সানি চক্রবর্তী :

প্রথম লেগে জিতে হাতে রয়েছে এক গোলের অ্যাডভান্টেজ। তার উপরে বিপক্ষ দলের সব থেকে ভয়ংকর খেলোয়াড় নেই নির্বাসনের কারণে। এ রকম জায়গায় অনেকেই চাইবেন সেফ খেলে ফাইনালটা পাকা করতে। এটিকে কোচ মোলিনা যদিও সোমবার মুম্বইয়ের সাংবাদিক সম্মেলনে সেই রাস্তায় হাঁটতে নারাজ। স্রেফ ড্র করে টাই বের করা নয়। মুম্বই সিটির বিরুদ্ধে দ্বিতীয় লেগেও জেতাটাই যে লক্ষ্য পরিষ্কার করে দিলেন মোলিনা।

নিজে গোলরক্ষক ছিলেন, তাই কতটা আক্রমণাত্মক খেলার দিকে ঝুঁকবেন সন্দেহ ছিল। প্রয়োজনে মাপা রিস্ক ছাড়া খুব একটা সেই পথে হাঁটেননি বটে। তবে প্লে অফে যেন অন্য মোলিনার দেখা মিলছে। একের পর এক স্টেপ আউট করছেন তিনি, আর এমন সব সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন ও ফসল তুলে আনছেন তা দেখে হতবাক সকলেই। পাশাপাশি নিজের রক্ষণকে আড়াল করে বিপক্ষ দলের ঘা যেন খুঁচিয়ে দিয়ে গেলেন। গত দু’ম্যাচে ফ্রিকিকে গোল খেয়েছে তার দল। এই ম্যাচে কী পরিকল্পনা জানতে চাওয়া হয়েছিল। বললেন, “মাঝে কয়েক দিনের সময়ে কাজ করেছি। তবে আগের ম্যাচে তো ফোরলানের দু’টো ফ্রিকিকে গোল হয়েছিল, ও তো নেই তাই সে রকম চিন্তা নেই।” এই ম্যাচে তাঁর দল ড্র নয়, নামবে জয়ের লক্ষ্যেই, সেটাও জানালেন নিজেই। বলে গেলেন, “একই মানসিকতা নিয়ে নামব। প্রথম লেগের মতোই গোল করে ম্যাচ জেতাই লক্ষ্য থাকবে। কালকের ম্যাচেই তা দেখতেও পাবেন। জমাট রক্ষণ, বলের দখল রেখে গোলের চেষ্টা। এই স্ট্র্যাটেজি আমাদের বরাবরই, এই ম্যাচেও যা পালটাবে না।”

মোলিনা যে বরাবরই রক্ষণের দিকে বেশি জোর দেন, তা বোঝা গিয়েছে। কিন্তু তাঁর দলের ডিফেন্স ভুগিয়েছে বারবার। পাশাপাশি প্রথমে সোরেনো, এখন অর্ণবের চোটে বারংবার তাকে পালটাতে হয়েছে ব্যাকলাইন। গত ম্যাচে কিংশুক-প্রবীররা যদিও ভালোই পরিস্থিতি সামলেছেন। তবে দু’টি গোলই যে এটিকে শিবির হজম করেছে, তার ক্ষেত্রে ডিফেন্সকে দায়ী করতে হবে। এত দিন ডিফেন্স নিয়ে সাবধানী মন্তব্য করলেও সোমবার ফের একবার স্টেপ আউট করে মোলিনার বক্তব্য, “আইএসএলে এ বারে ১৫ ম্যাচে আমরা হেরেছি ২টোতে। আমার কাছে যা দারুণ ব্যাপার। তবে যা হয়ে গিয়েছে তা অতীত। আগামী কাল নতুন ৯০ মিনিটের লড়াই। যেখানে জিততেই ছেলেরা মাঠে নামবে।”

অন্য দিকে, মুম্বই শিবিরও আশাবাদী হিসেব-নিকেশ উলটে দেওয়ার ব্যাপারে। ফোরলানের অভাব ঢেকে দিয়ে দল দুই গোলের ব্যবধানে জিততে সক্ষম বলেই মনে করেন মুম্বই সিটি এফসির কোচ আলেকজান্দ্রে গুইমারায়েস। তবে এক দিকে, ফোরলানের না থাকাটা শাপে বর হয়ে দাঁড়াতে পারে মুম্বইয়ের কাছে। এত দিন আক্রমণে একাধিক যোগ্য বিদেশি থাকায় প্রথম একাদশে নিয়মিত স্থান পাচ্ছিলেন না সনি নর্ডি। এ দিনের ম্যাচে থাকবেন তিনি। আর নর্ডি ঠিক কী করতে পারেন, কলকাতার ফুটবলপ্রেমীদের তা নতুন করে বলে দিতে হবে না। তেমনই তাদের মনে করিয়ে দেওয়ার প্রয়োজন নেই, বড়ো ম্যাচে বারবার জ্বলে ওঠার জন্যই ভারত দলনায়ক সুনীল ছেত্রীর সুনাম। তাই মাঠে বল গড়ানোর পরে ৯০ মিনিট না কাটা পর্যন্ত এটিকের কোচি যাওয়া হবে কি না বলা ততটা সোজা হবে না।

তবে মোলিনার দর্শনে কিছুটা আত্মবিশ্বাসী থাকতে পারেন এটিকে সমর্থকরা। প্রথম থেকে স্প্যানিশ কোচের লক্ষ্য থাকে জয়ের লক্ষ্যে ঝাঁপানো, একান্ত তা না হলে ড্র করাটা চাই ই চাই তাঁর। গোটা মরশুমে সেই ড্র-র টানা ধারা উপহার দিয়ে সমর্থকদের এক সময়ে নিরুৎসাহিত করে তুলেছিলেন তিনি, কিন্তু এখন সেই লক্ষ্যেই যেন কলকাতা সফল হোক, চাইছেন সকলে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here