- এমন একটা ধারণা প্রচলিত আছে মানুষের সমাজে। কিন্তু মানুষরা যাতে আমোদ পায়, তাতে হাতিদের মন সায় দেয় না। সারা বিশ্ব জুড়ে অসংখ্য মানুষ সেলফি তোলায় দারুণ আনন্দ পেলেও দেখা গেল তা ভয়ের কারণ হয়ে উঠেছে হাতিদের জাতে। অন্তত সে কথাই প্রমাণ করল কর্নাটকের চম্পারাজানগরের কুরুবড়হুন্ডির ঘটনা।

বন দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে যে, সোমবার সকালে আচমকাই একটি মাদি হাতি সন্তান-সহ বন থেকে বেরিয়ে চলে আসে গ্রামে। দফতরের কর্মীদের অনুমান, জঙ্গলে খাবার না পাওয়ার কারণেই লোকবসতির কাছাকাছি বাচ্চাকে নিয়ে আসতে বাধ্য হয় ওই মা-হাতিটি। কিন্তু, গ্রামের মানুষ তাদের খাবার তো দিলই না, উল্টে এমন পরিস্থিতি তৈরি করল যাতে মা-হাতিটিকে বাচ্চা ফেলে রেখেই পালাতে হল!

elephant

জানা গিয়েছে, হাতি দেখে ভয় পেয়ে জোরে জোরে টিন, ক্যানেস্তারা, বাসন ইত্যাদি পিটিয়ে আওয়াজ তুলতে থাকে গ্রামবাসীরা। সঙ্গে জোরে জোরে মুখে শব্দও করতে শুরু করে। তাতে ভয় পেয়ে বাচ্চাকে ফেলে রেখেই পালিয়ে যায় মা-হাতিটি। কিছুক্ষণ পরেই সে যখন ফের ফিরে আসে, তখন শুরু হয় তার ভয়ে লেজ গুটিয়ে ফেলার পালা!

বন দফতর জানিয়েছে, সেই সময়ে গ্রামবাসীরা বাচ্চা হাতিটাকে ঘিরে ধরে সেলফি তুলতে থাকে। মা-হাতি বাচ্চার খোঁজে এসে যখন এই দৃশ্য আবিষ্কার করে, তখন সে ফের ভয় পেয়ে যায়। মোবাইল ক্যামেরায় ছবি তোলার আওয়াজ, গ্রামবাসীদের উল্লাস- সব কিছুই ভয় পাইয়ে দেয় তাকে। পরিণামে ফের বাচ্চাকে ফেলে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয় সে।

elephant

সেলফি তোলা-টোলা শেষ হলে এর পর গ্রামবাসীরা বন দফতরে খবর দেন। বনকর্মীরা এসে বাচ্চাটিকে নিয়ে যায়। তার তখন ভয়ে একেবারে জড়োসড়ো অবস্থা! যাই হোক, দফতর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাচ্চাটাকে জঙ্গলে ছেড়ে দেওয়া হবে।

“আমরা বাচ্চাটাকে ফের জঙ্গলে ফিরিয়ে দেবো। তবে মানুষের হাতে পড়লে বন্যপ্রাণীরা সচরাচর তাদের সদস্যদের দলে ফিরিয়ে নেয় না। তাই বাচ্চাটার উপর নজর রাখতে হবে আমাদের”, জানিয়েছে বন দফতর।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন