দুর্গাপুজো শুধু একটা উৎসব নয়, একটা জাতিসত্তারও প্রতীক। দেবী দুর্গার আগমণকে কেন্দ্র করে ৩-৪ মাস আগে থেকেই পুজোর প্রস্তুতি শুরু হয়ে যায় জার্মানির বার্লিনের ক্রুয়েজবার্গে।

জার্মানির বার্লিনের ক্রুয়েজবার্গে বার্লিন সনাতনী পুজো ও হিন্দু সোসাইটির পুজোয়  অংশ নেন বাঙালি প্রবাসীরা। মণ্ডপ সাজিয়ে তোলা হয় একেবারে সাবেকিয়ানা আদব-কায়দায়।

ষষ্ঠী থেকে দশমী পুজোয় কোনও আচার-অনুষ্ঠানই বাদ যায় না। প্রবাসে পুজো তো কী? রীতি মেনে নবপত্রিকা, সন্ধিপুজো, আরতি, দর্পণ বিসর্জন সবই হয়ে থাকে নিয়ম মেনে।  

এছাড়া থাকে ভোগ খাওয়ার এলাহি আয়োজন। লুচি, ছোলার ডাল, খিচুড়ি, জিরা রাইস, ভেজ রাইস, লাবড়া, আলুর দম, চাটনি, পায়েস, মিষ্টি থাকে খাওয়া-দাওয়ার আয়োজনে।

জার্মানির বার্লিনের ক্রুয়েজবার্গে ঠাকুর দেখার জন্য  দর্শকদের ভিড় হয় চোখে পড়ার মতো। দুর্গাপুজোর পাঁচ দিন সব কাজ ভুলে বাঙালি, বিদেশিরা প্রত্যেকেই পুজোর আনন্দে  সামিল থাকে।

আরও পড়ুন: ভারতের আর কোথায় দেবী আরাধনা করা হয়? জেনে নিন

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন