Connect with us

অ্যাডভেঞ্চার

কুন্তল-বিপ্লবের মতো চিলের এক পর্বতারোহীকেও কি নিজের কাছে রেখে দিল কাঞ্চনজঙ্ঘা?

Published

on

ওয়েবডেস্ক: কুন্তল কাঁড়ার এবং বিপ্লব বৈদ্যকে হারিয়ে যখন শোকে বিহ্বল বাংলার পর্বতারোহী মহল, তখনই একই রকম শোক সুদূর লাতিন আমেরিকার দেশ চিলেতেও। কুন্তল-বিপ্লবদের সামিটের দিনই কাঞ্চনজঙ্ঘায় সামিট করতে গিয়ে হারিয়ে গেলেন সে দেশের পর্বতারোহী রোদরিগো বিবানগো।

পর্বতারোহণ এজেন্সি ‘পিক প্রোমোশন’-এর তরফ থেকে পাসাং শেরপা জানান, ক্যাম্প -৪ থেকে সামিটের পথে এগোতেই হারিয়ে গিয়েছেন রোদরিগো। তাঁকে উদ্ধারের সব রকম চেষ্টা করা হলেও, উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি বলেই জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন চিরঘুমে কুন্তল-বিপ্লব, কাঠমান্ডু উড়িয়ে আনা হল রমেশ-রুদ্রকে

রোদরিগোর এ ভাবে হারিয়ে যাওয়ার ঘটনায় শোকস্তব্ধ চিলের নাগরিক হিসেবে কাঞ্চনজঙ্ঘায় প্রথম পা রাখা পর্বতারোহী এর্নান লেয়াল। তিনি বলেন, “আজ আমাদের কাছে খুব শোকের দিন। এক দিকে আমরা ভারতের দুই পর্বতারোহী কুন্তল কাঁড়ার এবং বিপ্লব বৈদ্যকে হারিয়েছি, অন্যদিকে আমাদের সহযোদ্ধা রোদরিগোকেও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।” বিল্পব-কুন্তলের পরিবারকে সমবেদনা জানানোর পাশাপাশি রোদরিগোর দ্রুত ফিরে আসার প্রার্থনা করেছেন তিনি। তবে সেটা যে খুবই শক্ত সেটা ভালো ভাবেই বোঝেন তিনি।

অ্যাডভেঞ্চার

এভারেস্ট জয়ের ভুয়ো ছবি অভিযাত্রীর! তেনজিং পুরস্কার প্রাপ্তি নিয়ে বিতর্ক

পর্বতারোহী রুদ্রপ্রসাদ হালদারও জানাচ্ছেন, নরেন্দ্রের সঙ্গে কথা বলার সময়ে তাঁর সামিট হয়নি বলেই জেনেছিলেন।

Published

on

everest summiter
এই ছবি নিয়ে যাবতীয় বিতর্কের সৃষ্টি।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: এভারেস্ট (Mt Everest) জয় নিয়ে ভুয়ো দাবি তোলার অভিযোগ উঠল নরেন্দ্র সিংহ (Narendra Singh) নামে হরিয়ানার এক পর্বতারোহীর বিরুদ্ধে। সব থেকে বড়ো বিতর্কের বিষয়টি হল এ বছরেই অ্যাডভেঞ্চার স্পোর্টসের সর্বোচ্চ সম্মান— তেনজিং নোরগে পুরস্কার পাচ্ছেন তিনি। 

বছর চব্বিশের নরেন্দ্র ২০১৬ সালে এভারেস্ট অভিযানে গিয়েছিলেন। কিন্তু সেই অভিযানে তাঁর দলনেতা, অসমের পর্বতারোহী নবকুমার ফুকনেরই দাবি, এভারেস্ট সামিট করতেই পারেননি নরেন্দ্র!

এ বছর তেনজিং নোরগে সম্মান প্রাপকদের তালিকা সম্প্রতি ঘোষণা করে কেন্দ্র। আগামী ২৯ অগস্ট অনলাইনে পুরস্কার দেওয়ার কথা। তবে তেনজিং নোরগের ছেলে জামলিং দার্জিলিং থেকে ফোনে বলছেন, ‘‘নরেন্দ্রের দাবি সত্যি না মিথ্যা, না জেনে মন্তব্য করব না।’’

নবকুমারের বক্তব্য, ২০১৬ সালের ১৯ মে ক্যাম্প ফোর থেকে সামিট পুশে বেরোনোর আগে নরেন্দ্র জানিয়েছিলেন, তাঁদের কাছে যথেষ্ট অক্সিজেন সিলিন্ডার নেই। ফলে নরেন্দ্র এবং দলের আর এক মহিলা সদস্য সামিটের দিকে এগোননি বলেই দাবি তাঁর। ২০ মে ক্যাম্প ফোরে উপস্থিত পর্বতারোহী রুদ্রপ্রসাদ হালদারও জানাচ্ছেন, নরেন্দ্রের সঙ্গে কথা বলার সময়ে তাঁর সামিট হয়নি বলেই জেনেছিলেন।

এভারেস্ট সামিটের যে ছবি প্রকাশ করেছেন নরেন্দ্র, সেই ছবিতে অসঙ্গতি রয়েছে বলেও দাবি পর্বতারোহী মহলের। ২০১৬ সালে এভারেস্টের শীর্ষ ওই রকম দেখতে ছিল না বলেও জানাচ্ছেন অনেকেই। 

কেন্দ্রীয় যুবকল্যাণ ও ক্রীড়া মন্ত্রক সূত্রের খবর, রাজ্য যুবকল্যাণ দফতর, আইএমএফ এবং সেনাবাহিনীর তরফে পাঠানো নামের ভিত্তিতেই পুরস্কারপ্রাপকদের তালিকা চূড়ান্ত হয়েছে। 

২০১৬ সালে তাঁর এভারেস্ট সামিটের ছবি চুরি করেছেন বলে পুণের এক দম্পতির বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছিলেন সপ্তশৃঙ্গজয়ী সত্যরূপ সিদ্ধান্ত। নরেন্দ্রকে নিয়ে এই নতুন বিতর্কে তাঁর ছবি যে ছবি নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে সেটার পরীক্ষা করা হোক, তা হলেই সত্যিটা বেরিয়ে আসবে।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

টিকটক কেনার পরিকল্পনা নেই, জল্পনা উড়িয়ে জানালেন গুগল সিইও সুন্দর পিচাই

Continue Reading

অ্যাডভেঞ্চার

করোনাভাইরাস: এভারেস্টের দরজা বন্ধ করল নেপাল

Published

on

traffic jam in everest

কাঠমান্ডু: করোনাভাইরাসের (Coronavirus) আতঙ্ক এ বার পর্বতারোহণেও প্রভাব ফেলল। এভারেস্ট-সহ বিভিন্ন শৃঙ্গের দরজা আপাতত পর্বতারোহীদের জন্য বন্ধ করে দিল নেপাল।

১৪ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত পর্বতারোহণের (Expedition) যাবতীয় অনুমতিপত্র বাতিল করে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে নেপাল।

শুধুমাত্র এভারেস্ট (Mount Everest) অভিযান থেকেই প্রতি বছর ৪০ লক্ষ মার্কিন ডলার আয় করে নেপাল। এ ছাড়াও আরও অন্যান্য শৃঙ্গ বা সাধারণ পর্যটন তো রয়েছেই। কিন্তু করোনাভাইরাসের জেরে তারা যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তাতে পর্যটনশিল্প যে বিশাল বড়ো ধাক্কা খাবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

নেপালের প্রধানমন্ত্রী সচিবালয়ের তরফে জানানো হয়েছে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত কোনো পর্যটন ভিসা প্রদান করবে না নেপাল। এমনকি এভারেস্ট অভিযানের জন্য যত অনুমতিপত্র প্রদান করা হয়েছে, সবই আপাতত বাতিল করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন শেয়ার বাজারে নজিরবিহীন পতন, বন্ধ রইল কেনাবেচা

উল্লেখ্য, এই এভারেস্ট মরশুমের দিকে শুধুমাত্র নেপাল সরকারই যে তাকিয়ে থাকে তা শুধু নয়, একাধিক শেরপা পরিবারের ভরসা এই মরশুম। কিন্তু করোনা আটকাতে নেপাল যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, সেটা যে সবার কাছে একটা বড়ো ধাক্কা তা তো বলার অপেক্ষা রাখে না।

বাঙালি পর্বতারোহীদের কাছেও এই ব্যাপারটা নিঃসন্দেহের ধাক্কার। কিন্তু একটা কথা সবাই এক বাক্যে মানছেন যে শরীরস্বাস্থ্য সবার আগে।

২০১৫ সালে নেপাল ভূমিকম্পের সময়ে সাংঘাতিক ভাবে ধাক্কা খেয়েছিল এভারেস্ট মরশুম। অভিযান বাতিল করে ফিরতে হয়েছিল পর্বতারোহীদের। পাঁচ বছর পর ফের এভারেস্ট মরশুমে প্রভাব পড়ল।

Continue Reading

অ্যাডভেঞ্চার

বাঘ সংরক্ষণের বার্তা দিতে দেশ ঘুরে এ বার বিদেশে পাড়ি বাঙালি দম্পতির

Published

on

শ্রয়ণ সেন

এ বছর জুলাইয়ের কথা। দীর্ঘক্ষণ মোটরবাইক চালিয়ে ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলেন। একটু বিশ্রাম নেওয়ার জন্য একটি গাছের তলায় বাইকটিকে পার্ক করে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। সঙ্গে ছিলেন তাঁর স্ত্রীও। কিন্তু সেটা যে রথীনবাবু আর গীতাঞ্জলিদেবীর কাছে কতটা বিপদ বয়ে আনছে ঘুণাক্ষরেও টের পাননি তাঁরা।

রথীনবাবু যখন গাছের তলায় দাঁড়িয়েছিলেন, সেই সময় ওই গাছের তলায় সাইকেল নিয়ে দাঁড়িয়েছিল এক কিশোর। রথীনবাবু তার কাছে যেতেই সে দৌড়ে কাছের একটি বাড়িতে ঢুকে যায়। কিছুক্ষণ পরেই গ্রামের পুরুষ-মহিলারা ঘিরে ধরেন তাঁদের। তৈরি হয় গণপিটুনির পরিস্থিতি।

কিন্তু সে যাত্রায় কোনো ভাবে বেঁচে গেলেও, ব্যাপারটা নিয়ে বিন্দুমাত্র বিচলিত নন তাঁরা। বরং তাঁদের বিশ্বাস, যে বার্তা ছড়িয়ে দিতে তাঁরা বেরিয়েছেন, তাতে সমস্ত প্রতিকূলতা তাঁদের অতিক্রম করতেই হবে।

বিশ্ববাসীকে বাঘ সংরক্ষণের বার্তা দিতে এক অভিনব অভিযানে বেরিয়েছেন কলকাতার বাঙালি দম্পতি রথীন্দ্রনাথ দাস ও গীতাঞ্জলি দাস। ফেসবুকে রথীনবাবু, ‘ওয়াইল্ড রথীন’ হিসেবে বেশি পরিচিত।

এ বছর ফেব্রুয়ারিতে সস্ত্রীক রথীনবাবু বেরিয়েছিলেন দেশ সফরে। পৌঁছে গিয়েছিলেন দেশের তৎকালীন ২৯টা রাজ্য ও পাঁচটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে। সেই অভিযানই এ বার দেশের গণ্ডির বাইরে। আগামী মাসের শেষ দিকে, বনভূমি ও বন্যপ্রাণী, বিশেষত বাঘ সংরক্ষণের বার্তা নিয়ে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশে পাড়ি দিচ্ছেন তিনি আর গীতাঞ্জলিদেবী। 

কিছুটা প্রচারের আড়ালে থেকে অনন্য কাজ করে চলেছেন এই দম্পতি। সংবিধানের ৪-এ বিভাগের ৫১-এ (জি) অনুচ্ছেদটি রথীনবাবু মনে প্রাণে বিশ্বাস করেন। তিনি বিশ্বাস করেন যে ভারতীয় নাগরিক হিসেবে দেশের বনাঞ্চল, হ্রদ এবং বন্যপ্রাণীকে রক্ষা করা তাঁর অন্যতম কর্তব্যের মধ্যে পড়ে।

নিজের নেশাকেই তিনি পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। বন্যপ্রাণ সংরক্ষণ করে এমনই একটি সংস্থার সঙ্গে যুক্ত রথীনবাবু। পশুশিকার বিরোধী এবং বন্যপ্রাণী সংরক্ষণের বিষয়ে একাধিক কাজকর্মে তিনি নিজে হাত লাগিয়েছেন। কখনও কখনও দুঃসাহসিক কিছু অভিযানেও গিয়েছেন।

আরও পড়ুন বাঘের গহ্বরে বিকল সাফারির বাস, পর্যটকদের মধ্যে তীব্র আতঙ্ক

বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে নিজেকে নিয়োজিত করার পাশাপাশি তিনি একজন অত্যন্ত সফল বাইকারও। এই বাইক নিয়ে তিনি বেরিয়ে পড়েন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে, উদ্দেশ্য একটাই, বাঘ তথা সামগ্রিক ভাবে বন্যপ্রাণ সংরক্ষণের ব্যাপারে সাধারণ মানুষকে বার্তা দেওয়া।

এই অভিযান তিনি শুরু করেছিলেন ২০১৬ সালে। সে বছর ৩ অক্টোবর নিজের প্রাণের বাইক নিয়ে তিনি বেরিয়ে পড়েছিলেন, ফিরেছিলেন পরের বছর ১৩ ফেব্রুয়ারি। এই সফরে তাঁর মূল বার্তা ছিল, ‘জঙ্গল বাঁচাও, বন্যপ্রাণ বাঁচাও।’ এই সফরে দেশের ২৯টি রাজ্য আর পাঁচটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে মোট ২৭,১৩৮ কিমি সফর করেন তিনি। নিজের বার্তা সবার সঙ্গে ভাগ করে নিতে পৌঁছে যান ২২টি স্কুলে।  

এর পর ‘গণ্ডার বাঁচাও’-এর বার্তা নিয়ে তিনি বেরিয়ে পড়েছিলেন। পশ্চিমবঙ্গ আর অসমে মোট ২৮২২ কিমি সফর করেন তিনি। এই সফরে ১৬৭টা স্কুলে বন্যপ্রাণ সংক্রান্ত সচেতনতা শিবির করেন তিনি।

এর পর তৃতীয় সফর। “কেন বন্যপ্রাণ রক্ষা করা আমাদের কর্তব্য?”, দেশবাসীকে সেই পাঠ দিতেই বেরিয়ে পড়েন দু’ জন। ভারতের দশটি রাজ্যে প্রায় ৬০০০ কিমি সফর করে তাঁরা পৌঁছে যান ২৩২টি স্কুলে। 

প্রথম তিনটে সফরের সফলতার পর এ বার আরও বড়ো পরিকল্পনা করেন দু’ জনে। ‘জার্নি ফর টাইগার’ নামের এই সফরের মূল বার্তা ছিল, “প্রকৃতিকে বাঁচানোর জন্য বন্যপ্রাণ বাঁচাও!”

দেশ আর বিদেশ মিলিয়ে এই সফরকে মোট তিনটে ভাগে ভাগ করেন রথীন-গীতাঞ্জলি। তাঁর প্রথম ভাগের জন্য এ বছর ১৫ ফেব্রুয়ারিতে বেরিয়ে পড়েন দু’জনে। প্রথম লক্ষ্য ভারতের ২৯টা রাজ্য এবং পাঁচটা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে সফর।

কলকাতা থেকে শুরু হয়ে প্রথমে সুন্দরবন হয়ে রথীনবাবুরা চলে যান আলিপুরদুয়ারের বক্সা। সেখান থেকে উত্তরপূর্ব ভারতের ব্যাঘ্রপ্রকল্পগুলি ঘুরে, দেশের বাকি অংশে সফর করেন। এই সফরে দেশের সব ক’টি ব্যঘ্র প্রকল্পে যাওয়াই ছিল তাঁদের লক্ষ্য। তার আশেপাশের গ্রামগুলিতে বাঘ সংরক্ষণের বার্তা দিয়েছেন এই দম্পতি। তাঁদের এই অভিযানে পূর্ণ সহায়তা করেছে বিভিন্ন রাজ্যের বন্যপ্রাণ দফতরও।

১০ নভেম্বর পর্যন্ত অভিযানে ছিলেন দু’জনে। মোট ২৬৯ দিনের এই অভিযানে ৩৬৪৯২ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করেন তাঁরা। এই সফরে দেশের ৫০টি ব্যাঘ্রপ্রকল্প, ১০০-এরও বেশি অভয়ারণ্য সফর করেন তাঁরা। সচেতনতার বার্তা পৌঁছে দিতে ৩০০০টি গ্রাম আর ৬৪৩টি স্কুলে যান তাঁরা। আর এই সফর চলাকালীনই উন্মত্ত জনতার রোষের মুখেও পড়তে হয় তাঁদের।

মধ্যপ্রদেশের সাতপুরা টাইগার রিজার্ভের কাছে উন্মত্ত জনতার মুখোমুখি হয়েছিলেন দু’জনে। ওই ঘটনার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে রথীনবাবু বলেন, “‘আমরা কিডনি চোর, এমন ধারণা হয়েছিল ওঁদের। কিছুতেই ওদের বোঝাতে পারছিলাম না আমাদের উদ্দেশ্যটা। এমনকি আমার সঙ্গে যে একজন মহিলা রয়েছেন, সেটাও ওঁরা বিশ্বাস করছিলেন না।”

শেষে গ্রামেরই এক ব্যক্তির সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনের চেষ্টা করেন রথীনবাবু। তিনি বলেন, “ওই ব্যক্তিকে দেখে মনে হল উনি শিক্ষিত। বুঝলাম, ওঁকে যদি বোঝাতে পারি, তা হলে এ যাত্রায় বেঁচে যাব।”

শেষে ওই ব্যক্তির তৎপরতায় রণে ভঙ্গ দেয় উন্মত্ত ওই জনতা। ছাড়া পেয়ে যান রথীনবাবুরা।

এই ঘটনার পরেও দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরতে ভয় লাগে না?

এই বিপদেও হাল ছাড়েননি দু’জনে। বলছেন, ‘‘যে-শপথ নিয়ে বেরিয়েছি, তা শেষ করেই ফিরব।” সেই অভিযানের প্রথম অংশটি শেষ হয়েছে গত নভেম্বরেই। কিন্তু এ বার লক্ষ্য আরও বড়ো।

অভিযানের দ্বিতীয় এবং তৃতীয় অংশ শুরু হচ্ছে জানুয়ারির শেষে। এ বার তাঁদের লক্ষ্য, বাঘ রয়েছে, এশিয়ার এমন ১২টি দেশে নিজেদের বার্তা পৌঁছে দেওয়া।

আরও পড়ুন রাজস্থানের জাতীয় উদ্যানে পর্যটকদের তাড়া বাঘের, দেখুন রোমহর্ষক ভিডিও

মোট দুটি অংশে এই অভিযানকে ভাগ করেছেন তাঁরা। দ্বিতীয় অংশে মূলত আসিয়ানভুক্ত দেশ, অর্থাৎ মায়ানমার, তাইল্যান্ড, মালয়শিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম, কাম্বোডিয়া এবং লাওসে যাবেন তাঁরা। তৃতীয় তথা শেষ অংশে তাঁরা অভিযান করবেন, বাংলাদেশ, চিন, রাশিয়া, নেপাল এবং ভুটানে। প্রত্যেকটা দেশের রাজধানী ছুঁয়ে আরও গভীরে প্রবেশ করার ইচ্ছে রথীন-গীতাঞ্জলির।

