ওয়াশিংটন: সলিবাসিলাস কালামি। আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রে সদ্য আবিষ্কৃত ব্যাকটেরিয়ার পরিচয় এটাই। প্রখ্যাত মহাকাশ বিজ্ঞানী এবং প্রয়াত প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি আব্দুল কালামের নামেই নামকরণ হয়েছে এই ব্যাকটেরিয়ার। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা-র জেপিএল গবেষণাগারের এক দল বিজ্ঞানী এই আবিষ্কার করেছেন।

পৃথিবীর বাইরে আবিষ্কার হয়েছে ঠিকই, তবে সলিবাসিলাস যে কোনো ভাবেই পৃথিবীতে জন্মাতে পারে না, সে ব্যাপারে নিশ্চিত নন বিজ্ঞানীরা। তাঁদের অনুমান, পৃথিবীই এর উৎস। কোনো মহাকাশযানের সঙ্গে পৃথিবীর বাইরে পাড়ি দিয়েছে এবং আশ্চর্য ভাবে প্রতিকূল পরিবেশের মধ্যেও নিজের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে সক্ষম হয়েছে। সম্পূর্ণ নতুন রকম এই ব্যাকটেরিয়ার আবিষ্কারের পেছনে রয়েছে এক ভারতীয় বংশ উদ্ভুত গবেষকের নাম। ডঃ কস্তুরি বেঙ্কটেস্বরণ। ‘ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব সিস্টেম্যাটিক অ্যান্ড ইভলিউশনারি মাইক্রোবায়োলজি’-তে প্রকাশিত হয়েছে তাঁর গবেষণাপত্র।

“জন্মসূত্রে তামিলিয়ান হওয়ায় মহাকাশ বিজ্ঞানে এপিজে আব্দুল কালামের অবদান সম্পর্কে অবগত ছিলাম। কেরলে দেশের প্রথম রকেট উৎক্ষেপণের জন্য নাসা থেকেই প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন কালাম। তাই ব্যাকটেরিয়ার এই নতুন প্রজাতি খুঁজে পাওয়ার পর স্বাভাবিক ভাবেই তাঁর নামটাই মনে পড়েছিল সবচেয়ে আগে”, জানালেন ডঃ কস্তুরি। তাঁর মতে, সলিবাসিলাসের চরিত্র বিশ্লেষণ করার এখনও অনেক বাকি। তবে বায়োটেকনোলজিতে এই আবিষ্কার খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করছেন নাসার বিজ্ঞানীরা। রেডিয়েশনের ফলে যে ক্ষতি হয়, তার প্রভাব কমাতে এই ব্যাকটেরিয়া ফলপ্রসূ হতে পারে আগামী দিনে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here