স্টকহলম: যাঁরা একাধিক ভাষায় কথা বলতে পারেন গড়গড় করে, তাঁদের নিয়ে আমাদের মনে নানা কৌতূহল জন্ম নেয়। তাঁরা কোন ভাষায় চিন্তা করেন, স্বপ্ন দেখেন কীসে ইত্যাদি ইত্যাদি। গবেষণা বলছে, আমাদের এই কৌতূহল অস্বাভাবিক নয়। একাধিক ভাষায় কথা বলতে স্বচ্ছন্দ মানুষেরা সাধারণ মানুষের থেকে অনেকটাই আলাদা। একই সময় বাঁচলেও দোভাষীরা অন্য ভাবে দেখে সময়টাকে।

ল্যাঙ্কেস্টার এবং স্টকহলম বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কিছু গবেষক দোভাষী মানুষের ভাবনা নিয়ে গবেষণা করেই বলেছেন এই কথা। ‘এক্সপেরিমেন্টাল সাইকোলজি’ জার্নালে প্রকাশিত হওয়া গবেষণায় বলা হয়েছে, মানুষ যে ভাষায় কথা বলে, সে ভাষার সঙ্গে জড়িয়ে থাকা সমাজ, দৃষ্টিভঙ্গি, সংস্কৃতি তাকে প্রভাবিত করে। একাধিক ভাষায় কথা বললে সমাজকে দেখার চোখটাও এক রকম থাকে না। এই প্রসঙ্গে ভাষাতত্ত্বের দুই অধ্যাপক ইম্যানুয়েল বাইল্যান্ড এবং পানোস আথানাসোপোলস মনে করছেন, একাধিক ভাষায় কথা বলা ব্যক্তিরা নিজের অজান্তেই দু’টি আলাদা সময়ে বিচরণ করতে থাকে।

অধ্যাপক পানোসের মতে, “আমাদের ভাষা আমাদের আবেগ এবং দৃষ্টিভঙ্গিকে কতটা প্রভাবিত করে, তা ধারণার বাইরে। রোজকার জীবনে সমানে একের বেশি ভাষায় কথা বলতে হলে, হঠাৎ করে ভাষা বদলাতে গেলে একটা দক্ষতা দরকার। এই দক্ষতা থাকলে মাল্টি টাস্কিং করা সহজ হয়ে যায়। মুহূর্তের মধ্যে এক ভাষা থেকে অন্য ভাষায় কথা বলতে হলে মনকে প্রস্তুত রাখতে হয় সব সময়। আর এই কারণে সাধারণ মানুষের তুলনায় এঁদের দৃষ্টিভঙ্গিতে অনেক বেশি উদারতা প্রতিফলিত হয়। নতুন ভাবনাকে গ্রহণ করার ক্ষেত্রেও এঁরা অন্যদের তুলনায় এগিয়ে থাকেন।”

ছবি : ইন্টারনেট থেকে নেওয়া

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here