নতুন নিয়ম চালু হওয়ার পর প্রথম দল হিসেবে এই কাজটি করল বাংলাদেশ

0

কলকাতা: মাথায় আঘাত লাগলে, প্রথম একাদশের কোনো ক্রিকেটারকে ম্যাচের মধ্যেই বদল করে দেওয়া যেতে পারে। ক্রিকেটীয় ভাষায় এটিকে ‘কনকাশান সাবস্টিটিউট’ বলা হয়।

এ বছর আগস্টে এই নিয়মটি চালু করে আইসিসি। তার পর একাধিক দল এই ‘কনকাশান সাবস্টিটিউট’-এর ব্যবহার করে। তবে সবাই একটি ম্যাচে একজন ক্রিকেটারকেই পরিবর্তন করেছে মাথায় চোটের ফলে। কিন্তু বাংলাদেশ একটি ম্যাচে দু’টি ব্যাটসম্যানকে পরিবর্তন করার নজির স্থাপন করল।

শুক্রবার ম্যাচের শুরু থেকেই ভারতীয় বোলাররা কার্যত তাণ্ডব চালায়। কিন্তু সব থেকে বেশি ভয়ংকর লাগছিল মহম্মদ শামিকে। শামির বাউন্সার সামলাতে না পেরে মাথায় চোট পান বাংলাদেশের লিটন দাস।

মধ্যাহ্নভোজনের বিরতির পর লিটন ব্যাট করতে পারেননি, তাঁর পরিবর্তে ব্যাট করতে আসেন মেহদি হাসান। প্রথম একাদশে না থাকা সত্ত্বেও মেহদি ব্যাটের সুযোগ পেলেন, এই নিয়মের সৌজন্য। তবে তিনি বল করতে পারবেন না। কারণ, লিটন যে হেতু উইকেটকিপার হিসেবে বাংলাদেশ দলে ছিলেন, তাই তাঁর পরিবর্তে আসা ক্রিকেটারকে খুব বেশি হলে উইকেটকিপিংয়ের দায়িত্ব দেওয়া যেতে পারে।

আরও পড়ুন ‘সুপারম্যান’ ঋদ্ধিমানের অনন্য নজির

অন্য দিকে শামির বলেই মাথায় চোট পান নঈম হাসান। তিনি অবশ্য চোটের পরেও খেলা চালিয়ে যান, এবং ১৯ রানও করেন। কিন্তু পরে জানা যায়, এই টেস্টে আর খেলতে পারবেন না নঈম। তাঁর বদলে দলে নিয়ে আসা হয়েছে তইজুল ইসলামকে।

তবে তইজুল বল করতে পারবেন। কারণ বাংলাদেশ দলে নঈমের ভূমিকা ছিল স্পিনার হিসেবেই। তাই তাঁর পরিবর্তে আসা ক্রিকেটারের বল করতে কোনো অসুবিধা নেই।

তবে বাংলাদেশ শিবির এবং সব ক্রিকেটভক্তের আশা দ্রুত সুস্থ হয়ে মাঠে ফিরে আসুন লিটন আর নঈম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.