ওয়েবডেস্ক: কলকাতা শহরের অলিতে গলিতে, ল্যাম্প পোস্টের গায়ে এখনও চোখ পড়ে যায় লেখাটায়। ‘সূর্য পৃথিবীর চারিদিকে ঘুরছে- কেসি পাল’। বইমেলাতেও মাঝে সাঝে নিজের লেখা বই-এর পসরা সাজিয়ে বসে থাকতে দেখা গিয়েছে  তাঁকে। সম্প্রতি ক্যালিফোর্নিয়ায় খোঁজ মিলল এক মার্কিন কেসি পালের। বিজ্ঞানের প্রচলিত তত্ত্বকে আঘাত হেনে অন্যরকম কথা বলেন এরা। মাইক হিউজেস। ইনি বলছেন, পৃথিবীর আকৃতি আসলে গোলাকার নয়। বরং পয়সার মতো একটা চাকতি।  শুধু এ কথা বলেই ক্ষান্ত নন হিউজেস। বলেছেন, নিজের বানানো রকেটে করে ক্যালিফোর্নিয়ার আকাশে প্রায় ১৮০০ ফিট ওপরে উঠে তিনি তা প্রমাণ করবেন খুব শিগগির।

না, হিউজেস কিন্তু একা নন। পৃথিবীর আকৃতি যে চাকতির মতো, এই বিশ্বাস অনেকেরই। এদের নিয়ে রীতিমতো একটা সোসাইটি তৈরি হয়েছে- ফ্ল্যাট আর্থ সোসাইটি। জন্ম ১৯৫৬ সালে। ইন্টারনেটের যুগে নতুন করে ২০০০ সালে এই সোসাইটির অনলাইন একটি শাখা তৈরি হয়েছিল। সম্প্রতি নর্থ ক্যারোলিনার র‍্যালেইয়ে হয়ে গেল প্রথম ‘ফ্ল্যাট আর্থ ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স’।

এমন চাকতি-তত্ত্বের সমস্যা একটিই। যেকোনো থালারই কিনারা থাকে, সে কিনারা উপচে পড়ে যাওয়াও সম্ভব। সে ক্ষেত্রে পৃথিবীর প্রান্তে গিয়ে কেউ পড়ে যাচ্ছে না কেন? এদের যুক্তি এইরকম- এই পৃথিবী নামক চাকতির পরিধিজুড়েই নাকি অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশ। এই বিশাল বরফের চাঁই নাকি আমাদের গড়িয়ে পড়া থেকে বাঁচিয়ে দিচ্ছে। মাইক বলছেন, এয়ারো ডাইনামিক্স, ফ্লুইড ডাইনামিকস আসলে বিজ্ঞান নয়, এ সব তত্ত্ব। আর দিনের পর দিন এই ‘সাজানো’ তত্ব্ব মানুষকে বিশ্বাস করানোর পেছনে নাকি রয়েছে এক দল বিজ্ঞানীর ঘোর ষড়যন্ত্র।

৬১ বছরের মাইক নিজেই ঘরে বসে বানিয়ে ফেললেন একটি আস্ত রকেট। স্টিম ইঞ্জিন চালিত। খরচ হয়েছে প্রায় ২০০০০ মার্কিন ডলার। ২০১৪ সালে একবার আকাশে উড়েছিল তাঁর তৈরি রকেট।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here