চন্দ্রযান ২: বিক্রমকে নিয়ে আশায় জল ঢালল নাসা!

প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: চাঁদের রাত শুরু হওয়ার আগেই চন্দ্রযান ২-এর ল্যান্ডার বিক্রমের হদিশ পেতে আশার আলো সঞ্চারিত হয়েছিল নাসার উদ্যোগে। মার্কিন মহাকাশ গবেষণাকারী সংস্থা নাসা জানিয়েছিল, তাঁদের অরবি‌টারে লাগানো ক্যামেরার নজরে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে বিক্রমের। কিন্তু নাসার তরফে স্পষ্টতই জানিয়ে দেওয়া হল, ইসরোর চিহ্নিত বিক্রমের সম্ভাব্য অবতরণস্থলের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় সেটির কোনো অস্তিত্বই ধরা পড়েনি অরবিটারের ক্যামেরায়।

গত ১০ বছর ধরে চাঁদ প্রদক্ষিণ করে চলেছে নাসার লুনার রিকনোসান্স অরবিটার (এলআরও)। নাসার গ্রহ বিজ্ঞান বিভাগের পাবলিক অ্যাফেয়ার্স অফিসার জোশুয়া ই-মেল মারফত জানান, বিক্রমের অবতরণের জায়গার পাশ দিয়ে গত মঙ্গলবার গিয়েছে লুনার রিকনোসান্স অরবিটার ক্যামেরা (এলআরওসি)।

লক্ষ্যবস্তু হিসাবে নির্ধারিত বিক্রমের অবতরণের জায়গার আশেপাশের ছবিগুলি সংগ্রহ করেছে এলআরওসি, তবে ল্যান্ডারের কোনো ছবি সেখানে ধরা পড়েনি। হয়তো বা সঠিক অবস্থানটি জানা যায়নি বলেই বিক্রমের ছবি ক্যামেরার দৃষ্টিতে ধরা পড়েনি।

গত ৭ সেপ্টেম্বর চাঁদের মাটি ছোঁয়ার কয়েক মুহূর্ত আগে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় বিক্রমের। ইসরোর তরফে জানানো হয়, চাঁদের মাটিতে অবতরণের আগে মাত্র ২.১ কিমি পথের ব্যবধানেই বদলে যায় পুরো অঙ্ক। এর পর বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ পুনর্স্থাপনে বহুবিধ ব্যবস্থা নেওয়া হয়। কিন্তু কোনো ক্ষেত্রেই ইতিবাচক সাড়া এখনও পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।

একই সঙ্গে নাসার পাবলিক অ্যাফেয়ার্স অফিসার জানান, “গত ১৭ সেপ্টেম্বর বিক্রমের অবতরণের জায়গার পাশ দিয়ে উড়েছিল এলআরও। সে সময় গোটা এলাকা কালো ছায়ায় ঢাকা ছিল।… এটা (বিক্রম) সম্ভবত ওই ছায়ার ভিতরেই থাকতে পারে”।

বিজ্ঞানীদের মতে, সূর্যের বর্তমান অবস্থানে বিক্রমকে খুঁজে বের করা ততটা সহজ নয়। এখন সেটি গভীর ছায়ায় ঢাকা পড়ে থাকতে পারে। ফলে সূর্যের অবস্থান বদল না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতেই হবে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.