K Sivan

ওয়েবডেস্ক: ২০২১ সালের মধ্যেই মহাকাশে মহাকাশচারী পাঠাবে ভারত – শুক্রবার একটি সাংবাদিক বৈঠকে ইসরোর চেয়ারমযান কে সিবন এ কথা বলেন। পাশাপাশি ‘গগনযান’ অভিযান সম্পর্কে বলতে গিয়ে সিবন ভারতের মহাকাশচারী দলের সঙ্গে মহিলা মহাকাশচারী পাঠানোর কথাও বলেন। তিনি বলেন, এটাই তাঁদের লক্ষ্য।

সিবন বলেন, ইতিমধ্যেই সংস্থার কাজের জন্য ৩০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। তার মধ্যে ১০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ চন্দ্রায়ণ ২ এর অভিযানের জন্য। চন্দ্রায়ণ ২ অভিযানে চলতি বছরের এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি মহাকাশে পাঠানো হবে।

‘গগনযান’ একটি প্রকল্প, যাতে মহাকাশচারীদের পাঠানো হবে মহাকাশে। সেই ব্যাপারে বলতে গিয়ে সিবন বলেন, তিনি চান মহিলা মহাকাশচারীরাও থাকুন ওই দলে, তবে তা নির্ভর করছে বাছাই পর্বের ওপর। এই অভিযানের প্রাথমিক প্রশিক্ষণ ভারতেই দেওয়া হবে। পরবর্তী পর্যায়ের প্রশিক্ষণ হবে রাশিয়ায়। তিনি বলেন, এটি ইসরোর কার্যক্রমের মোড় ঘুরিয়ে দেওয়ার মতো একটি বৃহৎ প্রকল্প।

সিবন বলেন, আগামী জুলাই মাসের মধ্যে উপগ্রহ উৎক্ষেপণকারী ৫০০ কিলোগ্রাম প্লেলডের একটি ছোটো লঞ্চার ভেহিক্যাল তৈরি করবে সংস্থা। তার জন্য লাগবে মাত্র ৭২ ঘণ্টা সময়, আর ৩০ কোটি টাকা। আর মাত্র ছয় জন।

আরও পড়ুন – কংগ্রেসের বিক্ষোভ, কলকাতায় বন্ধ হল ‘দ্য অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’-এর শো

তিনি আরও বলেন, কেন ভারতীয় ছাত্রদের নাসায় যেতে হবে? ভারতীয় পড়ুয়াদের ইসরোয় নিয়ে আসব। জম্মু-কাশ্মীরে একটি বিজ্ঞানাগার তৈরি করা হয়েছে। কয়েকটি ছোটো ছোটো কেন্দ্রও তৈরি হয়েছে। এ ছাড়াও মৎস্যজীবীদের জন্য নেভিগেশন সিস্টেম তৈরি করা হয়েছে। এ বার গোটা দেশে আরও ছয়টি ছোটো ছোটো কেন্দ্র আর গবেষণাগার তৈরি করার লক্ষ্য নিয়েছে সংস্থা।

উল্লেখ্য ২০১৮ সালে ইসরো ১৭টি প্রকল্প হাতে নিয়েছিল। তার মধ্যে সাতটি ছিল ‘লঞ্চ ভেহিক্যাল মিশন’, নয়টি ‘স্পেসক্রাফট মিশন’, একটি ছিল ‘ডেমনস্ট্রেশন মিশন’।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here