joe root and steve smith

ওয়েবডেস্ক: এ বার ফিক্সিং আতঙ্ক গ্রাস করল অ্যাসেজ সিরিজকে। ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করলেও এখনও কোনো প্রমাণ নেই বলে জানিয়ে দিয়েছে আইসিসি। তবে সিরিজের তৃতীয় টেস্ট শুরুর দিনেই এই খবরে টালমাটাল ক্রিকেট দুনিয়া।

ফিক্সিং-এর এই অভিযোগটি এনেছে ‘দ্য সান’ নামক ব্রিটেনের এক দৈনিক। এই দৈনিকের দাবি গোপনে তারা দু’জন বুকারের সঙ্গে কথা বলেছে। এর মধ্যে একজন আবার ভারতীয়। এই দুই বুকারের দাবি, পুরো অ্যাসেজ সিরিজে তারা নাকি প্রভাব বিস্তার করতে পারবে। এমনকি কোন ওভারে কত রান হবে সেটাও নাকি তারা বলে দিতে পারবে।

এর সঙ্গে নাকি অনেক প্রাক্তন এবং বর্তমান ক্রিকেটার জড়িত রয়েছে বলেও জানিয়েছে ওই দুই বুকার। জড়িত রয়েছে বিশ্বজয়ী এক অল-রাউন্ডারও। তবে অস্ট্রেলিয়া এবং ইংল্যান্ডের কোনো বর্তমান ক্রিকেটার এই কাণ্ডে জড়িত নেই বলে জানিয়েছে ওই দৈনিক।

‘দ্য সানের’ রিপোর্টে একজন বুকারকে উদ্ধৃত করা হয়েছে। সেখানে ওই বুকার বলছে, “ম্যাচের আগে আমি কোন ওভারে কত রান হবে সব বলে দেব। তার ওপরে বাজি ধরা হবে।”

এই ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করে তদন্তও শুরু করেছে আইসিসি। তবে এখনও উপযুক্ত প্রমাণ হাতে নেই বলে জানিয়েছেন আইসিসি’র দুর্নীতি বিরোধী শাখার প্রধান অ্যালেক্স মার্শাল। তাঁর কথায়, “এখনও পর্যন্ত যা বুঝছি তাতে এই টেস্টে কোনো রকম দুর্নীতি করা হয়নি। তবে আমরা তদন্ত করছি।” তৃতীয় টেস্টে কোনো রকম ফিক্সিং করা হয়নি বলে আশা প্রকাশ করেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান জেমস সাদারল্যান্ড। একই কথা বলেছে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডও। তবে তদন্তের স্বার্থে আইসিসির সঙ্গে সমস্ত রকম সহযোগিতা করা হবে বলে জানিয়েছে তারা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here