তাঁদের এই অভিযানগুলির পরিকল্পনা এবং দেখভালের দায়িত্বে রয়েছে হংকং-এর এশিয়ান ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার্স ক্লাব, সাউথ এশিয়ার ফোরাম ফর এনভায়রনমেন্ট (সেফ) আর ‘এক্সপ্লোরিং নেচার’ নামক তিনটি সংস্থা।

এই অভিযান শেষ করে ফিরে আসার পর বাঘ সংরক্ষণ নিয়ে একটি বই লেখারও পরিকল্পনা রয়েছে রথীনবাবুর। তবে তার আগে তাঁর একমাত্র লক্ষ্য, উল্লিখিত দেশগুলিতে নিজের বার্তা পৌঁছে দেওয়া।

এই সফরে বেরোনোর আগে দেশবাসী তথা সারা বিশ্বের মানুষের কাছে একটা বিশেষ বার্তা দিতে চান রথীনবাবু। তিনি বলেন, “আমাদের জীবনের মূল উৎস হল জঙ্গল। কারণ জঙ্গল আছে বলেই জল, অক্সিজেন-সহ বাঁচার মূল রসদ আমরা পাচ্ছি। আর এই জঙ্গলকে বাঁচিয়ে রাখছে বন্যপ্রাণ, বিশেষত বাঘেরা। তাই বাঘ বাঁচানোর দায়িত্ব কোনো সরকারের একটা বা দু’টো দফতরের নয়, এই দায়িত্ব আমার, আপনার, আমাদের সবার। ওরা বাঁচলে, আমরাও বাঁচব।”

Continue Reading
Advertisement
দেশ2 mins ago

‘কৃষকদের মৃত্যুর পরোয়ানা’য় স্বাক্ষর করব না, রাজ্যসভায় কৃষি বিল নিয়ে বলল কংগ্রেস

দেশ1 hour ago

ব্যথার কারণ খুঁজতে হল এক্স-রে, বন্দির মলদ্বারে হদিশ মিলল চারটি মোবাইলের

দেশ3 hours ago

টানা দ্বিতীয় দিনে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যাকে ছাপিয়ে গেল সুস্থতা

দঃ ২৪ পরগনা3 hours ago

সুন্দরবন সেই তিমিরেই! ৫টি দ্বীপে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিল ‘গড়িয়া সহমর্মী’

দেশ4 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৯২৬০৫, সুস্থ ৯৪৬১২

দেশ4 hours ago

রাজ্যসভায় কৃষি বিল রুখতে মরিয়া বিরোধীরা, কতটা এগিয়ে বিজেপি?

রাজ্য6 hours ago

জাতীয় গড়ের তুলনায় রাজ্যে সুস্থতার হার অনেকটাই বেশি, কেন্দ্রের প্রশংসা

দেশ6 hours ago

কোভিড-১৯: বুধবারের পর থেকে দেশব্যাপী নমুনা পরীক্ষায় ক্রমশ অবনমন

দেশ4 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৯২৬০৫, সুস্থ ৯৪৬১২

শিল্প-বাণিজ্য2 days ago

এসবিআই এটিএমে টাকা তোলার নিয়ম বদলে গেল! দেখে নিন ওটিপি-ভিত্তিক পদ্ধতির খুঁটিনাটি বিষয়

কলকাতা3 days ago

কোভিড রুখতে অনলাইন মাধ্যমকে হাতিয়ার করছে কলকাতার একাধিক পুজো

কলকাতা3 days ago

রবীন্দ্র সরোবরে করা যাবে না ছটপুজো, খারিজ কেএমডিএর আবেদন

বিজ্ঞান3 days ago

রাশিয়ার করোনা ভ্যাকসিনে সাত জনের মধ্যে এক জনের শরীরে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া!

