বসুমল্লিক বাড়ির পুজো।

দুর্গাপুজো বাঙালিদের শ্রেষ্ঠ উৎসব। পশ্চিমবাংলার দুর্গাপুজো পৃথিবী বিখ্যাত। এ ছাড়াও ভারতবর্ষের বিভিন্ন জায়গায় করা হয় সিংহবাহিনীর আরাধনা। তবে পৃথিবীর নানা প্রান্তেই রয়েছে হিন্দু তথা বাঙালিদের বাস।

অসম, বিহার, ঝাড়খণ্ড, মণিপুর এবং ওড়িশাতেও জাঁকজমকের সঙ্গে শারদোৎসব পালন করা হয়। এ ছাড়াও আরও বেশ কিছু রাজ্যের দুর্গাপুজোর রয়েছে বিশেষ তাৎপর্য।

মুম্বই, মহারাষ্ট্র-

কয়েক বছর ধরে দুর্গাপুজো করার জন্য মুম্বই অন্যতম শীর্ষস্থানীয় স্থান হয়ে উঠেছে। বাঙালিদের হাত ধরেই এই বাণিজ্যশহরে দুর্গাপুজো শুরু হয়। এখানে কলকাতার মতোই প্যান্ডেল করে উত্‍সব পালন করা হয়। পুজোয় প্যান্ডেল পরিদর্শন করার সময় বলিউড সেলেবদেরও দেখা মিলতে পারে।

হায়দরাবাদ

হায়দরাবাদের বড়ো পুজোগুলির মধ্যে অন্যতম উৎসব কালচারাল অ্যাসোসিয়েশনের দুর্গাপুজো। এই পুজোর সঙ্গেও জড়িয়ে রয়েছেন একাধিক বাঙালি। পুজোর কয়েকটা দিন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান থেকে শুরু করে সেখানেও একাধিক খাবারের স্টলের আয়োজন করা হয়ে থাকে। শহরের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বহু মানুষ গিয়ে সেই পুজোয় ভিড় জমান।

ওড়িশার মানিক গোড়া গ্রাম

ওড়িশার রাজধানী ভুবনেশ্বর থেকে ৮০ কিমি দূরে মানিক গোড়া গ্রাম। এই মানিক গোড়া গ্রামের  দুর্গাপুজো হয় সমগ্র দেশ থেকে আলাদা রীতিনীতি মেনে। এই পুজোয় হিন্দু পুরোহিত মন্ত্র উচ্চারণ করার সঙ্গে সঙ্গে মুসলমান সম্প্রদায়ের একজন মানুষ হাতে তুশের আংটি পরে কাছা দিয়ে পাটের কাপড় পরে পুজোয় অংশ নিতে হয়। হাতে শুভ-সুচ দিয়ে অপরাজিতা, হোমকুণ্ডে ঘৃতাহুতি দেয় ‘দ্ল বেহরা’।

 এই প্রথা চলে আসছে ১৫০০ শতাব্দী থেকে। এই দুর্গাপুজোর নাম কনক দুর্গাপুজো। পুজো শুরু হওয়ার ২০ দিন আগে থেকে এখানকার লোকেরা নিরামিষ খাবার খেয়ে থাকেন।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন