Connect with us

বিজ্ঞান

নাসার পাঠানো মহাকাশ যানের তোলা ছবিতে নতুন গ্রহাণু, তাতে রয়েছে জল!

Bennu

ওয়েবডেস্ক: গন্তব্যে পৌঁছানোর প্রায় এক মাস পর গ্রহাণু বেনুর সঙ্গ পৃথিবীর একটি দারুণ ছবি তুলেছে ওএসইআরইএস আরইএক্স। নাসার প্রথম গ্রহাণুর নমুনা সংগ্রহ অভিযানের অরিজিনস স্প্যাকট্রাল ইন্টারপ্রিটেশন রিসোর্স আইডেনটিফিকেশন সিকিউরিটি রিগোলিথ এক্সপ্লোরার। এক কথায় ওসিরিস রেক্স অর্থাৎ ওএসইআরইএস আরইএক্স। এই ছবিটি উঠেছে ২০১৮ সালের ১৯ ডিসেম্বর। ওসিরিস রেক্স এই জাতীয় অভিযানের ক্ষেত্রে প্রথম মহাকাশ যান। ওসিরিস রেক্স মহাজাগতিক ছোট্ট ছোট্ট বস্তুগুলির খুবই কাছ থেকে ছবি তুলবে আর মাটি পাথরের নমুনা সংগ্রহ করবে। ২০২৩ সালে পৃথিবীতে ফিরবে ওসিরিস রেক্স।

বেনু নামের এই গ্রহাণুকে কেন্দ্রে রেখে তার কক্ষপথ। সেই কক্ষপথে নিক্ষেপ করার মাত্র কয়েক দিন আগে নতুন বছরের প্রাক্কালে এই ছবিটি তুলেছে ওএসইআরইএস আরইএক্স। খুবই ছোটো এই গ্রহাণু। এক মাইলের একের তিন অংশ মাত্র। ছবিতে একটি লম্বাটে বড়ো বিন্দুর আকারে ধরা পড়েছে।

Bennu

প্রায় সাত কোটি মাইল দূরে পৃথিবীকে একটি ছোট্ট বিন্দুর মতো দেখাচ্ছে ওই ছবিতে। সঙ্গে চাঁদ আরও ছোট্টো একটি বিন্দু। তবে ছোট্ট হলেও দু’টিই খুবই স্পষ্ট ভাবে দেখা এবং বোঝা যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত ২০১৬ সালে এটিকে মহাকাশে নিক্ষেপ করা হয়েছিল। মহাকাশে প্রায় এক লক্ষ কোটি মাইল পথ অতিক্রম করেছে ওসিরিস রেক্স। মহাকাশে কী ধরনের মাটি পাথর রয়েছে তা গবেষণা করবে এই মহাকাশ যান। তা ছাড়া গ্রহাণুর মাটিতে জল রয়েছে সেটিও আবিষ্কার করেছে এই যান। জানা গিয়েছে, এতে হাইড্রোক্সিলের উপস্থিতি রয়েছে। অর্থাৎ কিনা সেখানে অক্সিজেন আর হাইড্রোজেনের উপস্থিতি রয়েছে।

আরও পড়ুন – গোরু নয়, ছাগল চোর সন্দেহে ল্যাম্পপোস্টে বেঁধে গণপিটুনি এ বার!

নাসা একটি বিবৃতিতে আরও বলেছে, বেনুর তরল জল ধারণ করার জন্য খুবই ছোটো হলেও, এর উৎপত্তি যে মূল গ্রহ থেকে তাতে রয়েছে জলের উপস্থিতি।

মহাকাশ সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, গ্রহাণুদের থেকেই সৌর জগৎ সৃষ্টির উত্তর পাওয়া যাবে।

বিজ্ঞান

করোনাভাইরাস সুপার স্প্রেডার কী?

গত মে মাসে ঘানার একটি মৎস্য প্রক্রিয়াকরণ কেন্দ্রে এক কর্মী ৫০০ জনকে সংক্রামিত করেন।

ওয়েবডেস্ক: বিয়ের ঠিক দু’দিন পর মারা গিয়েছেন বিহারের পটনা থেকে ৫০ কিমি দূরে পালিগঞ্জের দেহপলিগ্রামের এক বাসিন্দা। পেশায় ইঞ্জিনিয়ার ‘বর’ করোনাভাইরাসে (Coronavirus) সংক্রামিত হওয়ার পরই বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন বলে ধারণা।

গুজরাত থেকে বাড়ি ফিরেছিলেন ওই ব্যক্তি। তার পর বিয়ে। চলতি মাসের ই তিনি মারা যান। বিহারের এই বিয়েবাড়ির ঘটনায় রীতিমতো আতঙ্ক ছড়িয়েছে এলাকায়। বিয়েবাড়িতে অংশ নিয়েছিলেন ৩৬৯ জন আমন্ত্রিত। সরকারি হিসেবে, সোমবার পর্যন্ত তাঁদের মধ্যে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৭৯ জন। আবার তাঁদের সংস্পর্শে আসা আরও ২৪ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

বিহারে এখনও পর্যন্ত এই ঘটনাটিই সব থেকে দুর্ভাগ্যজনক ‘সুপার স্প্রেডার’কে সামনে এনে দিয়েছে।

সুপার স্প্রেডার কী?

সুপার স্প্রেডার হলেন এমন ব্যক্তি, সাধারণত অন্য কোনো সংক্রামিত ব্যক্তির তুলনায় একাধিক ব্যক্তিকে সংক্রামিত করার সম্ভাবনা যাঁর মধ্যে বেশি।

সচরাচর কোনো কোভিড-১৯ (Covid-19) আক্রান্তের থেকে গড়ে ২-৩ জনের সংক্রামিত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। যদিও কোনো কোনো ব্যক্তি অথবা গোষ্ঠীর ক্ষেত্রে সংক্রমণ ছড়ানোর হার অনেক বেশি। মহামারি বিশেষজ্ঞরা তাদেরই সুপার স্প্রেডার হিসাবে চিহ্নিত করেন।

অঙ্কটা কী রকম?

এক জন করোনা আক্রান্তের সংস্পর্শে এসে সর্বাধিক কতজন সংক্রামিত হলে, তাঁকে সুপার স্প্রেডার বলা চলে, সে বিষয়ে এখনও পর্যন্ত বিজ্ঞানীরা কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছোতে পারেননি।

তবে মহামারি বিশেষজ্ঞরা এ ব্যাপারে তুলনামূলক ‘আরও’ (RO) মাপকাঠিকে ব্যবহার করেন। একজন আক্রান্তের কাছ থেকে কতজনের মধ্যে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে, সেটারই একটি আনুমানিক সূচক ধরা যেতে পারে। এই আরও-র গড় ২.৫, অর্থাৎ, এক জন আক্রান্তের থেকে গড়ে আড়াই জন পর্যন্ত সংক্রামিত হতে পারেন। কিন্তু এর কোনো স্থির মাপকাঠি এখনও নির্ণয় করা সম্ভব হয়নি।

একই ভাবে কোনো ব্যক্তির সুপার স্প্রেডার হয়ে ওঠার নেপথ্য নির্দিষ্ট কোনো কারণকেও চিহ্নিত করা হয়নি। কিন্তু আক্রান্ত ব্যক্তিকে চিহ্নিতকরণ, আইসোলেশনে পাঠানো, চিকিৎসা ইত্যাদির মাধ্যমে সুপার স্প্রেডারের (super spreader) সংখ্যা কমানো সম্ভব।

আরও কয়েকটি নমুনা

এর আগে ইতালি এবং জার্মানি থেকে ফেরত আসা বলদেব সিং সরকারি নির্দেশ অমান্য করে বাড়িতে ঢুকে পড়েন। ফলস্বরূপ তাঁর পরিবারের ১৯ জন সদস্য করোনা আক্রান্ত হন। সরকার সংলগ্ন ২০টি গ্রামের প্রায় ৪০ হাজার মানুষকে কোয়রান্টিনে পাঠায়।

গত মে মাসে ঘানার একটি মৎস্য প্রক্রিয়াকরণ কেন্দ্রে এক কর্মী ৫০০ জনকে সংক্রামিত করেন।

Continue Reading

বিজ্ঞান

কোভাক্সিন কী? জেনে নিন বিস্তারিত

ওয়েবডেস্ক: কোভিড-১৯ প্রতিরোধে এখনও পর্যন্ত কোনো ভ্যাকসিনই (Vaccine) অনুমোদন পায়নি। তবে একশোর উপর সংস্থার তৈরি কয়েক ডজন ভ্যাকসিনের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ হয়েছে মানুষের শরীরে। ভারতে তৈরি একটি ভ্যাকসিনও যথেষ্ট আশার সঞ্চার করেছে। মানুষের শরীরে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের ফলাফল নিয়েও আশাবাদী প্রস্তুতকারক সংস্থাটি।

কী এই কোভাক্সিন?

ভারতে মানুষের শরীরে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে যেতে চলা প্রথম করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন কোভাক্সিন (Covaxin)। যেটি তৈরি করছে হায়দরাবাদ-ভিত্তিক সংস্থা ভারত বায়োটেক (Bharat Biotech)।

কোন পর্যায়ে রয়েছে কোভাক্সিন?

সংস্থা দাবি করেছে, মানুষের শরীরে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের প্রথম এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে কোভাক্সিনের প্রয়োগ ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অব ইন্ডিয়ার (DCGI) অনুমোদন পেয়েছে।

পুনের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ভায়রোলজি থেকে সার্স-কোভ-২ (SARS-CoV-2) ভাইরাসের একটি স্ট্রেন ভারত বায়োটেকে স্থানান্তরিত হয়। সেটি থেকেই ভ্যাকসিনটি তৈরি হয়েছে। গবেষকদের দাবি, প্রাথমিক ভাবে প্রিক্লিনিকাল গবেষণায় ভালো সাড়া পাওয়া গিয়েছে।। এরপর মানুষের শরীরে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে বাকিটা স্পষ্ট হয়ে যাবে।

সংস্থা দাবি করেছে, ডিসিজিআই, স্বাস্থ্য এবং পরিবার কল্যাণমন্ত্রকের সংশ্লিষ্ট বিভাগ মানুষের শরীরে ভ্যাকসিনটির প্রথম এবং দ্বিতীয় পর্যায়ের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল অনুমোদন করেছে। প্রি-ক্লিনিক্যাল গবেষণার সুরক্ষা এবং প্রতিরোধের ভ্যাকসিনটির ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া উঠে আসার পরই এই ছাড়পত্র মিলেছে।

চলতি জুলাই মাসেই ভারতে কোভাক্সিনের হিউম্যান ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল (Human clinical trial) নির্ধারিত হয়েছে।

কেন্দ্রের ইঙ্গিত

গত মঙ্গলবার  কোভিড-১৯ (Covid-19) টিকাকরণের (vaccination) প্রস্তুতি নিয়ে একটি উচ্চপর্যায়ের বৈঠকে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে কবে কার্যকরী ভ্যাকসিন (Vaccine) আসতে পারে, সেই টিকা কী ভাবে দেওয়া যেতে পারে, ইত্যাদি নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা হয় ওই বৈঠকে। প্রধানমন্ত্রী সরকারি আধিকারিকদের নির্দেশ দেন, সমস্ত ধরনের উন্নত প্রযুক্তি এবং সরঞ্জাম ব্যবহার করে কার্যকরী টিকাকরণ নিশ্চিত করতে হবে। পাশাপাশি টিকাকরণের বিষয়টি নিয়েও সময় থাকতেই যাবতীয় প্রস্তুতি নিতে হবে। ইতিমধ্যেই কোভিড ভ্যাকসিন তৈরিতে আর্থিক সহায়তা দিতে পিএম কেয়ার্স ফান্ড (PM-CARES Fund) থেকে ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

Continue Reading

দেশ

মানবশরীরে পরীক্ষার অনুমতি পেল ভারতের প্রথম কোভিড ১৯ টিকা কোভ্যাক্সিন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ভারতে তৈরি একমাত্র টিকা কোভ্যাক্সিন (COVAXIN) মানবশরীরে পরীক্ষার অনুমোদন পেল। ভারতে করোনাভাইরাসের এই প্রতিষেধকটি তৈরি করছে ভারত বায়োটেক (Bharat Biotech)।

কোভ্যাক্সিন তৈরিতে ভারত বায়োটেককে সহযোগিতা করছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর, ICMR) ও ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজি (এনআইভি)। মানবশরীরে কোভ্যাক্সিন–এর প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ের পরীক্ষা (human clinical trials) চালানোর অনুমতি দিয়েছে ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনেরাল অব ইন্ডিয়া (ডিসিজিআই, DCGI)। আশা করা যায়, আসন্ন জুলাই মাসেই এই পরীক্ষা শুরু হবে।

আরও পড়ুন: টিকা তৈরির দৌড়ে এগিয়ে ব্রিটিশ সংস্থা অ্যাস্ট্রাজেনেকা, বলল হু

পুনের এনআইভি-তে (NIV) সার্স-কোভ-২ স্ট্রেনকে আলাদা করা হয় এবং তা পাঠিয়ে দেওয়া হয় ভারত বায়োটেকে। সর্বাধিক জৈব নিরাপত্তায় এই দেশজ টিকা তৈরি হচ্ছে হায়দরাবাদের জেনোম ভ্যালিতে ভারত বায়োটেকের হাইকনটেনমেন্ট ব্যবস্থার মধ্যে।

টিকাটির প্রি-ক্লিনিক্যাল সমীক্ষা এবং নিরাপত্তা ও প্রতিরোধ ক্ষমতা সংক্রান্ত সমীক্ষার ফল কোম্পানি জমা দেওয়ার পরেই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অধীন সেন্ট্রাল ড্রাগ স্ট্যান্ডার্ড কন্ট্রোল অর্গানাইজেশনের (সিডিএসসিও, CDSCO) ডিসিজিআই মানবশরীরে প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ের পরীক্ষা চালানোর অনুমতি দিয়েছে।

টিকা তৈরি হওয়ার কথা ঘোষণা করে ভারত বায়োটেকের চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর ড. কৃষ্ণ এল্লা বলেন, “কোভিড ১৯ (COVID 19) প্রতিরোধী ভারতের প্রথম দেশজ টিকা কোভ্যাক্সিন-এর কথা ঘোষণা করতে পেরে আমরা গর্বিত। এই টিকা তৈরির কাজে আইসিএমআর এবং এনআইভি-র সহযোগিতা আমাদের সহায়ক হয়েছে। সিডিএসসিও-এর সক্রিয় সমর্থন এবং পথপ্রদর্শন এই প্রকল্পে অনুমোদন পেতে আমাদের সাহায্য করেছে। মালিকানাগত যে প্রযুক্তি আমাদের অধিকারে আছে, তা এ ব্যাপারে কাজে লাগাতে আমাদের রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট টিম এবং উৎপাদক টিম অক্লান্ত পরিশ্রম করেছে।”

পোলিও, র‍্যাবিস, জাপানিজ এনসেফেলাইটিস, জিকা ও চিকুনগুনিয়ার মতো বিভিন্ন ভাইরাসঘটিত রোগের টিকা উদ্ভাবনের খ্যাতি আছে ভারত বায়োটেকের।

Continue Reading
Advertisement
earthquake
দেশ4 hours ago

কেঁপেই চলেছে দেশের মাটি, এ বার ফের কচ্ছে, মিজোরামে

রাজ্য4 hours ago

রাজ্যে এক দিনে আক্রান্তের সংখ্যায় নতুন রেকর্ড! তবে সক্রিয় রোগীর চেয়ে অনেক এগিয়ে সুস্থ হওয়ার সংখ্যা

দেশ5 hours ago

গাজিয়াবাদের কারখানায় ভয়াবহ বিস্ফোরণ, মৃত ৭

দেশ6 hours ago

২০২১-এর আগে নয় করোনা ভ্যাকসিন? প্রেস বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেও সময়সীমা মুছে দিল বিজ্ঞানমন্ত্রক!

দেশ7 hours ago

কোভিড-১৯: ২১টি রাজ্যে সুস্থতার হার জাতীয় হারের তুলনায় বেশি

বিনোদন8 hours ago

করোনা আবহে কী ভাবে হল ‘বিবাহ বার্ষিকী’র শুটিং? দেখে নিন অভিনেত্রী দর্শনা বণিকের এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার

দেশ8 hours ago

রাষ্ট্রপতি ভবনে নরেন্দ্র মোদী-রামনাথ কোবিন্দ বৈঠক

শিল্প-বাণিজ্য9 hours ago

আক্রান্ত আড়াইশো! অস্থায়ী ভাবে বাজাজের একটি প্রকল্প বন্ধের দাবি কর্মী সংগঠনের

দেশ15 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ২৪৮৫০, সুস্থ ৯৩৮১

কলকাতা2 days ago

কলকাতায় অতিসংক্রমিত ১৬টি অঞ্চলকে পুরোপুরি সিল করে দেওয়ার প্রস্তুতি

দেশ3 days ago

দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যায় নতুন রেকর্ড, সুস্থতাতেও রেকর্ড

দেশ3 days ago

‘সবার টিকা লাগবে না, আর পাঁচটা রোগের মতোই চলে যাবে করোনা’, আশ্বাস অক্সফোর্ডের বিজ্ঞানীর

wfh
ঘরদোর2 days ago

ওয়ার্ক ফ্রম হোম করছেন? কাজের গুণমান বাড়াতে এই পরামর্শ মেনে চলুন

রাজ্য3 days ago

পশ্চিমবঙ্গে ১৫ রুটে বেসরকারি ট্রেন, ভাড়া বাড়বে কি?

thunderstorm
রাজ্য2 days ago

কলকাতা-সহ গোটা দক্ষিণবঙ্গে সন্ধ্যার মধ্যে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা

রাজ্য2 days ago

করোনা-আক্রান্তের সংখ্যায় কলকাতাকে পেছনে ফেলে দিল হায়দরাবাদ, বেঙ্গালুরু

কেনাকাটা

কেনাকাটা9 hours ago

হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

অনলাইনে খুচরো বিক্রেতা অ্যামাজন ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে ঢেলে সাজিয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সম্ভার।

DIY DIY
কেনাকাটা5 days ago

সময় কাটছে না? ঘরে বসে এই সমস্ত সামগ্রী দিয়ে করুন ডিআইওয়াই আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক :  এক ঘেয়ে সময় কাটছে না? ঘরে বসে করতে পারেন ডিআইওয়াই অর্থাৎ ডু ইট ইওরসেলফ। বাড়িতে পড়ে...

smartphone smartphone
কেনাকাটা1 week ago

লকডাউনের মধ্যে ফোন খারাপ? রইল ৫ হাজারের মধ্যে স্মার্টফোনের হদিশ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে ঘরে বসে যতটা কাজ সারা যায় ততটাই ভালো। তাই মোবাইল ফোন খারাপ...

কেনাকাটা1 week ago

১০টি ওয়াশেবল মাস্ক দেখে নিন

খবর অনলাইন ডেস্ক : বাইরে বেরোচ্ছেন। মাস্ক অবশ্যই ব্যবহার করুন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনাভাইরাসের হাত থেকে বাঁচতে তিন স্তর বিশিষ্ট মাস্ক...

নজরে