সেরেনাকে চমকে দিয়ে ইউএস ওপেন খেতাব অনামী বায়াঙ্কার

0
জয়ের পর বায়াঙ্কা। ছবি সৌজন্যে ইন্ডিয়া টুডে।

নিউ ইয়র্ক: শেষরক্ষা হল না। এ বারের ইউএস ওপেনে নিজের তরীটা বেশ তরতর করে বয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন সেরেনা। কিন্তু চরমসীমায় যে একজন বিধ্বংসী প্রতিপক্ষ অপেক্ষা করে আছেন, তা বুঝতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত সেই প্রতিপক্ষের কাছেই আত্মসমর্পণ করলেন তিনি। ইউএস ওপেনে ম্যাচ জয়ের ক্ষেত্রে আপাতত ভাঙা হল না ক্রিস এভার্টের রেকর্ড।

আরও পড়ুন ইতালীয় প্রতিপক্ষকে হারিয়ে ইউএস ওপেনের ফাইনালে নাদাল

শনিবার রাতে ইউএস ওপেনে মেয়েদের সিঙ্গলস ফাইনালে ৩৮ বছরের সেরেনা উইলিয়ামস হেরে গেলেন কানাডার টিনএজার বায়াঙ্কা আন্দ্রেস্কুর কাছে। খেলার ফল আন্দ্রেস্কুর অনুকূলে ৬-৩, ৭-৫। জীবনের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতে চুরমার করে দিলেন সেরেনার স্বপ্ন। গ্র্যান্ড স্ল্যাম জেতার খরা কাটাতে পারলেন না সেরেনা। শেষ গ্র্যান্ড স্ল্যাম খেতাব জিতেছিলেন ২০১৭-এর অস্ট্রেলিয়া ওপেনে। সেই সঙ্গে ২৪টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম জেতার রেকর্ডও অধরা থেকে গেল।

এ বার একটু বায়াঙ্কার কথা বলা যাক। ১৯ বছরের বায়াঙ্কার খেলার ধরনটা ঠিক সেরেনারই মতো – তাঁরই মতো দুর্দান্ত সার্ভ, দুর্দান্ত হিট আর একেবারে প্রতিপক্ষের চোখে চোখ রেখে খেলা। তফাত শুধু একটাই – সেরানা ৩৮, বায়াঙ্কা ১৯।আর গ্র্যান্ড স্ল্যাম ফাইনালে দুই প্রতিপক্ষের বয়সের ফারাকে এটাও একটা রেকর্ড। কানাডা থেকে বায়াঙ্কাই প্রথম খেলোয়াড় যে টেনিসের বড়ো টুর্নামেন্টে সিঙ্গলস খেতাব জিতল।

প্রথম সেট দু’টো ব্রেক করে ৬-৩ ফলে সহজেই জিতে নেন বায়াঙ্কা। দ্বিতীয় সেটে ৫-১-এ এগিয়ে ছিলেন বায়াঙ্কা। শেষ গেম বায়াঙ্কার অনুকূলে ৪০-৩০। অর্থাৎ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য একটা ম্যাচ পয়েন্ট দরকার। এখানেই সেই পুরোনো সেরেনা জ্বলে উঠলেন।ঘন্টায় ১০৫ মাইল বেগে সার্ভ। পর পর চারটে গেম জিতে খেলার ফল করলেন ৫-৫। তার পর যা হওয়ার হল। শেষরক্ষা হল না। সেই সেট বায়াঙ্কা জিতে নিলেন ৭-৫-এ। ইউএস ওপেনে মহিলাদের টেনিসে নতুন তারকার জন্ম হল।

ম্যাচের পর সেরেনা বলেন, “দ্বিতীয় সেটে একটা শেষ চেষ্টা করেছিলাম, প্রতিপক্ষের জয় যতক্ষণ ঠেকিয়ে রাখা যায়।”

আর্থার অ্যাশ স্টেডিয়াম সেরেনার পক্ষে ছিল এবং সেটাই স্বাভাবিক। একে সেরেনা, তায় ঘরের মেয়ে। যখনই সেরেনা কিছু করছিলেন, গোটা স্টেডিয়াম চিৎকারে ফেটে পড়ছিল। এতটাই চিৎকার যে বায়াঙ্কাকে কানে হাত চাপা দিতে হয়েছিল। কিন্তু দর্শকদের সেই চিৎকার জেতাতে পারল না তাঁদের প্রিয় সেরেনাকে।

জেতার পর বায়াঙ্কা আন্দ্রেস্কু বললেন, “টেনিসের কিংবদন্তি বলতে যা বোঝায় সেরেনা তা-ই। এই মঞ্চে ওঁর বিরুদ্ধে খেলা, ভাবাই যায় না। খেলাটা খুব সহজ ছিল না।শেষ পর্যন্ত যে ভাবে ম্যানেজ করলাম, তাতেই আমি খুশি।”

কল্পনা করুন, এই বায়াঙ্কা আন্দ্রেস্কু তাঁর সংক্ষিপ্ত কেরিয়ারে মাত্র চারটি বড়ো টুর্নামেন্ট খেলেছেন। আর এক বছর আগে তিনি ইউএস ওপেনের কোয়ালিফাইং রাউন্ডের প্রথম ম্যাচেই হেরে গিয়েছিলেন।   

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.