ball tamper

ওয়েবডেস্ক: বল বিকৃতি কাণ্ডে রীতিমতো তোলপাড় ক্রিকেট বিশ্ব। ইতিমধ্যেই নির্বাসিত হয়েছেন তিন অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার। তবে আমরা অনেকেই জানি না এই বল বিকৃতি করা হয় কী ভাবে।

প্রথমত, বোলিংয়ে যে কোনো ধরনের সুইং অন্যতম কার্যকরী বিষয়। সুইং মূলত দুই ধরনের হয়, সাধারণ সুইং এবং রিভার্স সুইং।

সাধারণ সুইংয়ে তেমন কোনো আলাদা বৈশিষ্ট্য নেই। বোলারারা মূলত, বলের চকচকে দিকটিকে ব্যবহার করেন। এর ফলে বলকে যে কোনো এক দিকে ‘মুভ’ করানো যায়। যা ক্রিকেটে নিয়ম অনুযায়ী সম্মত।

তবে রিভার্স সুইং যে কোনো ব্যাটসম্যানের কাছে সমস্যা হয়ে দাঁড়াতে পারে। মূলত, রিভার্স সুইংকে কেন্দ্র করে বল বিকৃতি। অনেক সময় বোলারার ইচ্ছাকৃত ভাবে বলের একটি দিককে শক্ত এবং শুষ্ক করার চেষ্টা করে। তবে অপর দিকটি থাকে পালিশ করা বা চকচকে। এর ফলে যখন বলটি করা হয়, তখন বাতাস চাপ সৃষ্টি করে সেই শক্ত এবং শুষ্ক দিকটিতে। যার কারণে নিজের সাধারণ পথের বিপক্ষে সুইং হয় বলটি।

তবে এটি যদি নিজের থেকে হয় তা হলে আলাদা বিষয়। কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায়, খেলোয়াড়রা কোনো বস্তুর সাহায্যে এমনটা করেন। যেমন টেপ, স্পাইক, বা স্যান্ডপেপারের মতো কোনো বস্তু। যা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here