এখনই বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা ছাড়তে নারাজ ইসরো

প্রতিনিধিত্বমূলক ছবি

ওয়েবডেস্ক: চন্দ্রযান ২-এর ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার তিন সপ্তাহেরও বেশি সময় কেটে গেলেও সেটির সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনের চেষ্টা ছাড়তে নারাজ ভারতীয় মহাকাশ গবেষণাকারী সংস্থা ইসরো। মঙ্গলবার এমন ইঙ্গিতই দিলেন সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ।

ইসরো জানিয়েছে, গত ৭ সেপ্টেম্বর চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে মাত্র ২.১ কিমি দূরে বিক্রমের সাথে যোগাযোগ হারিয়ে যায়। আগাম পরিকল্পনা মতো সফট ল্যান্ডিংয়ের কয়েক মিনিট আগেই এই ঘটনা ঘটে। কিন্তু রোভার প্রজ্ঞান পূর্বনির্ধারিত পরিকল্পনামাফিক কাজ করছে।

তার পর থেকে সম্ভাব্য সমস্ত রকমের চেষ্টা চালিয়ে গিয়েছে ইসরো। পাশে দাঁড়িয়েছিল আমেরিকার মহাকাশ গবেষণাকারী সংস্থা নাসা। কিন্তু দিন দশেক আগে চাঁদের ওই অংশে রাত নেমে আসায় সেই চেষ্টায় ব্যাঘাত ঘটে যায়। -১৮০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় এক চন্দ্ররাত (যা পৃথিবীর ১৪ দিনের সমান) শুরু হওয়ার পর বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনে দাঁড়ি টানা ছাড়া আর কোনো পথ নেই।

এ দিন ইসরো চেয়ারম্যান কে সিবন বলেন, এখান সেখানে (চাঁদে) রাত, ফলে বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনের চেষ্টা কোনো মতেই সম্ভব নয়। কিন্তু রাত কেটে যাওয়ার পর আমরা আবার চেষ্টা চালাব। সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে সিবন বলেন, সেখানে এখন যোগাযোগ করার মতো পরিবেশই নেই। সৌরশক্তির অভাবে সমস্ত প্রযুক্তিউ অকেজো হয়ে রয়েছে। কিন্তু চাঁদের দিন ফিরলেই পুনরায় চেষ্টা শুরু হবে।

ইসরোর আর এক আধিকারিক বলেন, এটা মনে হতেই পারে, এত দিন পর কি বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ আদৌ সম্ভব? কিন্তু চেষ্টা করতে তো কোনো ক্ষতি নেই!

[ আরও পড়ুন: চন্দ্রযান ২: বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগের শেষ সুযোগ! ]

চাঁদের রাতে নেমে এসেছে গভীর শীতলতা। স্বাভাবিক ভাবেই ওই চরম শীতলতার ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে পারবে কি বিক্রম? ওই আধিকারিক বলেন, “শুধু ঠান্ডা নয়, চিন্তিত হওয়ার আরও একটি অন্যতম কারণ হল, ল্যান্ডারটি উচ্চ গতিতে নেমে এসেছে”।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.