Aleem dar
Arunava-Gupta
অরুণাভ গুপ্ত

২০১৫ বিশ্বকাপ ক্রিকেট মঞ্চ সাজানোর যৌথ ভাবে দায়িত্ব ছিল অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের উপর। ভারত খেলছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে। দাঁড়িপাল্লার ওজনে খাতায়-কলমে ভারতের থেকে কম হলেও লড়াই করার মানসিকতায় একেবারে টপ গিয়ারে। উপরে ওঠার রাস্তায় বাংলাদেশ কাঁটা বিছোতে ওস্তাদ। কোয়ার্টার ফাইনালে এহেন বাংলাদেশ ভারতের সঙ্গে টক্করে ময়দানে।

বিশ্বকাপের বারান্দায়/ ১৬

যে ভয় ছিল, তাই হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিল। ২৮ ওভারে ভারত ১১৫ রান, তাও আবার তিন উইকেট খুইয়ে। রোহিত শর্মা এবং সুরেশ রায়না ক্রিজে তখন কিছুটা থিতু হয়ে ভাঙন রুখে ভারতকে সম্মানজনক অবস্থায় রাখা চেষ্টা করছেন। এমন সময় ডিপ মিড-উইকেটে ফিল্ডারের হাতে ধরা পড়লেন রোহিত শর্মা। বাংলাদেশ ক্রিকেটারদের উচ্ছ্বাস হতে না হতেই থমকে গেল। আম্পায়ার আলিম দার ‘নো বল’ ডেকেছেন।

কিন্তু রিপ্লে-তে দেখা যাচ্ছে, একেবারে আইনসিদ্ধ বল হয়েছে, মোটেই বলের উচ্চতা মানে লাফিয়ে ওঠা আইনবিরুদ্ধ ছিল না, সে ক্ষেত্রে পারফেক্ট ডেলিভারি। আলিমদারের কৃপায় সে যাত্রায় বেঁচে রোহিত করলেন ১৩৭ রান, এবং ভারত ম্যাচ জিতল ১০৯ রানের ব্যবধানে।

আইসিসির তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ছিলেন বাংলাদেশি মুস্তাফা কামাল। এ সব দেখেশুনে মেজাজ হারিয়ে ক্ষোভে ফেটে অভিযোগ করেন, “নির্ঘাত এখানে গড়াপেটা হয়েছে এবং আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত দেখে মনে হয় এটা পূর্বপরিকল্পিত”।

এখানে না থেমে তিনি আর সাফ জানিয়ে দেন- “আমি পদত্যাগ করব এবং আইসিসির পরবর্তী সভায় এটা আলোচ্য বিষয়বস্তুর তালিকায় রাখার ইচ্ছা রইল”।

ঘটনাচক্রে এ বারের ২০১৯ বিশ্বকাপের আসরে বাংলাদেশ বনাম আফগানিস্তান ম্যাচে আলিম দার সাকিব আল হাসানকে এলবিডব্লিউ আউট দিলে সাকিব ডিআরএস পদ্ধতিতে প্রাণ ফিরে পান এবং অর্ধশতক করেন। বাংলাদেশ ম্যাচ জেতে।

মঙ্গলবারের ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচে অবশ্য মাঠে আম্পায়ারিংয়ের দায়িত্বে রয়েছেন মারে ইরাসমাস এবং রুচিরা পাল্যগুরুগে। কিন্তু টেলিভিশন আম্পায়ার সেই আলিম দার!

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here