ওয়েবডেস্ক: ২০ বছর আগে যে মাঠ থেকে নিজের রঞ্জি কেরিয়ার শুরু করেছিলেন, বুধবার সেই ফিরোজ শাহ কোটলায় নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে টি-২০ ম্যাচ খেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানাবেন আশিস নেহরা। ভারতীয় ক্রিকেটের একনিষ্ঠ দর্শকরা জানেন, ভারতীয় বোলিং-এর ইতিহাসে তিনি কোনো গুরুত্বপূর্ণ স্থান পাবেন না। কারণ রেকর্ড নেহাতই সাদামাটা।

১৭টি টেস্ট খেলে নেহরা ৪৪টি উইকেট পেয়েছেন, ১২০টি ওয়ান ডে খেলে ১৫৭টি উইকেট নিয়েছেন, এখন অবধি ২৫টি টি-২০ খেলে ৩৪টি উইকেট নিয়েছেন।

তাঁর আন্তর্জাতিক কেরিয়ার সাড়ে আঠারো বছর দীর্ঘ। সেটা বিরল হলেও, তিনি ছাড়াও অনেকেরই এই কৃতিত্ব আছে। সচিন তো আছেনই, আছেন মহিন্দর অমরনাথও। কিন্তু নেহরা যেখানে সবাইকে ছাপিয়ে গিয়েছেন, তা হল বারবার চোট পেয়ে দল থেকে বেরিয়ে গিয়েও ফিরে আসা। আর এই আসা যাওয়ার মাঝেই এই চির প্রতিভাবান বোলারটি এক অনন্য কৃতিত্বের অধিকারী হয়ে গেছেন। কামব্যাকে অমরনাথকে অনেকটাই পেছনে ফেলে দিয়েছেন তিনি।

১৯৯৯ সালে শ্রীলঙ্কায় মহম্মদ আজহারউদ্দিনের অধিনায়কত্বে টেস্টে অভিষেক হয় নেহরার। ২০০১ সালে সৌরভের অধীনে ওয়ান ডে-তে। আর ২০০৯ সালে ধোনির অধিনায়কত্বে দেশের হয়ে টি টুয়েন্টি খেলা শুরু করেন তিনি। এ ছাড়াও নেহরা যাঁদের অধিনায়কত্বে ভারতীয় দলে খেলেছেন, তাঁরা হলেন রাহুল দ্রাবিড়, অনিল কুম্বলে, গৌতম গম্ভীর ও বিরাট কোহলি।

অর্থাৎ মোট সাত জন অধিনায়কের অধীনে ভারতীয় দলে খেলেছেন নেহরা। এই কৃতিত্ব ভারতীয় ক্রিকেটের ইতিহাসে কারও নেই। ২০০৩ সালের বিশ্বকাপে ডারবানে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ২৩ রানে ৬ উইকেটের দুরন্ত স্পেলটি ভারতের ক্রিকেটমোদী জনতা ভুলতে পারবেন না। আর সাত অধিনায়কের বিরুদ্ধে খেলার কৃতিত্বের জন্য তাঁকে মনে রাখবে ভারতীয় ক্রিকেটের ইতিহাস।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here