Moon surface Ice
চন্দ্রযান-১ থেকে পাঠানো চাঁদের হিমায়িত জলের ছবি।

ওয়েবডেস্ক: চাঁদের সব থেকে অন্ধকারময় এবং ঠান্ডা মেরু অংশে হিমায়িত জলের উপস্থিতি নিশ্চিত করল ভারতের মহাকাশযান চন্দ্রযান-১। ১০ বছর আগে এই যানটিকে চাঁদে পাঠায় ভারত। নাসার বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, ১০ বছরের প্রচেষ্টায় চন্দ্রযান-১ চাঁদের মেরু অংশে বরফের অস্তিত্বপ্রমাণের তথ্য পাঠাতে সফল হল।

চন্দ্রযান-১-এর পাঠানো তথ্য থেকে জানা গিয়েছে, চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে কয়েক মিলিমিটার উচ্চতায় ওই হিমায়িত জলের অবস্থান নিশ্চিত। ফলে আগামী দিনে জলের সন্ধানে পর্যবেক্ষণ ও গবেষণার কাজকে এই তথ্য আরও শক্তিশালী করবে। এমনকী, এই তথ্য হাতে আসার পর বিজ্ঞানীরা চন্দ্রপৃষ্ঠের নীচেও জলের অবস্থানের ব্যাপারে গবেষণার কাজকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাইছেন।

পিনাস (পিএনএএস) নামের একটি বিজ্ঞান গবেষণা পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চাঁদের হিমায়িত জলের পরিমাণ বিস্তৃত। এগুলি বয়সের দিক থেকেও প্রাচীন।

news of NASA
নাসার ওয়েবসাইটে এই খবর।

বিজ্ঞানীরা নাসার মুন মিনারেলজি ম্যাপ বা এম৩ যন্ত্রের সাহায্যে চাঁদে জলের অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হয়েছেন। এমনকী চাঁদের উত্তর ও দক্ষিণ মেরুর হিমায়িত জলের চরিত্র যে পৃথক, সে বিষয়টিও উঠে এসেছে।

Moon Surface water
নিউজ নেশনের ফাইল ফোটো

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালে ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশন (ইসরো) থেকে চন্দ্রযান-১ মহাকাশযানটি চাঁদের উদ্দেশে পাড়ি দিয়েছিল। ওই মহাকাশযানে এম৩ সংযোজিত ছিল। সচরাচর বরফের উপর আলোর প্রতিফলন থেকে তার উপস্থিতি চিহ্নিত করণের প্রক্রিয়ায় নির্ভরশীল না হয়ে তার আণবিক গঠন সংক্রান্ত বৈশিষ্ঠ্যগুলিকে নিরুপণ করতে সক্ষণ এম৩।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন