deepak

ওয়েবডেস্ক: ঘরোয়া ক্রিকেটে উজ্জ্বল পারফরমেন্সের জেরে ভারতীয় ক্রিকেট দলে নতুন মুখদের রমরমা। সেই তালিকায় আগামী দিনে সংযোজিত হতেই পারেন দীপক ধাপোলা। কে এই দীপক? চলতি রঞ্জি ট্রফিতে ২ ম্যাচে ২১ উইকেট নিয়েছেন এই পেস বোলার। উত্তরাখণ্ডের হয়ে।

অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে তাঁকে। দিল্লিতে ন’বছর প্রচুর পরিশ্রম করেছেন। ২০১৬-১৭ মরশুমে রঞ্জি ক্যাম্পে এলেও সুযোগ পাননি। তবে চলতি বছর উত্তরাখণ্ডের হয়ে নিজেকে প্রমাণ করার সুযোগ পেয়েছেন। যার জন্য কোচ রাজকুমার শর্মাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন দীপক। রাজকুমার ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলিকেও কোচিং করিয়েছেন।

আরও পড়ুন: ওকে থামানো যাবে না, কোন ব্যাটসম্যান সম্পর্কে বলছে অস্ট্রেলিয়া

হিন্দুস্থান টাইমসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে দীপক জানান, “হ্যাঁ ওই ন’বছর খুব শক্ত ছিল। আমি অনুশীলন করে গিয়েছিলাম। বিরাট কোহলিও এসে আমাদের সঙ্গে অনুশীলন করেছিল এবং আমার বোলিং দেখে খুব খুশি হয়েছিল। বিরাট বলেছিল, পরিশ্রম করে যাও, ভালো হবে। ওর কথাগুলি আমাকে এগোতে সাহায্য করেছে। যদি সাধারণ মানুষের আপনার ওপর আশা থাকে তা হলে সেটা বিশাল পাওনা। আপনি তাদের ঠিক প্রমাণ করতে মরিয়া। সত্যি কথা বলতে শেষ দু’বছর ভালো ছিল না। বয়স এবং সঠিক সময় বলের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। এবং আমি সুযোগও পাচ্ছিলাম না। যেটা আমাকে খুব ভাবাচ্ছিল। কিন্তু তখনই রাজকুমার স্যার আমাকে এগোতে সাহায্য করেন। ওঁকে ধন্যবাদ জানানোর জন্য আমার কোনো ভাষা নেই।”

দীপক আরও বলেন, “আমি সঠিক জায়গাগুলিতে বল রাখার চেষ্টা করি। লেংথ ঠিক রাখি। ব্যাটসম্যানদের সুযোগ দিই না এগোতে বা পিছোতে। আমি বল বেশি সুইং করাই না। তবে পেস রাখার চেষ্টা করি। যাতে পিচের দু’ দিকেই বল রাখতে পারি। বিন্দাস হয়ে বল রাখি। ব্যাটসম্যানদের সমস্যায় ফেলি।”

তাঁর রঞ্জি দল তথা উত্তরাখন্ডের কোচ কেপি ভাস্কর, যিনি দিল্লিরও কোচ ছিলেন, বলেন, “এই লেভেলে ও নতুন। তবে ও অভিজ্ঞ বোলার। দিল্লি, কলকাতা অনেক জায়গায় ও খেলেছে। দিল্লিতে যে স্ট্যান্ডার্ড রয়েছে তাতে আপনাকে ভালো হতেই হবে। দীপকের স্কিল আছে। লাইনটাও সুন্দর। বেশি লুজ বল দেয় না। পেসটাও মোটামুটি ভালো। বলকে দু’ দিকেই মুভ করাতে পারে, যেটা একমাত্র সম্ভব ভালো করে পরিশ্রম করলে।”

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here