Wriddhiman Saha
ক্রিকেট3 days ago

হায়দরাবাদের প্রথম একাদশে কি জায়গা পাবেন ঋদ্ধিমান সাহা?

kolkata knightriders
ক্রিকেট3 days ago

আইপিএলে কলকাতা নাইটরাইডার্সের সেরা প্রথম একাদশ কেমন হতে পারে?

কলকাতা2 days ago

কয়েকটি স্টেশনে ই-পাসের সংখ্যা বাড়াচ্ছে কলকাতা মেট্রো

কেনাকাটা

কেনাকাটা23 hours ago

সংসারের খুঁটিনাটি সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এই জিনিসগুলির তুলনা নেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিজের ও ঘরের প্রয়োজনে এমন অনেক কিছুই থাকে যেগুলি না থাকলে প্রতি দিনের জীবনে বেশ কিছু সমস্যার...

কেনাকাটা4 days ago

ঘরের জায়গা বাঁচাতে চান? এই জিনিসগুলি খুবই কাজে লাগবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ঘরের মধ্যে অল্প জায়গায় সব জিনিস অগোছালো হয়ে থাকে। এই নিয়ে বারে বারেই নিজেদের মধ্যে ঝগড়া লেগে...

কেনাকাটা1 week ago

রান্নাঘরের জনপ্রিয় কয়েকটি জরুরি সামগ্রী, আপনার কাছেও আছে তো?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরের এমন কিছু সামগ্রী আছে যেগুলি থাকলে কাজ করাও যেমন সহজ হয়ে যায়, তেমন সময়ও অনেক কম খরচ...

কেনাকাটা2 weeks ago

ওজন কমাতে ও রোগ প্রতিরোধশক্তি বাড়াতে গ্রিন টি

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ওজন কমাতে, ত্বকের জেল্লা বাড়াতে ও করোনা আবহে যেটি সব থেকে বেশি দরকার সেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা...

কেনাকাটা2 weeks ago

ইউটিউব চ্যানেল করবেন? এই ৮টি সামগ্রী খুবই কাজের

বহু মানুষকে স্বাবলম্বী করতে ইউটিউব খুব বড়ো একটি প্ল্যাটফর্ম।

কেনাকাটা3 weeks ago

ঘর সাজানোর ও ব্যবহারের জন্য সেরামিকের ১৯টি দারুণ আইটেম, দাম সাধ্যের মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘর সাজাতে কার না ভালো লাগে। কিন্তু তার জন্য বাড়ির বাইরে বেরিয়ে এ দোকান সে দোকান ঘুরে উপযুক্ত...

কেনাকাটা4 weeks ago

শোওয়ার ঘরকে আরও আরামদায়ক করবে এই ৮টি সামগ্রী

খবর অনলাইন ডেস্ক : সারা দিনের কাজের পরে ঘুমের জায়গাটা পরিপাটি হলে সকল ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। সুন্দর মনোরম পরিবেশে...

kitchen kitchen
কেনাকাটা1 month ago

রান্নাঘরের এই ৮টি জিনিস কাজ অনেক সহজ করে দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজকাল রান্নাঘরের প্রত্যেকটি কাজ সহজ করার জন্য অনেক উন্নত ব্যবস্থা এসে গিয়েছে। তা হলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কষ্ট...

care care
কেনাকাটা1 month ago

চুল ও ত্বকের বিশেষ যত্নের জন্য ১০০০ টাকার মধ্যে এই জিনিসগুলি ঘরে রাখা খুবই ভালো

খবরঅনলাইন ডেস্ক : পার্লার গিয়ে ত্বকের যত্ন নেওয়ার সময় অনেকেরই নেই। সেই ক্ষেত্রে বাড়িতে ঘরোয়া পদ্ধতি অনেকেই অবলম্বন করেন। বাড়িতে...

কেনাকাটা1 month ago

ঘর ও রান্নাঘরের সরঞ্জাম কিনতে চান? অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ৫০% পর্যন্ত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্ক : অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ঘর আর রান্না ঘরের একাধিক সামগ্রিতে প্রচুর ছাড়। এই সেলে পাওয়া যাচ্ছে ওয়াটার...

নজরে