NASA's Parker Solar Probe
ছবি: ইন্টারনেট থেকে

ওয়েবডেস্ক: বিশ্বব্যাপী জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের চিরকালীন স্বপ্ন পূরণ হতে চলেছে আগামী সপ্তাহে। তার সঙ্গেই বিশ্ববাসীর মনে সূর্য সম্পর্কে জমে থাকা বেশ কিছু প্রশ্নের অজানা উত্তরও মিলতে পারে আগামী ১১ আগস্টের পার্কার সোলার প্রোব-এর সৌজন্যে। নাসার উদ্যোগে সূর্যের বাতাবরণ পর্যবক্ষেণের সরাসরি এই উদ্যোগ প্রথম।

NASA's Parker Solar Probe

৪০ লক্ষ মাইলের থেকেও দূরবর্তী কোনো নক্ষত্রের উদ্দেশে পাড়ি দেবে নাসার এই গাড়ির মতো দেখতে মহাকাশযানটি। যা নাসার সর্বাধিক দূরত্বের যে কোনো গন্তব্যের থেকে সাতগুণ বেশি। থার্মাল প্রটেকশন সিস্টেম থাকায় খুব সহজেই এই যানটি সূর্যের অতি সন্নিকটে পৌঁছে গিয়েও নিজের কাজ চালাতে পারবে বলে নাসার বিজ্ঞানীদের ধারণা। যানে থাকছে রিমোট নিয়ন্ত্রণ এবং পাশাপাশি সরাসরি কাজ করার পদ্ধতি। থাকবে একাধিক বিষয়ের উপর একাধিক মাইক্রোচিপ। একটি মাইক্রোচিপে থাকবে আগ্রহীদের নাম। যে নাম পৃথিবীর বুক থেকে সূর্যে পৌঁছে দেবে ওই যান।

সূর্যকে ঘিরে থাকা সমাধানহীন মূলত তিনটি প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে পাঠানো হচ্ছে এই বিশেষ যানটিকে। সূর্যের বহি:আবহাওয়া মণ্ডল যাকে বলা হয় করোনা, তার উপাদান, অবস্থান-সহ যাবতীয় বিষয়ের তথ্যানুসন্ধান চালাবে এই পার্কার সোলার প্রোব।

তবে সূর্য-অভিযান নিয়ে বিজ্ঞানীদের কাজ চলছে কয়েক দশক ধরে। কিন্তু প্রযুক্তিগত কারণে সেই উদ্যোগ বাস্তবতার আলো দেখেনি। বিশেষ করে সূর্যের তাপ, সৌরমণ্ডলের শীতলতা এবং ত্রুটিগত ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের নিখুঁত রূপায়ণের সম্ভাবনা উপস্থিত হতেই সূর্যে যাচ্ছে এই মহাকাশগাড়ি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন