Connect with us

ক্রিকেট

রবিবারের পড়া ২ / রানআউটে শুরু, রানআউটেই শেষ…

ধোনি কিন্তু নিজের মর্জিমাফিক চলেন বোঝা যায়। টেস্ট থেকে যেমন আচমকা অবসর ঘোষণা করেছিলেন, তেমনই সীমিত ওভারের ক্রিকেট থেকে যখন অবসর ঘোষণা করলেন তখন তাঁর জন্য একটি বিদায় ম্যাচের আয়োজন করারও উপায় নেই।

Published

on

শ্রয়ণ সেন

১০ জুলাই ২০১৯। নিউজিল্যান্ডের মার্টিন গাপ্টিলের দুরন্ত একটা থ্রো শেষ করে দিল ১৩০ কোটির স্বপ্ন। একটুর জন্য ক্রিজের ভেতরে ঢুকতে পারেনি তাঁর ব্যাট, আর তাতেই সব স্বপ্নের জলাঞ্জলি।

বরাবরের আবেগহীন মহেন্দ্র সিংহ ধোনি সে দিন কিন্তু নিজের আবেগকে চেপে রাখতে পারেননি। প্যাভিলিয়নে ফেরার সময়ে তাঁর চোখে জল দেখা গিয়েছিল স্পষ্ট। ভারতকে জয়ের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়ে ধোনির ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসার ঘটনা ভারতীয় ক্রিকেটে খুব একটা ঘটেনি, কিন্তু সে দিন হয়েছিল।

গত দু’ বছর ধরেই ধোনির ফর্ম পড়ে গিয়েছিল। শেষের দিকে নেমে রান পেলেও আগের মতো সেই আগ্রাসী ব্যাটিংয়ের ধোনি কোথায় যেন হারিয়ে গিয়েছিলেন। তবুও একটা স্বপ্ন ছিল, ধোনির হাত ধরেই ভারত আরও একবার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হবে।

কিন্তু সেই সব স্বপ্ন শেষ করে দিল সেই দুঃস্বপ্নের রানআউট। রানআউট হওয়ার আগে ওই ম্যাচটায় খারাপ খেলেননি ধোনি। অর্ধশতরান করেছিলেন। কিন্তু ভারতের ব্যর্থতায় সেই সব কিছুই চাপা পড়ে গেল।

ধোনি কিন্তু ভারতের হয়ে আর কোনো ম্যাচ খেলেননি। তাঁর অবসরের ঘোষণা ছিল শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা। তবুও আশায় ছিলেন ক্রিকেটভক্তরা। যদি কোনো ভাবে নিজের মত বদল করেন তিনি।

সেই সেমিফাইনালে রানআউটের মধ্যে দিয়ে শেষ হওয়া কেরিয়ারের সুচনাও হয়েছিল রানআউট দিয়েই।

সেটা ২০০৪-এর ডিসেম্বর। ঘরোয়া ক্রিকেটে তখন ফুলিঝুরি ঝরাচ্ছেন বছর ২৩-এর ধোনি। রাহুল দ্রাবিড়ের ওপর থেকে ভার কিছুটা হালকা করার জন্য একদিনের ক্রিকেটে ভারতের দরকার ভালো নির্ভরযোগ্য উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান। অধিনায়ক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের জোরাজুরির কারণে বাংলাদেশ সফররত ভারতের একদিনের দলে ধোনিকে জায়গা দিতে বাধ্য হলেন নির্বাচকরা।

[চট্টগ্রামের অভিষেক ম্যাচে রানআউট ধোনি]

কিন্তু শুরুটা যে ভালো হল না ধোনির। চট্টগ্রামে প্রথম ম্যাচে ব্যাট করতে নেমেই রানআউট। খাতা খোলার সুযোগই এল না তাঁর কাছে। ঘরোয়া ক্রিকেটে মোটামুটি নাম করে ফেলা ধোনির এ হেন অভিশপ্ত অভিষেক কেউ কল্পনাই করতে পারেননি।

তবে ধোনিকে নিজের জাত চেনাতে লাগল মাত্র পাঁচটা ম্যাচ। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে একদিনের ম্যাচ ছিল সেটা। ফাটকা খেলে তিন নম্বরে ধোনিকে নামিয়েছিলেন সৌরভ। আর তাতেই বাজিমাত। ১২৩ বলে ১৪৮ রানের দুর্ধর্ষ একটি ইনিংস। ব্যাস, তার পর আর তাঁকে ফিরে তাকাতে হয়নি।

[বিশাখাপত্তনমে শতরানের পর]

কয়েক মাসের মধ্যেই আবারও ধোনি-তাণ্ডব। এ বার জয়পুরে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে। তাঁর ব্যাট থেকে বেরোল অপরাজিত ১৮৩ রানের দুর্ধর্ষ একটা ইনিংস।

এর পর টেস্ট ক্রিকেটেও নিয়ে আসা হল ধোনিকে। আর সেখানেও কয়েক মাস পরেই বাজিমাত। ২০০৬-এর পাকিস্তান সফরে ফৈজলাবাদ টেস্টে শোয়েব আখতারদের ঠেঙিয়ে ১৪৮ রানের তুখোড় একটি ইনিংস। ঝাঁকড়া চুলের ধোনি তত দিনে গোটা বিশ্বে পরিচিত হয়ে গিয়েছেন। তাঁর চুলের জন্য ফ্যান হয়ে গিয়েছেন স্বয়ং পাকিস্তানের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট পরভেজ মুশারফ। ধোনিকে চুল না কাটারও আবদার করেছিলেন মুশারফ। যদিও পরের বছরই সেই চুল ছেঁটে ফেলেন মাহি।

[ফৈজলাবাদ টেস্টে শতরান করে ধোনি]

আসলে দায়িত্ব বাড়তেই এই বাড়তি বোঝা নিজের শরীরের ওপর থেকে ঝেড়ে ফেলেন ধোনি। ধোনি তত দিনে ভারতের অধিনায়ক হয়ে গিয়েছেন। অধিনায়কের কেরিয়ারের শুরুতেই বাজিমাত।

২০০৭-এ ৫০ ওভারের ক্রিকেট বিশ্বকাপে ভারতের গ্রুপ লিগেই বিদায়ের পর কেউ ভাবতেই পারেনি যে ওই বছরের সেপ্টেম্বরে টি২০ বিশ্বকাপে ভারত আদৌ ভালো ফল করতে পারবে বলে।

সম্ভবত নির্বাচকদেরও বেশি আশা ছিল না। আর তাই সৌরভ-সচিন-দ্রাবিড়দের বাদ দিয়ে পুরোপুরি যুবদল ভারত পাঠায় দক্ষিণ আফ্রিকায় টি২০ বিশ্বকাপের জন্য। অধিনায়ক করা হয় ধোনিকে। ওই দলে বেশি অভিজ্ঞতার যুবরাজ থাকলেও নির্বাচকরা ভরসা করেন ধোনির ওপরেই। আর এটাই হয়ে যায় এক যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত।

[২০০৭-এ টি২০ বিশ্বকাপে জয়ের পর]

ধোনির নেতৃত্বে টি২০ বিশ্বকাপ ঘরে তোলে ভারত। টুর্নামেন্টের ফাইনালে পাকিস্তান, সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়া, তার আগে ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দলকে হারিয়ে নজির তৈরি করে ভারত। এই বিশ্বজয়ের পরেই ভারতের একদিনের আর টেস্ট দলের দায়িত্ব ছেড়ে দেন রাহুল দ্রাবিড়। একদিনের অধিনায়কের কুর্সিতেও বসে পড়েন ধোনি।

তার পরেই ভারতীয় ক্রিকেটের এক স্বর্ণযুগের শুরু। কার্যত ‘ম্যান উইথ দ্য মিডাস টাচ’ হয়ে যান ধোনি। ২০০৮-এ অনিল কুম্বলের অবসরের পরে টেস্ট দলের দায়িত্বও তাঁর হাতে চলে আসে।

একদিনের দলকে নিজের মতো করে তৈরি করতে গিয়ে বেশ কিছু অপ্রিয় সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছিল তাঁকে। সৌরভ আর দ্রাবিড়ের মতো সিনিয়রদের একদিনের দল থেকে বাদ দিয়েছিলেন। প্রবল সমালোচিত হয়েছিলেন বিভিন্ন জায়গায়। কিন্তু তাঁর হাতে তৈরি ভারতীয় দল ফল দিয়েছিল।

ধোনি যে ভাবে একদিনের দল তৈরি করতে চেয়েছিলেন, সেটাই করেছিলেন। আর তার ফলস্বরূপ ২০১১-তে বিশ্বজয়।

[২০১১-এ বিশ্বকাপের ট্রফি নিয়ে ধোনি]

নিঃসন্দেহে ধোনির কেরিয়ারে সব থেকে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে ভারতের এই বিশ্বজয়। এর ঠিক দু’ বছরের মাথায় আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতেও দখল নিল ভারত। ধোনিই প্রথম অধিনায়ক যিনি আইসিসির তিনটে টুর্নামেন্টেই নিজের দেশকে চ্যাম্পিয়ন করেন।

পরিসংখ্যানের দিক দিয়ে ভারতের সব থেকে সফল অধিনায়ক হয়ে যান ধোনি। সৌরভের রেকর্ড ভেঙে টেস্টে সর্বাধিক জয়ের রেকর্ডেরও মালিক হন অধিনায়ক ধোনি, পরবর্তীকালে যে রেকর্ডের দখল নিয়েছেন বিরাট কোহলি।

কিন্তু এর মধ্যে একটি বিতর্কও থেকে যায়। পরিসংখ্যানের দিক থেকে সব থেকে সফল অধিনায়ক হলেই কি তাঁকে সফল বলা চলে?

বিদেশে টেস্ট জয়ের নিরিখে ধোনি কিন্তু সৌরভ আর বিরাট কোহলির থেকে পিছিয়েই শেষ করলেন। বিদেশের মাঠে ২৫টা টেস্টে নেতৃত্ব দিয়ে মাত্র ৬টায় ভারতকে জিতিয়েছেন ধোনি। ভারত হেরেছে ১১টি টেস্টে।

তবে ধোনির টেস্ট ক্রিকেট খুব একটা প্রিয় ছিল না, সেটা তিনি বুঝিয়ে দেন ২০১৪-এর ডিসেম্বরে। মাত্র ৩৩ বছর বয়সে সবাইকে চমকে দিয়ে টেস্ট থেকে নিজের অবসরের কথা ঘোষণা করেন মাহি। এর পর শুধুই সীমিত ওভারের ক্রিকেটে মনোনিবেশ করেন তিনি।

২০১৫-এর বিশ্বকাপে ধোনির নেতৃত্বে ভারত সেমিফাইনাল পর্যন্ত পৌঁছে যায়। গোটা টুর্নামেন্টে ভারত একটা মাত্র ম্যাচেই হেরেছিল। অস্ট্রেলিয়ার কাছে সেমিফাইনালে।

এর পরের বছরের এক্কেবারে শেষলগ্নে একদিনের ম্যাচের অধিনায়কত্বও ছেড়ে দেন মাহি। বিরাট কোহলির কাঁধে দায়িত্ব চলে আসে। তবে বকলমে ভারতের অধিনায়ক ধোনিই ছিলেন, সেটা পরতে পরতে বোঝা গিয়েছে। উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়ে ধোনিকে অনেক বার ফিল্ড সেট করতে দেখা গিয়েছে।

বিরাট কোহলিও ধোনিকে অসম্ভব ভরসা করতেন। আর সেই কারণেই শেষ দু’ বছর তাঁর ব্যাটিং ফর্ম পড়ে গেলেও ধোনি সম্পর্কে কোনো বিরূপ ধারণা তৈরি হয়নি কোহলির। অধিনায়কের ব্যাকিং সব সময়ে পেয়ে গিয়েছিলেন ধোনি। এমনকি ক্রিকেটবিশ্ব যখন ধোনির সমালোচনায় মুখর, তখন তার জবাব কোহলিই দিয়েছেন।

কিন্তু যতই অধিনায়কের সমর্থন থাকুক, ধোনির নিজের ফর্ম যে পড়তির দিকে সেটা তিনিও সম্ভবত বুঝতে পারছিলেন। তবুও তাঁর আশা ছিল ভারতকে আরও একবার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন করেই ক্রিকেট মাঠকে বিদায় জানাবেন তিনি।

কিন্তু মার্টিন গাপ্টিলের একটা রানআউট তাঁর সেই স্বপ্ন পূরণ করতে দিল না। রানআউটে শুরু হওয়া একটি কেরিয়ার শেষ হল রানআউটের মধ্যে দিয়েই।

[যে রানআউটে শেষ হয়ে গেল ১৩০ কোটির স্বপ্ন]

ধোনি কিন্তু নিজের মর্জিমাফিক চলেন বোঝা যায়। টেস্ট থেকে যেমন আচমকা অবসর ঘোষণা করেছিলেন, তেমনই সীমিত ওভারের ক্রিকেট থেকে যখন অবসর ঘোষণা করলেন তখন তাঁর জন্য একটি বিদায় ম্যাচের আয়োজন করারও উপায় নেই।

তবুও আমরা চাই, আপামর ক্রিকেটভক্ত চায়, ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনও চান, অন্তত একটা ফেয়ারওয়েল ম্যাচ খেলুন ধোনি। করোনার দাপট কমে গেলে সামনের বছর দর্শকভরতি কোনো স্টেডিয়ামেই হোক এই ম্যাচ।

আপাতত চেন্নাই সুপারকিংসের হলুদ জার্সিতে দেখা যাবে ধোনিকে। কিন্তু নীল জার্সির মাহাত্ম্য যে সব সময় আলাদা।

২০১১-এর বিশ্বকাপের ফাইনালে ছয় মেরে ভারতকে জেতানোর সময়ে রবি শাস্ত্রীর বিখ্যাত ধারাবিবরণীটা এখনও মনে পড়ে, “ধোনি ফিনিসেজ অফ ইন স্টাইল!”

সেটাই কিন্তু এ বারও হল। একবারে নিজস্ব ঢঙে, নিজস্ব কায়দায় কেরিয়ার শেষ করলেন মাহি।

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ক্রিকেট

শুভমান গিলের ব্যাটে ভর করে আইপিএলে খাতা খুলল কেকেআর

হায়দরাবাদের হয়ে এ দিন ৩০ রান করেন ঋদ্ধিমান সাহা।

Published

on

shubhman gill
চ্যালেঞ্জিং পিচে কী ভাবে নিজের ইনিংসকে টেনে নিয়ে যেতে হয়, সেটা এ দিন বোঝালেন গিল।

হায়দরাবাদ ১৪২-৪ (মনীশ ৫১, ওয়ার্নার ৩৬, রাসেল ১-১৬)

কেকেআর ১৪৫-৩ ( শুভমান ৭০ অপরাজিত, মর্গ্যান ৪২ অপরাজিত, রশিদ খান ১-২৫)

খবরঅনলাইন ডেস্ক: তাঁদের দু’জনের আবির্ভাব একই মঞ্চে ঘটেছিল। ২০১৮-এর অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপে। কিন্তু পৃথ্বী শ-এর প্রচারের কাছে কিছুটা যেন চাপা পড়ে যাচ্ছিলেন শুভমান গিল। জাতীয় দলে দু’একটা সুযোগ পেলেও সে ভাবে তিনি সেটাকে কাজে লাগাতে পারেননি। সেই শুভমান গিলের ব্যাটে ভর করেই শনিবার আইপিএলের প্রথম ম্যাচটি জিতল কলকাতা নাইটরাইডার্স।

বেঙ্গালুরুর বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচে মিডিল অর্ডার ভয়ংকর ভাবে ভেঙে পড়েছিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদের। সেই পরিস্থিতি যাতে এ দিন না হয়, সে কারণে মিডিল অর্ডারে কিছুটা রদবদল করা হয়। জায়গা পান ঋদ্ধিমান সাহাও। মিডিল অর্ডার এ দিন ভেঙে না পড়লেও হায়দরাবাদ রানের গতি কিছুতেই বাড়াতে পারেনি।

অথচ চেষ্টার কোনো কসুর করেনি তারা। ডেভিড ওয়ার্নার কিছুটা আগ্রাসী শুরু করার পর দুর্দান্ত একটা অর্ধশতরান করে হায়দরাবাদকে ম্যাচে মধ্যে রাখেন মনীশ পাণ্ডে। চেষ্টা করছিলেন ঋদ্ধিমানও।

আইপিএলের দুনিয়াটা কী অদ্ভুত। বাংলার কোনো ক্রিকেটার না থাকা কলকাতার মুখোমুখি হতে হচ্ছে বাংলার ঋদ্ধিমানকে। দীর্ঘদিন প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ না খেলার ফলে কিছুটা জড়তা তাঁর ব্যাটিংয়ে ছিলই। তবুও সেই জড়তা ছেড়ে বেড়িয়ে একটি ছক্কাও হাঁকান ঋদ্ধি। তবে ঋদ্ধির আগমনে হায়দরাবাদের ব্যাটিং অনেকটাই স্থিতিশীল হয়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

ভারতীয় দল থেকে বাদ পড়লেও তিনি যে ফুরিয়ে যাননি, সেটা বুঝিয়ে দিলেন মনীশ পাণ্ডে। তিনটে চার আর দুটি ছয়ে সাজানো ছিল তাঁর ইনিংস। তবে পিচ যদি বেশি মন্থর না থাকত, তা হলে তিনি যে আরও বড়ো রানের ইনিংস খেলতেন, তা বলাই বাহুল্য।

এ দিনের আবু ধাবির পিচটা যে বিশেষ সুবিধার ছিল না সেটা কেকেআরের রান তাড়ার শুরুটা দেখেই বোঝা গেল। সুনীল নারিন এ দিনও ব্যর্থ হলেন। ওপেনিংয়ে নারিনকে রেখেই কেকেআর ফাটকা খেলে যাবে না কি প্রকৃত কোনো ব্যাটসম্যানকে নিয়ে আসবে, সেটা এ বার ভাবতে হবে তাদের।

নীতীশ রানা আর দীনেশ কার্তিকও এ দিন ব্যর্থ হন। তবে লক্ষ্যমাত্রা কম হওয়ায় রানরেটের দিক থেকে কখনোই সে ভাবে চাপে পড়তে হয়নি কেকেআরকে। শুভমান গিল এ দিন যথেষ্ট উজ্জ্বল ছিলেন। প্রতিভায় ভরপুর গিল, এখনও পর্যন্ত সুযোগের সে ভাবে সদ্ব্যবহার করতে পারেননি। তবে এ দিন সেটা করলেন।

চ্যালেঞ্জিং পিচে কী ভাবে নিজের ইনিংসকে টেনে নিয়ে যেতে হয়, সেটা এ দিন বোঝালেন গিল। খুব সুন্দর একটি অর্ধশতরানও করে ফেললেন তিনি। ওইন মর্গ্যানও শুরুর দিকে কিছুটা সমস্যায় পড়লে পরের দিকে সামলে নেন।

সব মিলিয়ে কেকেআর শিবিরে হাসি ফুটল শনিবার। জয়ের ধারা বজায় থাকবে বলেই আশা করবে কেকেআরের সমর্থকরা।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

অবিশ্বাস্য! প্রথম তিনটে ম্যাচের মধ্যে দুটোতেই হারল চেন্নাই সুপারকিংস

Continue Reading

ক্রিকেট

অবিশ্বাস্য! প্রথম তিনটে ম্যাচের মধ্যে দুটোতেই হারল চেন্নাই সুপারকিংস

চেন্নাইকে উড়িয়ে দিল দিল্লি।

Published

on

Chennai vs Delhi
ব্যাটিং ভরাডুবি চেন্নাইয়ের।

দিল্লি ১৭৫-৩ (পৃথ্বী ৬৪, পন্থ ৩৭ অপরাজিত, চাওলা ২-৩৩)

চেন্নাই ১৩১-৬ (দু’প্লেসি ৪৩, যাদব ২৬, রাবাদা ৩-২৬)

খবরঅনলাইন ডেস্ক: এটা বিশ্বাস করা যায় না! প্রথম তিনটে ম্যাচের মধ্যে দুটোতেই হেরে গেল চেন্নাই সুপারকিংস! আইপিএলের ঈতিহাসে এই ধরনের ঘটনা আগে কখনও কি ঘটেছে?

চেন্নাইয়ের যে দিন সর্বনাশ, সে দিন দিল্লি ক্যাপিটাল্‌সের পৌষ মাস। গত বছর থেকেই এই দলটার বৃহস্পতি তুঙ্গে চলছে। আর এই আইপিএলে দিল্লিই প্রথম দল, যারা পর পর দুটো ম্যাচ জিতল। বর্তমানে তারাই লিগ টেবিলের মগডালে চড়ে বসে রয়েছে।

এ দিন দিল্লির ইনিংসটা নির্দিষ্ট ভাবে দুটি ভাগে ভাগ করে দেওয়া যায়। প্রথম ভাগটি প্রথম দশ ওভার, যখন শিখর ধাওয়ানকে সঙ্গে নিয়ে চেন্নাইয়ের বোলারদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছেন পৃথ্বী শ। একের পর এক বাউন্ডারির মধ্যে দিয়ে ভোঁতা করে দিচ্ছিলেন চেন্নাইয়ের আক্রমণ। উলটো দিকে ধাওয়ান সে ভাবে আগ্রাসী না হতে পারলেও পৃথ্বীকে যথেষ্ট ভরসা দিয়ে যাচ্ছিলেন।

পৃথ্বী আর ধাওয়ানের চওড়া ব্যাটে ভর করে প্রথম দশ ওভারের মধ্যেই বিনা উইকেটে ৯০-এর ঘরে ঢুকে গিয়েছিল দিল্লি। এমন পরিস্থিতি থেকে দুশো রান তো যে কোনো ব্যাটিং দলের করাই উচিত। কিন্তু দিল্লি সেটা পারেনি।

কেকেআর ছেড়ে দেওয়ায় লেগ স্পিনার পীযূষ চাওলাকে এ বার তুলে নিয়ে চেন্নাই। তিনি বার বার বুঝিয়ে দিচ্ছেন, তাঁর মধ্যে এখনও দম রয়েছে। রাজস্থানের বিরুদ্ধে ম্যাচে বেশ রান দিয়ে দিলেও মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচের মতোই এ দিনও ‘পার্টনারশিপ ব্রেকার’-এর ভূমিকা পালন করলেন তিনি।

চাওলার জন্য মাত্র ৯ রানের ব্যবধানে ফিরে গেলেন পৃথ্বী আর ধাওয়ান। তবে বৃহস্পতিবার কেএল রাহুল যে রকম ইনিংস খেলেছিলেন, এ দিন পৃথ্বীর কাছেও সুযোগ ছিল তেমন ইনিংস উপহার দেওয়ার। কিন্তু ধৈর্য হারিয়ে নিজের উইকেট দিয়ে এলেন তিনি।

তিন নম্বরে যখন ঋষভ পন্থ নামলেন, তখনও মনে করা হচ্ছিল দিল্লি সহজেই দুশো পেরোবে। কিন্তু সেটা করতে দেননি চেন্নাইয়ের বোলাররা। স্যাম কারান এ দিনও যথেষ্ট প্রভাব ফেলে পার্পেল টুপি নিজের দখলে করলেন। এ ছাড়া লুঙ্গি এনগিডির বদলে এই ম্যাচে খেলা অস্ট্রেলিয়ার জস হ্যাজেলউডও চাপা বোলিং করে গেলেন।

চেন্নাইয়ের বোলারদের জন্যই এ দিন ১৮০ পেরোতে পারেনি চেন্নাই।

কিন্তু শুরু থেকেই চেন্নাই বুঝিয়ে দিল দিল্লি রান তারা কোনো ভাবেই তাড়া করতে পারবে না। তৃতীয় ম্যাচেও ক্লিক করল না চেন্নাইয়ের ওপেনিং জুটি। শেন ওয়াটসন যাও বা একটুআধটু চার-ছয় মারছেন, মুরলি বিজয় তো ফর্ম হাতড়াচ্ছেন। বিজয়ের বদলে ফাফ দু’প্লেসিকে দিয়ে চেন্নাইয়ের ওপেন করানো উচিত বলে মনে করছেন অনেকে।

এখনও পর্যন্ত টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ রান করে কমলা টুপির মালিক দু’প্লেসির ব্যাট এ দিনও চলল। কিন্তু অপর প্রান্তে কারুর সংগত পাননি। শেষে যখন কেদার যাদব এসে কিছুটা থিতু করলেন ইনিংসটাকে ততক্ষণে দশ ওভার পেরিয়ে গিয়েছে। আস্কিং রেট উঠে গিয়েছে ১২-এর কাছাকাছি।

তবুও দলটার নাম যে হেতু চেন্নাই তাই ওত সহজে হাল ছাড়বার পাত্র ছিলেন না ভক্তরা। আর তাঁদের আশা কয়েক গুণ বেড়ে গেল, যখন ছয় নম্বর নামলেন মহেন্দ্র সিংহ ধোনি। নিজেকে ওপরে তুলে এনে প্রথমেই একটি বলকে বাউন্ডারির বাইরে পাঠালেও এ দিনও সেই ধোনি ধামাকা দেখা যায়নি।

অবশ্য ধোনি অনেক চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু পারেননি কাগিসো রাবাদার জন্য। টি২০-তে অন্যতম সেরা বোলার ইতিমধ্যেই হয়ে গিয়েছেন রাবাদা। এ বার ধীরে ধীরে নিজেকে আরও উন্নত করছেন তিনি। এ দিন অবশ্য শুধু রাবাদাই নয়, তাঁর সতীর্থ সাউথ আফ্রিকান আনরিক নর্কিয়া দুর্দান্ত বল করলেন। দিল্লির হয়ে সব থেকে বেশি উইকেট এ দিন তিনিই নিলেন।

ব্যাটিং গভীরতা যথেষ্ট ভালো, বোলিং আক্রমণও দুর্দান্ত। চেন্নাইকে হারিয়ে বাড়তি চাঙ্গাও হয়েছে তারা। তা হলে এ বার কি আইপিএল ট্রফি দিল্লির? এমনটা হলে সত্যিই অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

১২ লক্ষ টাকা জরিমানা হল বিরাট কোহলির

Continue Reading

ক্রিকেট

১২ লক্ষ টাকা জরিমানা হল বিরাট কোহলির

বৃহস্পতিবার দিনটা বড্ড খারাপ গেল বিরাটের।

Published

on

virat kohli
এক ঘণ্টা ৫১ মিনিট ধরে প্রথম ইনিংসে বল করে বিরাট কোহলির দল।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: বৃহস্পতিবার দিনটা বড্ড খারাপ গেল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর অধিনায়ক বিরাট কোহলির (Virat Kohli)। প্রথমে তো তিনি কেএল রাহুলের দু’খানা ক্যাচ ফেললেন, তার পর ব্যাটেও চূড়ান্ত ভাবে ব্যর্থ হলেন। এর পর মোটা অঙ্কের জরিমানাও হল তাঁর।

সূত্রের খবর, স্লো ওভার রেটের জন্য বিরাটকে ১২ লক্ষ টাকা জরিমানা করেছে আইপিএল (IPL) কর্তৃপক্ষ।

কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের বিরুদ্ধে ম্যাচে ডাল স্টেইন, উমেশ যাদব আর নবদীপ সাইনিকে দিয়ে বেঙ্গালুরুর পেস আক্রমণ সাজিয়েছিলেন বিরাট। আর সেটাই তাঁর কাল হল। জানা গিয়েছে, এক ঘণ্টা ৫১ মিনিট সময় ধরে চলেছিল বেঙ্গালুরুর প্রথম ইনিংস। আর সেই কারণেই রোষের মুখে পড়েছেন বিরাট।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার কেএল রাহুলের একার কাছেই অসহায় ভাবে আত্মসমর্পণ করে বেঙ্গালুরু। রাহুল ১৩২ রানে অপরাজিত ছিলেন। আর বেঙ্গালুরু অলআউট হয়ে গিয়েছিল ১০৯ রানে। পঞ্জাবের কাছে ৯৭ রানের বিশাল ব্যবধানে হারতে হয়েছে বিরাটবাহিনীকে।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

রাহুল-ঝড়ে তছনছ বেঙ্গালুরু

Continue Reading
Advertisement
আইপিএল18 mins ago

আইপিএল-এর ইতিহাসে রান তাড়া করার রেকর্ড, পাঞ্জাবকে হারিয়ে জিতল রাজস্থান রয়্যালস

Balasaheb Thorat
দেশ3 hours ago

রাষ্ট্রপতির সম্মতি মিললেও নয়া তিন কৃষি আইন কার্যকর করবে না মহারাষ্ট্র, হুঁশিয়ারি মন্ত্রীর

রাজ্য4 hours ago

রাজ্যে দৈনিক আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যায় সামান্য বৃদ্ধি, ঊর্ধ্বমুখী সুস্থতা

farm bills protest
দেশ5 hours ago

নাটকীয় ভাবে সংসদে পাশ হওয়া কৃষি বিলে স্বাক্ষর রাষ্ট্রপতির

দেশ5 hours ago

সেরো সার্ভের রিপোর্ট তুলে ধরে কোভিড নিয়ে সতর্ক করলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী

দেশ6 hours ago

জল্পনার অবসান! নীতীশ কুমারের দলে যোগ দিলেন বিহারের প্রাক্তন ডিজি

রাজ্য8 hours ago

২ নভেম্বর থেকে কলেজের ক্লাস অনলাইনে, সাফ জানালেন শিক্ষামন্ত্রী

রাজ্য8 hours ago

সিঙ্গুর প্রসঙ্গ টেনে বিজেপি-সঙ্গ ত্যাগকারী অকালি দলকে সমর্থন তৃণমূলের

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 days ago

নতুন কালেকশনের ১০টি জুতো, ১৯৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো এসে গিয়েছে। কেনাকাটি করে ফেলার এটিই সঠিক সময়। সে জামা হোক বা জুতো। তাই দেরি...

কেনাকাটা3 days ago

পুজো কালেকশনে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে চোখ ধাঁধানো ১০টি শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজোর কালেকশনের নতুন ধরনের কিছু শাড়ি যদি নাগালের মধ্যে পাওয়া যায় তা হলে মন্দ হয় না। তাও...

কেনাকাটা5 days ago

মহিলাদের পোশাকের পুজোর ১০টি কালেকশন, দাম ৮০০ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : পুজো তো এসে গেল। অন্যান্য বছরের মতো না হলেও পুজো তো পুজোই। তাই কিছু হলেও তো নতুন...

কেনাকাটা1 week ago

সংসারের খুঁটিনাটি সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এই জিনিসগুলির তুলনা নেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিজের ও ঘরের প্রয়োজনে এমন অনেক কিছুই থাকে যেগুলি না থাকলে প্রতি দিনের জীবনে বেশ কিছু সমস্যার...

কেনাকাটা2 weeks ago

ঘরের জায়গা বাঁচাতে চান? এই জিনিসগুলি খুবই কাজে লাগবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ঘরের মধ্যে অল্প জায়গায় সব জিনিস অগোছালো হয়ে থাকে। এই নিয়ে বারে বারেই নিজেদের মধ্যে ঝগড়া লেগে...

কেনাকাটা2 weeks ago

রান্নাঘরের জনপ্রিয় কয়েকটি জরুরি সামগ্রী, আপনার কাছেও আছে তো?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরের এমন কিছু সামগ্রী আছে যেগুলি থাকলে কাজ করাও যেমন সহজ হয়ে যায়, তেমন সময়ও অনেক কম খরচ...

কেনাকাটা3 weeks ago

ওজন কমাতে ও রোগ প্রতিরোধশক্তি বাড়াতে গ্রিন টি

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ওজন কমাতে, ত্বকের জেল্লা বাড়াতে ও করোনা আবহে যেটি সব থেকে বেশি দরকার সেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা...

কেনাকাটা3 weeks ago

ইউটিউব চ্যানেল করবেন? এই ৮টি সামগ্রী খুবই কাজের

বহু মানুষকে স্বাবলম্বী করতে ইউটিউব খুব বড়ো একটি প্ল্যাটফর্ম।

কেনাকাটা1 month ago

ঘর সাজানোর ও ব্যবহারের জন্য সেরামিকের ১৯টি দারুণ আইটেম, দাম সাধ্যের মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘর সাজাতে কার না ভালো লাগে। কিন্তু তার জন্য বাড়ির বাইরে বেরিয়ে এ দোকান সে দোকান ঘুরে উপযুক্ত...

কেনাকাটা1 month ago

শোওয়ার ঘরকে আরও আরামদায়ক করবে এই ৮টি সামগ্রী

খবর অনলাইন ডেস্ক : সারা দিনের কাজের পরে ঘুমের জায়গাটা পরিপাটি হলে সকল ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। সুন্দর মনোরম পরিবেশে...

নজরে