interstitium

ওয়েবডেস্ক: যে কোনো আবিষ্কারেরই দুটি দিক থাকে। একটি যা নেই, তাকে খুঁজে পাওয়া। আর অন্যটা হল, যা ছিল, তার রহস্য নতুন করে উপলব্ধি করা।

মানবদেহের এই নতুন অঙ্গ আবিষ্কার হওয়ার বিষয়টি জুড়ে রয়েছে এই দ্বিতীয় দিকটির সঙ্গে। যে অঙ্গটি আবিষ্কৃত হয়েছে বলে দাবি করেছে একটি বিদেশি মেডিক্যাল জার্নাল, তার নাম ইন্টারস্টিটিয়াম। এর অস্তিত্ব আগেও জানা ছিল। কিন্তু তেমন গুরুত্ব দিয়ে এর আগে দেখা হয়নি তাকে। তাই এ বার নতুন আলোতে ধরা দিল এর চরিত্র এবং কার্যকারিতা।

খবর বলছে, এই ইন্টারস্টিটিয়াম থাকে চামড়ার ঠিক নীচেই! আগে ধারণা করা হত, এগুলি একরকমের সংযোগকারী টিস্যু এবং তা ঘন। কিন্তু বর্তমানে পরীক্ষায় এই তথ্য উঠে এসেছে যে আদতে এগুলি তরল ভরা একেকটি প্রকোষ্ঠ। যা প্রয়োজন মতো নিজেকে সঙ্কুচিত এবং প্রসারিত করতে পারে।

অবশ্য শুধুই চামড়ার নীচে নয়, পেট, ফুসফুস, রক্তনালি এবং মাংসপেশিতেও ইন্টারস্টিটিয়ামের অস্তিত্ব রয়েছে। এই পুরোটা মিলে একটা পথ তৈরি করে যাকে ঘিরে রাখে শক্ত এবং নমনীয় প্রোটিন। সেই জন্যই একে মানবদেহের সব চেয়ে বড়ো অঙ্গ হিসাবে দাবি করা হচ্ছে। একদিকে যেমন তা শরীরের ধাক্কা প্রতিরোধক হিসাবে কাজ করে, তেমনই তা শোষকেরও কাজ করে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

কিন্তু সব চেয়ে যা উল্লেখযোগ্য ব্যাপার- ইন্টারস্টিটিয়ামকে এ ভাবে নতুন করে আবিষ্কার করার সঙ্গে ক্যানসার প্রতিরোধের একটা সম্ভাবনাও দেখতে পাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। কেন না তাঁরা বলছেন, এ হেন ইন্টারস্টিটিয়ামের মাধ্যমেই শরীরের এক অংশ থেকে অন্যত্র দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে ক্যানসারের কোষ। ফলে এই অঙ্গটির কার্যকারিতা পুরোপুরি বোঝা সম্ভব হলে তার থেকে ক্যানসার প্রতিরোধের উপায় বেরিয়ে আসবে- এই আশাতেই দিন গুনছেন সবাই!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here