Bicycle

ওয়েবডেস্ক: ১৮৮৫ সালে জন কেম্প স্টারলে প্রথম আধুনিক বাই সাইকেল আবিষ্কার করেন। তখন থেকে আজ পর্যন্ত উত্তর পাওয়া গেল না একটি প্রশ্নের।

প্রথম সাইকেল চালানোর সময় নিজেকেই নিজের ভারসাম্য বজায় রাখার চেষ্টা করতে হয়। কিন্তু সাইকেল চালানো শিখে গেলে গতির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই সাইকেল কিন্তু সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে থাকে। বিবিসি টেরিফিক সায়েন্সে দাবি করা হয়েছে, এই সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে থা্কার রহস্য না কি বিজ্ঞানীদের কাছেও অজানা।

সাইকেল চালানো শিখে গেলে আর সে ভাবে ভারসাম্য ভাবার কথা মাথায় আসে না। এই প্রশ্ন তো মাথায় আসতেও পারত, কী ভাবে সোজা হয়ে চলতে থাকে সাইকেন। বিবিসি বলছে, বিজ্ঞানীরাও মোটেও জানেন না এই কাণ্ড কী ভাবে ঘটে।

তবে হ্যাঁ, একটা বৈজ্ঞানিক যুক্তি আছে। বিজ্ঞানীদের যুক্তি সাইকেল চলতে শুরু করলে গিয়ারোস্কোপিক শক্তি কাজ করে। যা সাইকেলের চাকার ঘুর্ণনের ফলে সৃষ্টি হয়। কিন্তু চলন্ত অবস্থায় এ ভাবে দাঁড়িয়ে থাকার পর্যান্ত গিয়ারোস্কোপিক শক্তি উৎপন্ন হওয়া সম্ভব নয়। ফলে্ এই নেপথ্যে অন্য কোনো জটিল কারণ থাকতে পারে। একাধিক সিস্টেম একত্রিত হয়ে সাইকেলকে সোজা হয়ে থাকতে সাহায্য করে। আধুনিক বিজ্ঞানীরা বলছেন, শুধুমাত্র গিয়ারোস্কোপিক শক্তির দ্বারা এই কাজ হয় না। যেমন যিনি সাইকেল চালাচ্ছেন, তাঁরও তো একটা ভূমিকা থাকে। ঠিক যেমনটা এক পায়ে দাঁড়াতে পারি আমরা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here