Religious Places in Bengal: বারুইপুরের শিবানীপীঠ

0

শুভদীপ রায় চৌধুরী

দেবীর পীঠস্থান এই বঙ্গে বহু স্থানে রয়েছে। বলা যেতে পারে যে এই বঙ্গদেশের মাহাত্ম্যই দেবীপীঠের জন্য। এ ছাড়া অন্যান্য ঐতিহাসিক স্থান তো আছেই। বঙ্গদেশের মধ্যে কলকাতা হল কালীক্ষেত্র। এই তিলোত্তমার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে আরও বহু প্রাচীন কালীমন্দিরের ইতিহাস।

Shyamsundar

কালীঘাটের কালী কলকাতার অধীশ্বরী হলেও অন্যান্য মন্দিরের দেবী কালিকা কলকাতার ইতিহাসকে আরও সমৃদ্ধ করে। দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার বারুইপুরে রয়েছে দেবী কালিকার এমনই এক পীঠস্থান যা শিবানীপীঠ নামে পরিচিত। এই পীঠস্থান প্রতিষ্ঠা করেন সেই অঞ্চলের ভট্টাচার্যবাড়ির পূর্বপুরুষেরা যা আজ এক অতি মাহাত্ম্যপূর্ণ স্থান হিসাবে পরিচিত।

নাটমন্দির, শিবানীপীঠ।

মন্দির প্রতিষ্ঠার সঙ্গে যুক্ত ভট্টাচার্য পরিবারের বারুইপুরে আগমন বাইরে থেকে। এর ইতিহাস আলোচনা করলে দেখা যায়, ১৩০০ বঙ্গাব্দ নাগাদ বারুইপুর অঞ্চলের জমিদার রমেন্দ্র রায় চৌধুরী তাঁদের বংশের কুলদেবতার সেবার জন্য ব্রাহ্মণ নিয়ে আসেন লক্ষ্মীকান্তপুরের গোকর্ণি থেকে। সেই ব্রাহ্মণদের তিনি তাঁর জমিদারিতে বসবাসের ব্যবস্থা করে দেন। সেই থেকে এই অঞ্চলে একটি পাড়ার নাম হয় ‘ভট্টাচার্যপাড়া’, যে অঞ্চলে ভট্টাচার্য ব্রাহ্মণরা থাকতে শুরু করেন।

ব্রাহ্মণ হওয়ার সুবাদে তাঁরা নিজেদের বাড়িতেই শুরু করেন দুর্গাপুজো। পরবর্তী কালে ভট্টাচার্যবাড়ির সুসন্তান অক্ষয় কুমার ভট্টাচার্য ১৯৩৯ খ্রিস্টাব্দে নির্মাণ করেন ‘অক্ষয়কুঞ্জ’ এবং সেই বাড়িতেই তিনি শুরু করলেন দুর্গাপুজো। এই পুজো আজও নিষ্ঠার সঙ্গে অনুষ্ঠিত হয়।

কিন্তু কালীপুজো পুজো শুরুর ইতিহাস কী? অক্ষয়কুমারের নাতনি নিরুপমাদেবী এবং জ্যেষ্ঠ পুত্রবধূ অনুরূপাদেবী স্বপ্নাদেশ পান যে, তাঁদের বাড়ির পাশের পুকুরে দেবীর ঘট রয়েছে। সেইমতো তাঁরা সেই পুকুর থেকে ঘটটি উদ্ধার করেন এবং ১৯৬৬ সালের কালীপুজোর দিন প্রতিষ্ঠিত হন মা শিবানী। এই দেবীকে প্রতিষ্ঠা করেন দুর্গাদাস ভট্টাচার্য।

দুর্গাদাস ভট্টাচার্য।

কথা হচ্ছিল দুর্গাদাসবাবুর পৌত্র শুদ্ধস্বত্ত্ব ভট্টাচার্যের সঙ্গে। তিনি জানালেন, এই মন্দিরের দেবীবিগ্রহের প্রথম নাম ছিল মা ভবানী। কিন্তু পরবর্তীকালে দুর্গাদাসবাবু স্বপ্নাদেশ পান যে তাঁর মেয়ের নামে মা কালিকার নাম রাখতে। সেইমতো শিবানীর নামেই মায়ের নাম হয়।

দেবী বিগ্রহটি সম্পূর্ণ নিমকাঠের তৈরি এবং উচ্চতা প্রায় চার ফুট। বিগ্রহটি তৈরি করেন বারুইপুরেরই স্থানীয় শিল্পী। তিনি বিগ্রহটি তৈরি করে মাকে মাথায় করে নিয়ে আসেন। আগে যে স্থানে দুর্গাপুজো হত সেখানেই দেবীর মন্দির তৈরি করেন দুর্গাদাস ভট্টাচার্য।

দেবীকে নিত্য আমিষ ভোগই নিবেদন করা হয় বলে জানালেন শুদ্ধস্বত্ত্ব ভট্টাচার্য। ভোগে থাকে সাদাভাত, ভাজা, তরকারি, মাছ, চাটনি, পায়েস ইত্যাদি। অতীতে প্রতীকী বলিদান হলেও এখন সেই প্রথা বন্ধ। এই পীঠস্থানে কালীবিগ্রহ ছাড়া পারিবারিক নারায়ণ, গোপাল আর দু’টি শিবমন্দির রয়েছে – কেদারনাথ ও বিশ্বনাথ। বর্তমানে করোনাভাইরাসের কারণে মন্দিরে সাধারণের প্রবেশ বন্ধ রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুন: Religious Places in Bengal: কালীক্ষেত্র কালীঘাট

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন