InSight
ইনসাইট। ছবি সৌজন্যে নাসা।

ওয়েবডেস্ক: মঙ্গলে পৌঁছেই ছবি পাঠিয়ে টুইট করে পৌঁছোনোর খবর দিয়েছিল। লিখেছিল, ‘এটা আমার নতুন বাড়ি’। তার পর একের পর এক কাজ চলছেই। এই বার সম্পূর্ণ আলাদা যাকে বলা যায় ‘অপার্থিব এক শব্দ’ রেকর্ড করে পাঠাল ‘ইনসাইট’। শব্দটি হল মঙ্গলে বয়ে চলা বাতাসের। ৭ ডিসেম্বর সেই শব্দেরই রেকর্ড প্রকাশ করেছে জেট প্রোপালসন ল্যাবরেটরি। খুব কম কম্পনের শব্দতরঙ্গ। এই শব্দের গতি ১৬ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা থেকে ২৪ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা।

প্রসঙ্গত জানিয়ে রাখা ভালো, নাসার আরেক মঙ্গলযান হল ‘ইনসাইট’। ছ’ মাসের বেশি সময় ধরে মহাকাশে ৩০ কোটি মাইলেরও বেশি পথ পেরিয়ে অবশেষে মঙ্গলের মাটি ছুঁয়েছে ‘ইনসাইট’। নাসা থেকে এই মঙ্গলযানটি উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল ২০১৮ সালের ৫ মে। এর পুরো নাম ইন্টেরিওর এক্সপ্লোরেশন ইউজিং সিসমিক ইনভেস্টিগেশনস, জিওডিসি অ্যান্ড হিট ট্রান্সপোর্ট। এটি নাসার ২১ তম মঙ্গল অভিযান। ৩০০ কিলোগ্রাম ওজনের এই ইনসাইট প্রায় দু’ বছর ধরে মঙ্গল নিয়ে গবেষণা করবে।

কর্ণেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডন বানফিল্ড সাংবাদিকদের বলেছেন, গ্রীষ্মের বিকেলে বাতাসের কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে এই হাওয়ার শব্দ। এই প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত বিজ্ঞানীদের সকলেই মনে করছেন এই শব্দটির মধ্যে সত্যিই অন্য রকম একটা ব্যাপার রয়েছে।

আরও পড়ুন : নাসা-যান ‘ইনসাইট’ মঙ্গলে নেমেই ফটো পাঠিয়ে টুইট করল ‘আমার নতুন বাড়ি’

লন্ডনের ইম্পেরিয়াল কলেজের থমাস পিক বলেন, পৃথিবীতে পাওয়া সব রকম শব্দের থেকে এটি সম্পূর্ণ আলাদা ধরনের একটি শব্দ। ভাবনার একটি নতুন দিশা দেখিয়ে দিচ্ছে।

ইনসাইটের সোলার প্যানেলের সঙ্গে বাতাসের ধাক্কা লেগে এই শব্দ তৈরি হচ্ছে। এতে করে গোটা যন্ত্রটিই কেঁপে উঠছে। ‘ওয়েদার স্টেশনের’ একটি অংশে রাখা হাওয়া সেনসর আর সিসমোমিটারের মাধ্যমে বাতাসের এই শব্দ ধরা পড়েছে।

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, শব্দের তরঙ্গ কম হওয়ার কারণ হল বাতাসের ঘনত্ব মঙ্গলে খুবই কম।

আগামী কয়েক দিনের মধ্যে আরও কিছু শব্দ রেকর্ড করে পাঠাবে ইনসাইট।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here